মায়ের লাশের পাশে কাঁদছিল দুধের শিশু, ৩ ঘণ্টায় ধরা অভিযুক্ত
মায়ের লাশের পাশে কাঁদছিল দুধের শিশু, ৩ ঘণ্টায় ধরা অভিযুক্ত

পুলিশের হাতে আটক স্বামী

মায়ের লাশের পাশে কাঁদছিল দুধের শিশু, ৩ ঘণ্টায় ধরা অভিযুক্ত

অনলাইন ডেস্ক

দাম্পত্য কলহের জেরে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নৃশংসভাবে স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায়।

পরে ঘাতক স্বামী তামিম শেখকে গোপালগঞ্জ থেকে আটক করে পুলিশ। পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) ঘটনার তিন ঘণ্টার ব্যবধানে তাকে আটক করা হয়েছে। ‍নিহত রাশিদা তামিমের দ্বিতীয় স্ত্রী।

এদিকে তামিমের প্রথম স্ত্রীর ঘরে দুই সন্তান রয়েছে ‍এবং তামিম রাশিদার দ্বিতীয় স্বামী। ‍এ সংসারে তাদের ‍একটি শিশু সন্তান রয়েছে।

রাশিদা আগৈলঝাড়া উপজেলার ১নং ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় স্বামী-সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন।

ঘটানার বর্ণনা ও অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে আগৈলঝাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম সরোয়ার বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে বুধবার রাতে উপজেলার বাইপাস মহাসড়কের পাশে ঘেরের পাড় থেকে রাশিদার রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। তার পাশেই কাঁদছিল রাশিদার দশ মাস বয়সী শিশুপুত্র তানিম। লাশ উদ্ধারের পরপরই রাশিদার স্বামীর বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।

পরে বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে তামিমকে তার বাড়ি গোপালগঞ্জের বেদ গ্রাম থেকে রক্তমাখা জুতা ও জামাপড়াসহ আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তামিম স্ত্রী রাশিদা হত্যার দায় স্বীকার করেছে।

তামিম জানিয়েছে, বুধবার নিহত রাশিদাকে নিয়ে গোপালগঞ্জের একটি হোটেলে অবস্থান করে। রাত ৮টার পরে সেখান থেকে বের হয়ে লোকজনের সহায়তায় রাশিদাকে হত্যা করে। ওই রাতে একটি মাহেন্দ্র ভাড়া করে আগৈলঝাড়ার বাইপাস মহাসড়কের পাশে রাশিদার লাশ ও তার শিশু সন্তানকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

আরও পড়ুন


‘বসুন্ধরার মালিকে কম্বল পাডাইছে, ইশ্বর তার বালা করুক’

news24bd.tv তৌহিদ

;