রামেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃত্যু
রামেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে আরও দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে একজন নারী এবং একজন পুরুষ। দুইজনই রাজশাহী জেলার অধিবাসী।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শামীম ইয়াজদানী তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মারা যাওয়া দুইজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে। তারা করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু নমুনা পরীক্ষার আগেই তাদের অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে তাদেরকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়েছিল। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়েছে।  

তিনি আরও জানান, রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে থাকা ১০৪ শয্যার বিপরীতে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত মোট ৪৩ জন রোগী ভর্তি ছিলেন। এর মধ্যে রাজশাহীর ২৫ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৬ জন, নওগাঁর ৩ জন, নাটোরের ২ জন, পাবনার ৩ জন, কুষ্টিয়ার একজন এবং জয়পুরহাটের ৩ জন রোগী রয়েছেন। এর মধ্যে আবার করোনা পজিটিভ রোগী রয়েছেন ৩০ জন। করোনা উপসর্গে ভুগছেন এমন রোগী রয়েছেন ৭ জন। এছাড়া করোনা ধরা পড়েনি এমন রোগী ভর্তি রয়েছেন আরও ৬ জন।

রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২ হাজার ২৫৩ জনে দাঁড়িয়েছে বলেও জানান শামীম ইয়াজদানী।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়নি। তবে, রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে ১৫৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৪৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহীর ২৯ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১৫ জন এবং নাটোরের ২ জন ব্যক্তির নতুনভাবে করোনা শনাক্ত হলো। এই নিয়ে এখন রাজশাহী জেলায় একদিনে নতুনভাবে করোনা শনাক্তের হার দাঁড়ালো ২৮ দশমিক ৭১ শতাংশে।

আরও পড়ুন: 


শাবিপ্রবি: অনশনের চতুর্থ দিনে ১৬ শিক্ষার্থী হাসপাতালে

ভোটিং মেশিন বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন ট্রাম্প!

আদালতের সামনে মেয়ের ধর্ষককে গুলি করে হত্যা!


শনিবার (২২ জানুয়ারি) দুপুরে রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিপ্তরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ৬৯৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এই বিভাগে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ২৫৩ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে ৯৭ হাজার ১৩ জন।

news24bd.tv/ নাজিম

;