সাভারে পয়োবর্জ্য ফেলতে সড়কের মাঝে কূপ খনন নারীর
সাভারে পয়োবর্জ্য ফেলতে সড়কের মাঝে কূপ খনন নারীর

রাস্তার মাঝে কূপ খনন

সাভারে পয়োবর্জ্য ফেলতে সড়কের মাঝে কূপ খনন নারীর

নাজমুল হুদা, সাভার

সাভারে পয়োনিষ্কাশনের পানি ফেলতে প্রভাব খাটিয়ে সড়কের মাঝে গর্ত খোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে এক নারীর বিরুদ্ধে। এলাকাবাসীর বাধার মুখে ওই সড়কের জায়গা তার পৈতৃক বলে দাবি করেন ওই নারী। তবে প্রায় এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের সড়কটি সরকারি বলে জানিয়েছেন বাসিন্দারা।

ঘটনাটি সাভার সদর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম মিল্টন এলাকার।

যার বিরুদ্ধে গর্ত খোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে তার নাম সুফিয়া বেগম। অভিযুক্ত সুফিয়া বেগম বলেন, ‘রাস্তাটা আমার বাড়ির সামনে এসেই শেষ হয়েছে। আর এই রাস্তার জমি আমরাই দিয়েছি। আমার বাড়ির ভেতরে পয়োবর্জ্য ফেলার কোনো জায়গা নেই। তাই রাস্তার ভেতরেই একটা গর্ত করে বানাচ্ছি।

স্থানীয় বাসিন্দা আলাউদ্দিন বলেন, ‘আমাদের এলাকার ওই সড়কটির দৈর্ঘ্য প্রায় এক কিলোমিটার ও প্রস্থ ১২ ফুট। প্রতিদিন গার্মেন্টস শ্রমিকসহ প্রায় ৫০০ মানুষ চলাচল করেন। কিন্তু রোববার সড়ক থেকে একটু দূরের বাসিন্দা সুফিয়া বেগম তার বাসার বাথরুমের পানি ফেলার জন্য সড়কের মাঝে একটি গভীর কূপ করেন। এ সময় তাকে স্থানীয়রা বাধা দিলে তার পৈতৃক জমি থেকে সড়কের জায়গা দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেন।

‘সড়কের মাঝে এভাবে গভীর কূপ খোঁড়ার কারণে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন অনেকে। বাসিন্দারা জনপ্রতিনিধিদের কাছে গেলে ওই নারী তাদের কাছে তিন-চার দিন সময় চেয়ে নেন। সড়কে খোঁড়া গর্তটি আপাতত টিন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। ’

অভিযুক্ত সুফিয়া বেগম বলেন, এখন সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য আমরা রাস্তায় জমি দিয়েছি। সেই রাস্তা সরকারি হয়েছে। এখন তো আমাদেরও সরকারকে সহায়তা করতে হবে। আমরা যদি বাড়ির বর্জ্য পানি ফেলবার রাস্তা না পাই তো কী করব। ’

ওই ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের নারী মেম্বার মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘আজ চেয়ারম্যানের নির্দেশে ওই ওয়ার্ডের মেম্বার ও আমি সেখানে গিয়েছিলাম। সরকারি সড়কের মাঝে আমরা গর্ত খোঁড়া অবস্থায় দেখেছি। সুফিয়া বেগম নামে এক নারী তার বাসার পয়োনিষ্কাশনের জন্য গর্তটি করেছেন।

তবে তাকে তিন দিন সময় দেয়া হয়েছে বিষয়টি মীমাংসার জন্য। সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাজহারুল ইসলাম বলেন, মানুষের চলাচলের রাস্তার জায়গায় কারো মালিকানা হলেও কেউ বন্ধ করতে পারে না। জনগণের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করা কারো অধিকার নাই। এটি আইনসিদ্ধ নয়। ভুক্তভোগী পরিবারের লিখিত অভিযোগ পেয়ে বিষয়টি সমাধান করার জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যান সোহেল রানাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। পরে বিষয়টি নিয়ে আমার সাথে কেউ যোগাযোগ করেনি।

স্থানীয় চেয়ারম্যান সোহেল রানা বলেন, আমি চেষ্টা করেছি সমস্যাটি সমাধান করার। সুপিয়ার রাস্তার জায়গা ছেড়ে দেওয়ার জন্য রাজি হয়েছিলেন। কিন্তু তার প্রতিপক্ষের লোকজনের অসহযোগিতার কারণে সমস্যাটি সমাধান করা সম্ভব হয়নি। তারা সহযোগিতা করলে সুফিয়ার সাথে কথা বলে তাদের রাস্তার কাজ বন্ধ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


গৃহবধূকে উত্ত্যক্ত, ছাত্রলীগ নেতাসহ পাঁচজনকে গণপিটুনি!

news24bd.tv এসএম

;