১৭ বছরেও শেষ হয়নি শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার বিচার
১৭ বছরেও শেষ হয়নি শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার বিচার

শাহ এএমএস কিবরিয়া

১৭ বছরেও শেষ হয়নি শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার বিচার

শ্রীকান্ত গোপ, হবিগঞ্জ

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার ১৭ বছরেও শেষ হয়নি বিচারকাজ। অন্যদিকে আলোচিত হত্যাকাণ্ডের মনগড়া বিচার মেনে নেবে না বলে জানান কিবরিয়ার পরিবার।

মনগড়া এ বিচার কাজ বন্ধ করা হলে আবারও বিচার শুরু করা হবে জানান কিবরিয়ার ছেলে ড.রেজা কিবরিয়া। এদিকে আলোচিত কিবরিয়া হত্যা মামলায় গত এক বছরে সাক্ষী দিয়েছেন মাত্র ৪ জন।

এর আগে ১৭১ জনের মধ্যে ৪৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছিল। এ হত্যা মামলার বিচার নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারী এ দিনে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক জনসভা শেষে ফেরার পথে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়সহ ৫ জন। ঘটনাস্থলে আহত হন হবিগঞ্জ ৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহিরসহ কমপক্ষে শতাধিক নেতাকর্মী।

এ ঘটনার রাতেই হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান সংসদ সদস্য আব্দুল মজিদ খান। এ দুটি মামলায় ১৭১ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন  সিলেট দ্রুত বিচার আদালত। আলোচিত এ হত্যা মামলায় গত এক বছরে সাক্ষী দিয়েছেন মাত্র ৪ জন। এর আগে গত বছর ৪৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছিল।

হতাশা প্রকাশ শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড.রেজা কিবরিয়া জানান মনগড়া এ বিচার কাজ বন্ধ করা হলে আবারও বিচার শুরু করা হবে। মনগড়া বিচার মেনে নেওয়া হবে না।

এ মামলায় ৩ দফা তদন্ত শেষে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও হবিগঞ্জের মেয়র জি কে গউছ, হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নানসহ ৩২ জনের বিরুদ্ধে দু’টি মামলার চার্জশীট দেন তদন্ত কর্মকর্তা এসপি মেহেরুন নেছা পারুল।

তবে বিভিন্ন কারনে স্বাক্ষ্য গ্রহণ দেরী হয়েছে বলে জানান মামলার বাদী হবিগঞ্জ-২ আসনে সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান। তিনি দৃষ্টান্তমূলক বিচার করা হবে বলে আশ্বস্ত করেছেন।

সাক্ষী ও আসামীদের অনুপস্থিতির কারণে বিচারকাজ শেষ হচ্ছে না বলেন জানান সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর সরোওয়ার আহমদ চৌধুরী আবদাল।

২০১৫ সালের জুনে হবিগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত থেকে সিলেট দ্রুত বিচার ট্রইবুনালে প্রেরণ করা হয় দুটি মামলা। এরপর থেকে চলছে সেখানে বিচার কাজ।

আরও পড়ুন


মা হওয়ার পর প্রিয়াঙ্কাকে যা বললেন আনুশকা

news24bd.tv এসএম

;