সিইসি’র বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানালেন সুজন সম্পাদক 
সিইসি’র বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানালেন সুজন সম্পাদক 

সিইসি’র বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানালেন সুজন সম্পাদক 

অনলাইন ডেস্ক

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার অভিযোগের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার।

বলেছেন, আমরা কোনো ব্যবসা-বাণিজ্য করি না। সুজন কোনো ব্যবসা-বাণিজ্য করে না। আর নির্বাচন কমিশনও আলু-পটলের ব্যবসা করে জানা ছিল না।

বৃহস্পতিবার নির্বাচন ভবনে আয়োজিত এক বৈঠকে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া কাজে বদিউল আলম মজুমদারের বিরুদ্ধে কোটি টাকার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তোলেন সিইসি। এম নূরুল হুদা বলেন, পূর্ব পরিচিত হলেও সুজনের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মসহ নানা ধরনের অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ওই সংগঠনকে কোনো কাজে সম্পৃক্ত করেনি বর্তমান ইসি।

নূরুল হুদা বলেন, বদিউল আলম মজুমদার এই কমিশন নিয়ে অনেক কথা বলে ফেলেন। এটার একটা ইতিহাস আছে। এখানে যোগদানের পর থেকে আমার সঙ্গে দেখা করতে চান। … তাকে নিয়ে অনেক ঝামেলা, অনিয়ম। এক কোটি টাকার আর্থিক অনিয়ম, কাজ না করে টাকা দেওয়া, নির্বাচন কমিশনে সভায় অনিয়ম নিয়ে সিদ্ধান্ত আছে।

বর্তমান ইসির সময়ে কাজ না পাওয়ায় ‘ক্ষুব্ধ হয়ে’ বদিউল এখন কমিশনের সমালোচনা করছেন বলে মন্তব্য করেন নূরুল হুদা।

নূরুল হুদার এমন মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে ড. বদিউল আলম মজুমদার আরও বলেন, উনার কাছে যদি অনিয়মের তথ্য-প্রমাণ থাকে তিনি তা উত্থাপন করুক। বিশ্লেষণ করে আমরা যেটা তুলে ধরেছি, সেটা হলো পুরো নির্বাচনী ফলাফল বানোয়াট ছিল। সেটা প্রমাণ করেছি। একাদশ সংসদ নির্বাচনে ২১৩ কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়েছে। বিএনপি ১২ সেন্টারে শূন্য ভোট পেয়েছে। আওয়ামী লীগও দুটো সেন্টারে শূন্য ভোট পেয়েছে। এটা অসম্ভব। অর্থাৎ পুরো নির্বাচনী ফলাফলই বানোয়াট ছিল, এটা আমরা তুলে ধরেছি।

তিনি বলেন, এই ভদ্রলোক (সিইসি নূরুল হুদা) এখন আমাদের দোষারোপ করার চেষ্টা করছেন। কোনো তথ্য প্রমাণ থাকলে তুলে ধরুক। এই চ্যালেঞ্জ আমি দিচ্ছি।

বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নির্বাচন কমিশনও ব্যবসা করে না। আমিও করি না। আমি বেকারও না। ওনার সঙ্গে দেখা হয়েছে, তখন সৈয়দ আবুল মকসুদ, ড. হাফিজসহ আমাদের সুজনের কেন্দ্রীয় কমিটির মেম্বাররা অ্যাপয়েন্টমেন্ট করে গিয়েছি। আমরা যে কাজ করেছি, তথ্য-উপাত্ত দিয়ে করেছি। আর তিনি বলেছেন, মুড়ির ঢোঙা? (প্রার্থীদের হলফনামা একীভূত করে সুজনের প্রকাশিত বই)। এই ভদ্রলোকের সাথে সততা, সতত্যার কোনো সম্পর্ক নেই। তারা আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থা ধংস করেছে। আমাদের ভোটাধিকার হরণ করেছে।

তিনি বলেন, আমরা ৪২ জন নাগরিক রাষ্ট্রপতির শরণাপন্ন হয়েছি, সুপ্রিম জুড়িসিয়াল কাউন্সিল করে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য। টেলিভিশন তাদের দুর্নীতি নিয়ে সাত-আট পর্বের অনুষ্ঠান করেছে।

news24bd.tv/ তৌহিদ

;