বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯ | আপডেট ২০ মিনিট আগে

এই জেগে ওঠা বাঘকে নাইজেরিয়া ঠেকাবে কীভাবে?

মিথুন নন্দী

এই জেগে ওঠা বাঘকে নাইজেরিয়া ঠেকাবে কীভাবে?

মাঠের খেলা আর কোচ বিতর্ককে সঙ্গী করে ২৬ তারিখে আর্জেন্টিনা গ্রুপ পর্বে তাদের শেষ ম্যাচটি খেলতে নামছে। বাঁচা-মরার এই লড়াইয়ে মেসিরা তাদের সবটুকু সামর্থ্য উজাড় করে নাইজেরিয়ান ডিফেন্সে স্বাভাবিকভাবেই ঝাঁপিয়ে পড়বে। প্রথম দুই ম্যাচের অস্বাভাবিক ফলাফলে হতচকিত আর্জেন্টিনার শক্তিশালী ফুটবল সেনাবাহিনী এ ম্যাচে নিশ্চিতভাবেই সুপার ঈগলদের বড়সড় পরীক্ষাই নিতে চলেছে। চারদিক থেকে ধেয়ে আসা সমালোচনার স্রোতে জর্জরিত মেসি, আগুয়েরো, হিগুয়েইন, ডি মারিয়া, দিবালার মতন তারকারা মাঠেই তার যোগ্য জবাব দেওয়ার জন্য শুরু থেকেই মুখিয়ে থাকবে। যার ফলস্বরূপ প্রথম মিনিট থেকেই তীব্র গতিশীল একটি সুন্দর ম্যাচের নিশ্চয়তা দর্শকদের দিয়ে দেওয়া যেতেই পারে।

নাইজেরিয়ান সুপার ঈগলরা শেষ ম্যাচে আইসল্যান্ডকে পরাজিত করে তাদের চেনা ছন্দ ফিরে পেয়েছে। তাদের অ্যাটাকিং প্লেয়ার মুসাকে নিয়ে আর্জেন্টাইন নড়বড়ে ডিফেন্সকে মনোযোগ বাড়াতে হবে। সুপার ঈগলরা এই ম্যাচে হয়তো ডিফেন্সিভ ফুটবল খেলবে এবং তাদের গতিকে কাজে লাগিয়ে দ্রুত গতির কাউন্টার অ্যাটাকের অপেক্ষায় থাকবে। এই ম্যাচটি আর্জেন্টিনার মত তাদেরও বাঁচা-মরার ম্যাচ, দ্বিতীয় রাউন্ডের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে হলে তাদেরকেও এই ম্যাচটি জিততে হবে। এখন প্রশ্ন হলো আহত বাঘ হয়ে ওঠা মেসির মতন একজন চ্যাম্পিয়ন প্লেয়ারকে নাইজেরিয়ান ডিফেন্স পারবে কি সামলাতে? লিওনেল মেসি তার এই সম্ভাব্য শেষ বিশ্বকাপটিকে রাঙিয়ে তোলার জন্য সম্ভাব্য সব চেষ্টাই করবেন। আর দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া মেসিকে সামলানো এককথায় প্রায় অসম্ভব,আর এই অসম্ভব কাজটিই করে দেখাতে হবে নাইজেরিয়ানদের।

সারাবিশ্বের কোটি কোটি আর্জেন্টাইন ভক্ত অধীর আগ্রহ নিয়ে এই হাইভোল্টেজ ম্যাচটির দিকে তাকিয়ে থাকবে। বিশ্বকাপের আনন্দ-উত্তেজনা, জৌলুশ আর আগ্রহের অনেকটাই নির্ভর করছে আর্জেন্টিনার শেষ ষোলোতে উত্তোরণের ওপর। জার্মানি যেমনটা সুইডেনের সাথে করে দেখিয়েছে। ব্লাক এন্ড হোয়াইট দলের টনি ক্রুস সুইডিশদের বিরুদ্ধে শেষ মুহুর্তে গোল করে শুধু যে নিজেদের বিশ্বকাপ স্বপ্নকেই বাঁচিয়ে রেখেছে তাই নয় বাঁচিয়ে দিয়েছে এই বিশ্বকাপের উত্তেজনাকেও। আমাদের প্রার্থনা থাকবে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, জার্মানি, স্পেনের মত দর্শকপ্রিয় দলগুলি রাশিয়া বিশ্বকাপে অনেক দূর যাবে এবং ফুটবলপাগল দর্শকদের তীব্র উত্তেজনাপূর্ণ একেকটা সুন্দর দৃষ্টিনন্দন খেলা উপহার দিবে।

লেখক: ব্যাংকার।

মন্তব্য