বরযাত্রীর আগেই হাজির পুলিশ, খাবার খেলেন গ্রামবাসী
বরযাত্রীর আগেই হাজির পুলিশ, খাবার খেলেন গ্রামবাসী

খবর পেয়ে লণ্ডভণ্ড বাল্যবিয়ে

বরযাত্রীর আগেই হাজির পুলিশ, খাবার খেলেন গ্রামবাসী

অনলাইন ডেস্ক

সব ঠিকঠাকই চলছিল। আয়োজনও শেষ। এখন অপেক্ষা শুধু বরযাত্রী আসার। এরমধ্যেই ৩৩৩ নম্বরে ফোন পেয়ে শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে ইউপি চেয়ারম্যান ও পুলিশ বিয়ে বাড়িতে হাজির হন।

মেয়ের বয়স ১৮ বছরের কম হওয়ায় বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। ঘটনাটি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের।

এসময় বরসহ মেহমানদের জন্য আয়োজন করা খাবার গ্রামবাসীকে খাওয়ানো হয়েছে। পরে বাল্যবিয়ের কথা জানিয়ে নিষেধ করায় বরসহ অতিথিরা আসেননি। এসময় অভিভাবকরা প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে না দেওয়ার অঙ্গীকার করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশ জানায়, উপজেলার লামচর ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের মাহবুবুর রহমানের মেয়ের (মাহমুদা রহমান নাবিলা) বয়স বর্তমানে ১৫ বছর ৯ মাস। তারা ঢাকার ভাটারা এলাকায় থাকতেন। মেয়ে সেখানে একটি স্কুলে পড়ালেখা করতো। সম্প্রতি করোনা মহামারির কারণে তারা গ্রামে চলে আসেন। ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে রামগঞ্জের মধ্য আঙ্গারপাড়া এলাকার কালু পাটওয়ারীর ছেলে রবিন পাটওয়ারীর সঙ্গে বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। এ বিষয়ে ৩৩৩ নম্বরে অভিযোগ করা হয়। এতে ঘটনার সময় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহফুজুর রহমান ও সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সোহাগ উদ্দিনকে নিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেয়।

লামচর ইউপি চেয়ারম্যান ফায়িজ উল্যা জিসান পাটওয়ারী বলেন, খবর পেয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিয়ে উপলক্ষে ১০০ মেহমানের খাবারের আয়োজন ছিল। পরে গ্রামবাসীকে আপ্যায়ন করানো হয়। অভিভাবকরা প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে না দেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন।

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এমদাদুল হক বলেন, বাল্যবিয়ের বিষয়টি জানতে পেরে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গিয়ে বিয়ের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয় এবং সামাজিকভাবে বসে মেয়ের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দিতে তার পরিবারকে অনুরোধ করা হয়েছে। পরিবারের লোকজন এতে সম্মতি প্রকাশ করে বাল্যবিয়ে দেওয়া থেকে বিরত থাকে।

আরও পড়ুন


সোনাইমুড়ীতে মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, অতঃপর...

news24bd.tv এসএম

;