মা-বাবার কবরের পাশে সমাহিত পীর হাবিব
মা-বাবার কবরের পাশে সমাহিত পীর হাবিব

মা-বাবার কবরের পাশে সমাহিত পীর হাবিব

মো.বুরহান উদ্দিন, সুনামগঞ্জ

খ্যাতিমান সাংবাদিক, কলামিস্ট ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার বিকেলে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মাইজবাড়ী পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের পাশে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়েছে। এখানে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন তাঁর মা ও বাবা।

সোমবার দুপুরে পীর হাবিবুর রহমানের মরদেহ সুনামগঞ্জ পৌর চত্বরে আনা হলে সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, পৌরসভা, জেলা ক্রীড়া সংস্থা, সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব, সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ বিভিন্ন দল, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হয়।

এরপর সুনামগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ্ মাঠে পঞ্চম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য দেন- সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য মহিবুর রহমান মানিক, পীর হাবিবুর রহমানের ছোট ভাই জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিছবাহ এমপি, সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট, পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিপিএম, পীর হাবিবুর রহমানের বড় ভাই অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান পীর, পীর হাবিবের ছেলে আহনাফ ফাহমিন অন্তর।

আহনাফ ফাহমিন অন্তর তার বাবার জন্য সবার কাছে দোয়া চান। একইসঙ্গে তার বাবার ব্যবহারে যদি কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন সেজন্য আন্তরিকভাবে ক্ষমা চান।

পরে মাইজবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে পীর হাবিবের ষষ্ঠ জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এখানে মাইজবাড়ী এলাকার সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে। এর আগে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন স্থানীয়রা।

সকাল থেকে শহরের হাসন নগরে সুনামগঞ্জবাসী শোক ও সমবেদনা জানাতে আসেন।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন এই কীর্তিমান সাংবাদিক।

ওই দিন রাতে উত্তরা পার্ক জামে মসজিদের প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত।

রোববার সকালে তাকে নেওয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে পীর হাবিবুর রহমানের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় জাতীয় প্রেস ক্লাবে। সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর তৃতীয় জানাজা ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির চত্বরে এবং প্রিয় কর্মস্থল ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ চত্বরে চতুর্থ জানাজা সম্পন্ন হয়। এ সময় তাঁর দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা কান্নায় ভেঙ্গে পরেন। সেখান থেকে অশ্রুসজল বিদায়ের পর রাতেই সিলেটের উদ্দেশ্যে মরদেহবাহী গাড়ী রওনা হয়। সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্থতের মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হন তিনি । এরপর রাতেই পীর হাবিবুর রহমানের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় সুনামগঞ্জ পৌর শহরের হাসন নগরে, তাঁর নিজ বাসভবনে।

news24bd.tv তৌহিদ

;