মানুষ আল্লাহমুখী না হওয়ার কারণ
মানুষ আল্লাহমুখী না হওয়ার কারণ

প্রতীকী ছবি

মানুষ আল্লাহমুখী না হওয়ার কারণ

অনলাইন ডেস্ক

আল্লাহ নিজের ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব বিষয়ে বলেন, ‘তোমাদের আগের ও পরের, জীবিত ও মৃত, সিক্ত ও শুষ্ক (সচ্ছল ও অসচ্ছল) সবাই যদি আমার বান্দাদের মধ্যে সর্বাধিক তাকওয়ার অধিকারী ব্যক্তির হৃদয়ের মতো হয়ে যায়, তাহলে একটি মশার পাখার সমপরিমাণও আমার রাজত্বের শ্রীবৃদ্ধি ঘটবে না। আর তোমাদের আগের ও পরের, জীবিত ও মৃত, ভিজা ও শুষ্ক (সচ্ছল ও অসচ্ছল) সবাই যদি আমার বান্দাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় পাপী বান্দার মতো হয়ে যায়, তাহলে একটি মশার পাখার সমপরিমাণও আমার রাজত্বের হানি ঘটবে না। আর যদি তোমাদের আগের ও পরের, জীবিত ও মৃত, ভিজা ও শুষ্ক সবাই একটি জায়গায় সমবেত হয় এবং প্রত্যেকেই তার পূর্ণ চাহিদামতো আমার কাছে প্রার্থনা করে, আর আমি তাদের চাওয়া অনুযায়ী সব কিছু যদি দিই, তাহলেও আমার রাজত্বের কিছুই কমবে না, তবে এতটুকু পরিমাণ যে তোমাদের কেউ সমুদ্রের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় তাতে একটি সুই ডুবিয়ে তা তুলে নিলে তাতে সমুদ্রের পানি যতটুকু কমবে। কারণ আমি হলাম দাতা, দয়ালু ও মহান।

আমি যা চাই তাই করি। ’ (সুনানে তিরমিজি, হাদিস : ২৪৯৫)

আল্লাহর শক্তি-সামর্থ্য সম্পর্কে জানা না থাকায় মানুষ আল্লাহমুখী হতে পারে না। নিজের ক্ষমতা সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন, ‘তাঁর ব্যাপার শুধু এই যে তিনি যখন কোনো কিছুর ইচ্ছা করেন, তিনি তাকে বলেন, হও। ফলে তা হয়ে যায়।

’ (সুরা ইয়াসিন, আয়াত : ৮২)

আল্লাহ তাঁর সৃষ্টির ব্যাপারে সর্বময় কর্তৃত্বের অধিকারী। ইচ্ছা বাস্তবায়নে তার কোনো মাধ্যমের প্রয়োজন হয় না এবং কোনো শক্তি তার সিদ্ধান্ত প্রতিহত করতে পারে না। সুতরাং বান্দার উচিত সর্বাবস্থায় মহান আল্লাহর সাহায্য কামনা করা। ইরশাদ হয়েছে, ‘আল্লাহ তোমাকে কষ্ট দিলে তিনি ছাড়া তা মোচনকারী আর কেউ নেই। আর তিনি তোমার কল্যাণ করলে তবে তিনিই তো সর্ব বিষয়ে শক্তিমান। তিনি আপন বান্দাদের ওপর পরাক্রমশালী, তিনি প্রজ্ঞাময়, জ্ঞাতা। ’ (সুরা আনআম, আয়াত : ১৭-১৮)

মানুষ আল্লাহমুখী না হওয়ার কারণ হলো সে জানে না, আল্লাহ অতিশয় দয়ালু ও দাতা। তিনি রাত-দিন অবিরাম দান করে যান। তিনি পাপী ও পুণ্যবান, বিশ্বাসী ও অবিশ্বাসী সবাইকে জীবিকা দান করেন। কিন্তু মানুষ তাঁর দুয়ার ছেড়ে অন্য দুয়ারে ঘুরে বেড়ায়। অথচ মানুষ অতিশয় কৃপণ। ইরশাদ হয়েছে, “বলুন! যদি তোমরা আমার প্রতিপালকের দয়ার ভাণ্ডারের অধিকারী হতে, তবু ‘ব্যয় হয়ে যাবে’-এই আশঙ্কায় তোমরা তা ধরে রাখতে। মানুষ তো অতিশয় কৃপণ। ’ (সুরা বনি ইসরাঈল, আয়াত : ১০০)

মানুষ আল্লাহমুখী হয় না। কারণ হলো মানুষ নিজের অক্ষমতা সম্পর্কে জানে না। সে জানে না আল্লাহর ক্ষমতার সামনে তাঁর সব ক্ষমতা মূল্যহীন। আল্লাহ বলেন, ‘তাদের প্রত্যেককেই আমি তার অপরাধের জন্য শাস্তি দিয়েছিলাম। তাদের কারো প্রতি প্রেরণ করেছি প্রস্তরসহ প্রচণ্ড ঝড়, তাদের কাউকে আঘাত করেছিল মহানাদ, কাউকে আমি প্রোথিত করেছিলাম ভূ-গর্ভে এবং কাউকে করেছিলাম নিমজ্জিত। আল্লাহ তাদের প্রতি কোনো অবিচার করেননি; তারা নিজেরাই নিজেদের প্রতি অবিচার করেছিল। ’ (সুরা আনকাবুত, আয়াত : ৪০)

আরও পড়ুন:


মোহরানা সম্মানসূচক হতে হবে


যারা আল্লাহকে ছেড়ে মানুষের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করে, তাদের দৃষ্টান্ত হলো সে ব্যক্তির মতো যে এমন বৈঠকে প্রবেশ করে, যেখানে স্বয়ং বাদশাহ উপস্থিত। কিন্তু সে বাদশাহকে চেনে না। ফলে বাদশাহর কাছে না চেয়ে তাঁর সেবক ও সৈনিকদের কাছে সাহায্য চায়। দুর্ভাগ্য ও অজ্ঞতার কারণে তার প্রার্থনা কোনো কাজে আসে না। আল্লাহ তাদের সম্পর্কে বলেন, ‘যারা আল্লাহর পরিবর্তে অপরকে অভিভাবকরূপে গ্রহণ করে তাদের দৃষ্টান্ত মাকড়সার মতো, যে নিজের জন্য ঘর বানায় এবং ঘরের মধ্যে মাকড়সার ঘরই তো দুর্বলতম, যদি তারা জানত। ’ (সুরা আনকাবুত, আয়াত : ৪১)  

news24bd.tv রিমু