মালয়েশিয়ায় অভিবাসনে বাংলাদেশের সুযোগ ও প্রতিবন্ধকতা
মালয়েশিয়ায় অভিবাসনে বাংলাদেশের সুযোগ ও প্রতিবন্ধকতা

মালয়েশিয়ায় অভিবাসনে বাংলাদেশের সুযোগ ও প্রতিবন্ধকতা

অনলাইন ডেস্ক

মালয়েশিয়াকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার দেশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ১৯৭৭ সালের পর থেকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কর্মসংস্থান ভিসায় মালয়েশিয়ায় যাচ্ছেন বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকরা। বেতন প্রদান, ডকুমেন্টেশন, ভিসা নবায়ন, রেমিট্যান্স পাঠানোর কাজের পারমিট, চাহিদার বিপরীতে অধিক শ্রমিক প্রেরণ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে দুই সরকারের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক বিরোধ ছিল। দুই সরকার বহুবার সমস্যা প্রশমিত করার চেষ্টা করেছে।

২০০৮ সালের শেষের দিকে ও ২০০৯ সালে এই সমস্যাগুলো প্রকট আকার ধারণ করে। যার ফলস্বরূপ বাংলাদেশিদের জন্য মালেশিয়া সরকার কর্মসংস্থানের সুযোগ বন্ধ করে দেয়।

সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য দুই সরকার ২০১১ সালে অভিবাসী শ্রমিকদের মালয়েশিয়ায় কর্মসংস্থানের জন্য জিটুজি ভিত্তিতে একটি নতুন চুক্তি স্বাক্ষর করে। নতুন চুক্তির আওতায় সরকার ২০১৬ সাল পর্যন্ত শুধু ৮ হাজার ৫০০ বাংলাদেশিকে কর্মসংস্থান ভিসায় মালেশিয়া পাঠাতে পেরেছে।

যদিও সরকার অভিবাসন খরচ কমিয়ে আনতে পেরেছে বলে দাবি করেছে। তবে এই জিটুজি পদ্ধতিতে শ্রমিক পাঠানোর বিপরীতে ব্যাপক বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে; যাতে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উভয় সরকারের ইমেজ সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারের মূল লক্ষ্য; ন্যূনতম খরচসহ অধিক অভিবাসীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা। কিন্তু সম্পূর্ণরূপে সরকার ব্যর্থ হয়েছিল।

তদুপরি, এই দীর্ঘ পাঁচ বছরে মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে যাওয়ার পরিমাণ বহুগুণ বেড়েছে। সমুদ্রপথে, স্টুডেন্ট ভিসা, ভিজিটর ভিসা, ট্রেনিং ভিসায় গমন করে অবৈধ অভিবাসনের পথ বেছে নিয়েছে দালাল চক্র। আর এই সব পথে গমন করতে গিয়ে, গ্রামের প্রান্তিক পর্যায়ের শত শত অভিবাসী থাইল্যান্ডের গহীন অন্ধকার জঙ্গলে মৃত্যুবরণ করেছে। এমনকি থাইল্যান্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণকবরেরও সন্ধান পাওয়া গেছে। যে কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে জিটুজি পদ্ধতি। সরকার স্বল্প খরচে অভিবাসনের পক্ষে কথা বলেছিল। কিন্তু জি-টু-জি ব্যবস্থাকে বাস্তবায়িত করার জন্য সরকারের হাতে কোনো অবকাঠামো ছিলো না।

জিটুজি সিস্টেমের অসুবিধাগুলো কাটিয়ে ওঠার জন্য, দুই সরকার, সুরক্ষিত আলোচনার পর জিটুজি প্লাস সিস্টেম/সূত্র প্রবর্তন করে একটি নতুন সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। মালয়েশিয়ার সরকার সিস্টেমটিকে ডিজিটালাইজড করেছে সামগ্রিক পদ্ধতির মাধ্যমে এবং বেস্টিনেটকে (মালয়েশিয়ার প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান BESTINET) সেই প্রক্রিয়াকরণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। কেন্দ্রীয় ডাটাবেজের সাথে সমন্বয় করে এবং ডিজিটালাইজড নিয়োগ প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের মূল দায়িত্ব দেওয়া হয়। এছাড়াও তারা বাংলাদেশ অংশ থেকে ১০টি BRA নির্বাচন করেছে। চুক্তি স্বাক্ষরের পরপরই, প্রায় দুই বছরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ২ লাখ ৭৮ হাজার বাংলাদেশি যথাযথ কর্মসংস্থান ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমান। মালয়েশিয়ার সরকার ঢাকায় মালয়েশিয়ান এমপ্লয়মেন্ট ফ্যাসিলিটেশন সেন্টার অফিসও স্থাপন করেছে ঢাকার সংশ্লিষ্ট সংস্থা, কর্মচারী এবং মালয়েশিয়ান হাইকমিশন এবং মালয়েশিয়ার সম্মানিত সরকারি বিভাগ এবং নিয়োগকারীদের সাথে সমন্বয় করার জন্য। পুরো প্রক্রিয়াটি সুচারুভাবে সম্পাদিত হয়েছিল এবং জি-টু-জি প্লাস সিস্টেমে খুব কমই কোনো অভিযোগ ছিল; মালয়েশিয়ার পক্ষ থেকেও না এবং বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তা সত্য। অভিবাসন প্রক্রিয়ার উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য ছিল যে;

১. জিটুজি প্লাস ধারণা দুই সরকার দ্বারা গৃহীত হয়েছিল
২. জিটুজি প্লাস সিস্টেম দুটি সরকার দ্বারা গৃহীত হয়েছিল কারণ জিটুজি সিস্টেম সফল হয়নি
৩.মালয়েশিয়া সরকার ১০টি BRA নির্বাচন করেছে
৪.জি-টু-জি প্লাস সিস্টেম চালু হওয়ার পর মালয়েশিয়ার দিকে অবৈধ মানব পাচার বন্ধ হয়ে যায়।
৫.উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের দেশগুলোর মতো অন্যান্য দেশে কাজের ভিসায় অভিবাসন খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।
৬.মালয়েশিয়ায় প্রথমবারের মতো বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে উৎস দেশ হিসেবে ঘোষণা করেছে।
৭. যেহেতু সম্পূর্ণ সিস্টেমটি ডিজিটালাইজ করা হয়েছিল; পুরো প্রক্রিয়াটি স্বচ্ছ ছিল এবং কোনো প্রতারণামূলক চর্চা পরিলক্ষিত হয়নি।

বাংলাদেশকে যেমন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে, তেমনি মালয়েশিয়ার সরকার ও নিয়োগকর্তাদের প্রতি আমাদের সচেতন থাকতে হবে।

*প্রকৃতপক্ষে এই নতুন এবং ব্যবহারিক কর্মসূচির শুরু থেকেই দেশের বেশ কয়েকটি সংস্থা সর্বদা এই সব ভালো কাজের বিরুদ্ধে ছিল এবং প্রক্রিয়াটিকে ঝুঁকিপূর্ণ করার জন্য তাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালিয়েছিল। তারা গণমাধ্যম ও সরকারসহ সব পর্যায়ে প্রচারণা চালায়, এক পর্যায়ে মালয়েশিয়া সরকার ২০১৮ সালে বাজারটি বন্ধ করে দেয় এবং তদন্ত শুরু করে।

*পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের পর মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারান সংসদে জানান যে BRA এবং বেস্টিনেট এর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। তিনি নিজেও তদন্ত পরিচালনার পক্ষে বলে বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানান। প্রতিবেদনটি জানার পর তিনি নিশ্চিত হন যে অভিযোগটি সম্পূর্ণ ভুল। এইভাবে একই সরকার যারা জি-টু-জি প্লাস প্রোগ্রামের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল; অবশেষে  তারাই বেস্টিনেট এবং সিস্টেমটিকে সব ধরনের অভিযোগ থেকে অব্যহতি দিয়েছে।

*জি-টু-জি প্লাস প্রোগ্রাম বন্ধ করার পর দুই সরকার নতুন কর্মসূচি খুঁজে বের করার জন্য আন্তরিকভাবে চেষ্টা করেছিল। উভয় সরকারের সক্রিয় উদ্যোগে ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১ এ একটি নতুন এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়েছিল। এখন পর্যন্ত মালয়েশিয়া সরকার নেপাল, ইন্দোনেশিয়ার মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে সীমিত পরিসরে কর্মসংস্থানের সুযোগ উন্মুক্ত করেছে স্বল্পসংখ্যক এজেন্সি এবং সহযোগী সংস্থার দ্বারা। তারা ইতিমধ্যেই ২৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া কৃষি খাতে এবং ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ থেকে অন্যান্য সকল সেক্টরে চাহিদাপত্র অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রীয় সার্ভার খুলেছে। নতুন/বর্তমান এমওইউ এর আওতায়, মালয়েশিয়া সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে;

· বায়োমেট্রিক চিকিৎসা ব্যবস্থা, পাসপোর্ট, ওয়ার্ক পারমিট, ভিসা, সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স ইত্যাদি কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বয় করা হবে।
MEFC এর ঢাকায় শাখা অফিস থাকবে FWCMS-এর কার্যাবলী সম্পাদন করবে এবং সমগ্র সিস্টেম স্থানীয় অফিস BESTINET দ্বারা পরিচালিত হবে। সীমিত সংখ্যক ২৫টি সংস্থা থাকবে, এবার তারা আরও ২৫০টি সহযোগী সংস্থার সাথে সমন্বয় করে কাজ করবে। মালয়েশিয়া সরকার কেন্দ্রীয় সার্ভারে অনুমোদিত এবং সমন্বিত এবং সমস্ত অংশীদার এবং সেবা প্রদানকারীদের সাথে সংযুক্ত করে মেডিকেল পরীক্ষা পরিচালনার জন্য ৩৪টি মেডিকেল সেন্টারের একটি সংখ্যা নির্বাচন করেছে।

১৯ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে স্বাক্ষরিত নতুন এমওইউ অনুসারে, মালয়েশিয়া বাংলাদেশি কর্মীদের গ্রহণ করার জন্য সমস্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং তাদের উদ্দেশ্য আন্তরিক এবং সৎ। মালয়েশিয়া অন্যান্য দেশের সাথেও অনুরূপ চুক্তি/এমওইউ করেছে। যদি বাংলাদেশ এমওইউ এর উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে বিলম্ব করে তাহলে মালয়েশিয়া অন্যান্য উৎস দেশগুলোর সন্ধান করতে পারে। এখন আমাদের সরকার পক্ষকে আমাদের জাতীয় স্বার্থে ইতিবাচক সাড়া দিতে হবে এবং বাজারটি টেকসই করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

News24bd.tv/TI/AA

এই রকম আরও টপিক