চমেক মর্গে মৃত নারী-শিশুদের ধর্ষণ, অস্থায়ী কর্মচারী গ্রেপ্তার
চমেক মর্গে মৃত নারী-শিশুদের ধর্ষণ, অস্থায়ী কর্মচারী গ্রেপ্তার

সংগৃহীত ছবি

চমেক মর্গে মৃত নারী-শিশুদের ধর্ষণ, অস্থায়ী কর্মচারী গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা মৃত নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চট্টগ্রাম মেডিকেলে লাশঘরের অস্থায়ী এক কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  

গতকাল সোমবার তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।  

অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম মো. সেলিম (৪৮)। সে কুমিল্লা জেলার লাকসাম থানার সাতেশ্বর গ্রামের নোয়াব আলীর (মৃত) ছেলে।

 

এ ব্যাপারে সিআইডি কর্মকর্তারা বলছেন, চট্টগ্রামে পৃথক ঘটনায় মারা যাওয়া ৩২ বছর বয়সী এক নারী ও ১২ বছর বয়সী শিশুর অপমৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে এ তথ্য উদ্ঘাটন হয়।  

ময়নাতদন্ত করার আগে পর্যন্ত মরদেহ দুটি হাসপাতালের ১ নং ইমার্জেন্সি মর্গে ছিল। সেখানে মরদেহের পাহারায় ছিলেন সেলিম। সেলিমই এই অপকর্ম করেছেন বলে সন্দেহ করেন সিআইডির তদন্ত কর্মকর্তা।  

পরে সেলিমকে একদিন সিআইডি অফিসে চায়ের দাওয়াত দেওয়া হয়। চা পানের সময় সেলিমের মুখ থেকে বের হওয়া লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সেটি পরীক্ষার জন্য ঢাকায় সিআইডির ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়। সেখান থেকে পরীক্ষার ফলাফলে নিশ্চিত হওয়া যায় ওই মরদেহ দুটিতে যে ব্যক্তির শুক্রাণুর উপস্থিতি পাওয়া গেছে তিনি এই সেলিম।

এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

news24bd.tv রিমু