ইউক্রেন থেকে উদ্ধার করায় ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ পাক তরুণীর
ইউক্রেন থেকে উদ্ধার করায় ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ পাক তরুণীর

ইউক্রেন থেকে উদ্ধার করায় ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ পাক তরুণীর

অনলাইন ডেস্ক

রুশ হামলায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে ইউক্রেনের একাধিক শহর। এর মধ্যেই কিয়েভের পথে এগোচ্ছে রুশ সেনারা। অন্যান্য শহরেও চলছে হামলা।

ইউক্রেনের দাবি, রুশ সেনার গোলাবর্ষণে এ পর্যন্ত ৬১টি হাসপাতাল ধ্বংস হয়েছে।

নষ্ট হয়েছে চিকিৎসারত সরঞ্জাম। আতঙ্কে কাঁপছে অন্যদেশ থেকে ইউক্রেনে আশ্রয় নেওয়া মানুষ।

এদিকে রাজধানী কিয়েভসহ ৫ ইউক্রেনীয় শহরের বেসামরিক নাগরিকদের নিরাপদে আশ্রয় নেওয়ার সুযোগ করে দিতে আরেক দফা যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া।

এর মাঝেই ইউক্রেন থেকে নিরাপদে নিজ দেশের নাগরিকদের উদ্ধারের লক্ষে ‘অপারেশন গঙ্গা’ নামে অভিযান চালায় ভারত সরকার।

খবর সংবাদ প্রতিদিনের।

শুধু ভারতীয় নয়, দুঃসময়ে পাকিস্তানীদেরও ত্রাতা হয়ে উঠেছেন মোদি প্রশাসন।

ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, শত্রুতা ভুলে ইউক্রেন শহরে আটকে পড়া এক পাক তরুণীকে নতুন জীবন দান করল ভারত।

এজন্য ইউক্রেনের ভারতীয় দূতাবাস এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানালেন ওই তরুণী।

রাশিয়ার হামলার ভয়ে প্রাণ হাতে নিয়ে ভিটে-মাটি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজ কিয়েভ ছাড়ছে সাধারণ মানুষ। কিয়েভে আটকা পড়েছিলেন পাকিস্তানি তরুণী আশমা শাফিক।

পাক তরুণী জানিয়েছেন, ভারতীয় দূতাবাসের প্রচেষ্টায় পশ্চিম ইউরোপে পৌঁছাতে পেরেছেন তিনি। এবার সহজেই সে দেশের সীমান্ত পেরিয়ে বাড়ি ফিরতে পারবেন।

ওই তরুণী বলেন, ‌‘ওই জায়গা থেকে উদ্ধার করায় আমি ভারতীয় দূতাবাস এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে কৃতজ্ঞ। আমাদের পাশে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। ’

ভারত সরকার আগেই জানিয়েছিল, যুদ্ধকালীন সময়ে প্রতিবেশী দেশগুলোর পাশে থাকবে ভারত। ইতিমধ্যেই পাকিস্তান ও নেপালের বেশ কিছু শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করেছে ভারত। কিন্তু পাকিস্তান দূতাবাসের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন খোদ সেই দেশের নাগরিকরা।

পাক শিক্ষার্থী মিশা আর্শাদ বলেন, পাক ছাত্র-ছাত্রীদের ইউক্রেন থেকে ফেরানোর জন্য কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না সে দেশের দূতাবাস।

‘আমরা পাকিস্তানের ভবিষ্যৎ। অথচ আমাদের বিষয়ে দেশের কোনো চিন্তা নেই’ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন ওই শিক্ষার্থী।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ দেখতে দেখতে প্রায় ২ সপ্তাহ পেরিয়ে গেল। এর মধ্যে বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের নিরাপদে সরিয়ে নিতে বেশ কয়েকবার যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছে মস্কো।

সে মোতাবেক বুধবার উইক্রেনের চেরনিহিভ, সুমি, খারকভ, মারিওপোল এবং জাপরজিয়া- শহরে যুদ্ধবিরতি ঘোষিত হয়েছে রাশিয়া।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে পাক তরুণীর বক্তব্য

news24bd.tv তৌহিদ