‘চরিত্রের জন্য ভবিষ্যতে আবারও নগ্ন দৃশ্যে অভিনয় করতে পারি’
‘চরিত্রের জন্য ভবিষ্যতে আবারও নগ্ন দৃশ্যে অভিনয় করতে পারি’

ছবি : আনন্দবাজার 

‘চরিত্রের জন্য ভবিষ্যতে আবারও নগ্ন দৃশ্যে অভিনয় করতে পারি’

অনলাইন ডেস্ক

অভিনয় জীবনের শুরুতে শ্রীলঙ্কাবাসী এক পরিচালকের ছবি ‘ছত্রাক’-এ অভিনয় করার সুযোগ পান পাওলি দাম। ছবিটি কান চলচ্চিত্র উৎসব থেকে টরোন্টো চলচ্চিত্র উৎসবসহ একাধিক দেশে স্বীকৃতি পায়। তবে বাংলায় সেই ছবির যাত্রা খুব একটা সহজ ছিল না। নগ্নতা এবং শারীরিক সম্পর্কের চিত্রায়ন নিয়ে বিতর্কের ঝড় ওঠে।

১৯৯২ সালের ছবি, ‘ড্যামেজ’। ব্রিটিশ পরিচালক লুই মাল একই শিরোনামের একটি উপন্যাস থেকে গল্পটি নিয়েছিলেন। নগ্নতা, অন্তরঙ্গতা, কামনা, শরীরী সম্পর্ক— এই সব কিছুই যে ভীষণ বাস্তব, তা তিনি পর্দায় ফুটিয়ে তুলেছিলেন। এই ধরনের বিভিন্ন ছবি দেখার অভ্যাস ছোট থেকেই ছিলো পাওলি দামের। খুব অল্প বয়সেই বিশ্ব চলচ্চিত্রের সঙ্গে আলাপ তাঁর। চলচ্চিত্রের অর্থ খুঁজে পেয়েছিলেন তিনি। তাই ‘ছত্রাক’-এ অভিনয় করার সময়ে সেই চরিত্রটি তিনি আর পাঁচটি চরিত্রের মতোই দেখেছিলেন। সে ভাবেই চরিত্রের কাছে নিজেকে মেলে ধরেছিলেন।

আনন্দবাজার অনলাইনে শনিবারের লাইভ আড্ডা ‘অ-জানাকথা’-য় সেই সময়টিকে মনে করলেন পাওলি।

পাওলি জানালেন, ছোট থেকে পাশ্চাত্যের ছবি দেখতে দেখতে পর্দায় নগ্নতা দেখা বা দে‌খানো নিয়ে কোনও অরুচি ছিল না তাঁর। তাই ‘ছত্রাক’-এর একটি অন্তরঙ্গ দৃশ্য মুক্তি পাওয়ার পরে তাঁর নগ্ন হওয়া নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া শুনে অবাক হয়েছিলেন পাওলি। তিনি ভাবতেই পারেননি যে দর্শক ছবিটি নিয়ে নয়, কেবল তাঁর নগ্ন হওয়া নিয়ে কথা বলবেন! 

পরবর্তীতে নগ্ন দৃশ্যে আবারও অভিনয় করবেন কিনা, এমন প্রশ্নে পাওলির উত্তর, ‘‘যদি বুঝি, সেই চরিত্রটির জন্য আমার মন, আত্মা এবং শরীর একই জায়গায় এসে মিলেছে, তবে অবশ্যই করব। যে কোনও চরিত্রের জন্য এটা গুরুত্বপূর্ণ।

সূত্র : আনন্দবাজার 

news24bd.tv/এমি-জান্নাত