ভেনেজুয়েলাকে কাছে টানছে যুক্তরাষ্ট্র

ভেনেজুয়েলাকে কাছে টানছে যুক্তরাষ্ট্র

আসমা তুলি

ইউক্রেনে রুশ হামলার জেরে মস্কো-ওয়াশিংটনের দূরত্ব আরো বেড়েছে। বাইডেন প্রশাসন রাশিয়ার ওপর আরোপ করছে কঠিন সব নিষেধাজ্ঞা। এই সুযোগে ভেনেজুয়েলাকে কাছে টানছে যুক্তরাষ্ট্র। ভেনেজুয়েলাও  চাইছে সম্পর্ক উন্নয়নের সুযোগ কাজে লাগাতে।

 

ফলে এটিকে দুই দেশের জন্যই সম্পর্কের নতুন মোড় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

বেশ কয়েক বছর ধরেই সম্পর্কে ভাটা চলছে যুক্তরাষ্ট্র ও ভেনেজুয়েলা।

ওয়াশিংটনের অভিযোগ, ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলা মাদুরো গণতন্ত্র ক্ষুন্ন  ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের করছে। এছাও খোদ মাদুরোর বিরুদ্ধে মাদক সন্ত্রাস, মাদক পাচার ও দুর্নীতির অভিযোগের তীর ওয়াশিংটনের।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ভেনেজুয়েলার অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপসহ নানা অভিযোগ রয়েছে কারাকাসের।

তবে দুদেশের সম্পর্কের এমন টানাপোড়েনে যাদুর মতো কাজ করছে ইউক্রেন রাশিয়ার চলমান যুদ্ধ।

রাশিয়ার তেল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার কারণে বিশ্ব এখন চরম জ্বালানি সংকটে। তেলের দাম বেড়ে যাচ্ছে তরতর করে। এজন্য তেল গ্যাসের জন্য রাশিয়ার বিকল্প ভাবছে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমারা। এই তালিকায় সৌদি আরবের পর ভেনেজুয়েলাকে টার্গেট করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। কারণ ভেনেজুয়েলা তেলসম্পদে টইটুম্বুর।

এরই জেরে গত সপ্তাহে দুই দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যে প্রথমবারের মতো উচ্চপর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ভেনেজুয়েলা বুঝেছে সংকটপূর্ণ এই সময়ে সম্পর্কের উন্নয়নের সুযোগটাও লুফে নেওয়া প্রয়োজন। ওয়াশিংটনের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি হলে তেল খাতের দিকে দিয়ে লাভবান হবে কারাকাসও। মাদুরো চান ভেনেজুয়েলা থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উঠে যাক।

যুক্তরাষ্ট্র ও ভেনেজুয়েলার দুটি পতাকাই একসঙ্গে দেখতে সুন্দর। দুটি পতাকা একসঙ্গে রাখা আছে। দুই দেশের একসঙ্গেই থাকা উচিত।

প্রায় একই সময়ে কারাকাসের বৈঠকেও মাদুরোর কণ্ঠে বন্ধুত্বের সুর শোনা গেছে। মেক্সিকোতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহও দেখিয়েছেন তিনি। বন্ধুত্ব মজবুতের তাগিদ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রও।

news24bd.tv তৌহিদ

;