‘রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের জন্য ন্যাটোই দায়ী’
‘রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের জন্য ন্যাটোই দায়ী’

‘রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের জন্য ন্যাটোই দায়ী’

নিবিড় আমীন

রাশিয়া-ইউক্রেনের চলমান সংকটের জন্য এবার ন্যাটোকেই দায়ী করলেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের এক সদস্য।

মস্কোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে, মার্কিন অর্থায়নে ইউক্রেনে বিশের অধিক বায়ো ল্যাবের অস্তিত্ব রয়েছে বলে দাবি করেছেন মার্কিন হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের সাবেক এক সদস্য।

ইউক্রেনের চলমান সংকটের জন্য এবার সরাসরি মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোকে দায়ী করলেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্য ক্লেয়ার ডেলি।

রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ন্যাটোকে একটি বিপজ্জনক সংগঠন বলে উল্লেখ করেছেন আইরিশ এই রাজনীতিবিদ। এমনকি তিনি জানিয়েছেন, ইউরোপকে নিরাপদ করছে না তারা।

ন্যাটো আসলে নিজেদের তৈরি করা সমস্যাগুলোর সমাধানের জন্যই বিদ্যমান। অবিশ্বাস্যভাবে বিপজ্জনক একটি সংস্থা।  

ইউরোপের জনগণের জন্যও কোনো সুবিধা বয়ে আনে না তারা। এতো নিষেধাজ্ঞা এবং ইউক্রেনে আরও বেশি অস্ত্র এবং সামরিক হার্ডওয়ার পাঠানোর ব্যাপারটি  প্রকৃতপক্ষে সংকটকে আরও দীর্ঘায়িত করছে।

রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার পাল্টা জবাব দেওয়া হলে তার ফলাফল ইউরোপিয়দের জন্য ভয়াবহ হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি।

যদি তারা পাল্টা জবাব দেওয়া শুরু করে তবে আক্ষরিক অর্থেই কয়েক লাখ মানুষ চাকরি হারিয়ে ফেলবে। প্রাণহানির সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাবে। আরও অনেক কিছুই হবে। এটা সত্যিই পাগলামি।

এদিকে, এক টুইটবার্তায় মার্কিন হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের সাবেক সদস্য তুলসি গ্যাবার্ড দাবি করেছেন, মার্কিন অর্থায়নে ইউক্রেনে যে ২৫টিরও বেশি বায়োল্যাব রয়েছে তা কোনোভাবেই অস্বীকার করা যাবে না। দুর্যোগ প্রতিরোধে ল্যাবগুলো সুরক্ষিত করার জন্য অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

news24bd.tv তৌহিদ