রুশ সেনা অভিযানে সহিংসতার শিকার হচ্ছে শিশুরা
রুশ সেনা অভিযানে সহিংসতার শিকার হচ্ছে শিশুরা

সংগৃহীত ছবি

রুশ সেনা অভিযানে সহিংসতার শিকার হচ্ছে শিশুরা

অনলাইন ডেস্ক

ইউক্রেনে রুশ সেনা অভিযানে সহিংসতা আর হামলার শিকার হচ্ছে শিশুরা। তারই প্রতিবাদে লিভিভের ঐতিহাসিক রিনক স্কয়ারে শিশুদের বহনকারী ১০৯টি বিশেষ ঝুড়ি রেখে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। এই দীর্ঘ ভেতর দিয়ে গিয়েছে ১৫ লক্ষ শিশু।

ইউক্রেনের প্রধান কার্যালয় জানিয়েছে, ৪৩৯ স্কুলে গোলা বর্ষণ করেছে রুশ সেনারা।

যার মধ্যে ৬৩টি স্কুল একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে।  ১৩০ জনের বেশি শিশু আহত হয়েছে।  

যুদ্ধ এবং সংঘাতের কারণে বাস্তুচ্যুত হওয়া শিশুদের মতো সীমান্তবর্তী দেশগুলোতে আশ্রয় নেওয়া ইউক্রেনীয় শিশুরা পারিবারিক বিচ্ছেদ, সহিংসতা, যৌন নির্যাতন এবং পাচারের উল্লেখযোগ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব শিশুকে জরুরিভাবে নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা এবং শিশু সুরক্ষা পরিষেবাগুলো প্রয়োজন বলে জানিয়েছে ইউনিসেফ।

 

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফের মুখপাত্র জেমস এলডার উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন,  ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর গত ২০ দিনে প্রতিদিন গড়ে ৭০ হাজারের বেশি শিশু শরণার্থী হয়েছে। প্রতি মিনিটে ৫৫টি শিশু বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছে। প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ১টি শিশু শরণার্থী হচ্ছে। অনেক শিশুকে দেখেছেন যারা কান্না করছে না। যা মোটেও স্বাভাবিক বিষয় নয়। কারণ, কান্না না করা এসব শিশু ট্রমার মধ্যে চলে গেছে।

যত দিন যায় এবং লড়াই শেষ হওয়ার কোন লক্ষণ দেখা যায় না, কেউ কেউ কিয়েভের মেট্রো ষ্টেশনে পরিবার শিশুদের নিয়ে কাটাচ্ছে দিন। কেউ বা দীর্ঘ যাত্রায় পায়ে হেঁটে, শুকনো খাবার খেয়ে শরনার্থী হচ্ছে।   

যে গতিতে শরণার্থীর সংখ্যা বাড়ছে, এটা নজিরবিহীন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এত অল্প সময়ের ব্যবধানে এত শরণার্থীর ঢল এর আগে দেখেনি ইউরোপ।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

এই রকম আরও টপিক