আ.লীগ ছাড়া কেউ শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি : শেখ হাসিনা
আ.লীগ ছাড়া কেউ শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি : শেখ হাসিনা

সংগৃহীত ছবি

আ.লীগ ছাড়া কেউ শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি : শেখ হাসিনা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের ইতিহাসে একমাত্র আওয়ামী লীগ ২০০১ সালে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছে। এছাড়া কোনো সরকার তা করেনি, বরং প্রাণহানি ঘটিয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

শনিবার (২৬ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চার দিনব্যাপী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর সমাপনী অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বে সংযুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।  

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যদি বাংলাদেশের ইতিহাস দেখি, সেই ৭১ সাল থেকে ৭৫ সাল এবং ৭৫ এর ১৫ আগস্ট এর চরম আঘাত।

তারপরে অন্ধকারের যাত্রা শুরু। বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলে তার স্বাধীনতার চেতনা, জয় বাংলা স্লোগান, ৭ই মার্চের ভাষণ, বঙ্গবন্ধুর নাম নিষিদ্ধ, ছবি নিষিদ্ধ, ২১ বছর এভাবে বাংলাদেশের বিজয়ের ইতিহাস পদদলিত হয় এবং অন্য ইতিহাস জানার চেষ্টা করা হয়। ইতিহাস কখনো কেউ মুছে ফেলতে পারে না। আর সত্যের জয় হয়। এটা কেউ কখনো বাধা দিয়ে থামিয়ে দিতে পারেনা। আজকে সেটাই হয়েছে।  

তিনি বলেন, ২১ বছর পর প্রথম আওয়ামী লীগ সরকারে আসে। মাত্র পাঁচ বছর ক্ষমতায় ছিলাম। বাংলাদেশের ইতিহাসে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর আমি ২০০১ সালে করেছিলাম। এছাড়া যদি আমরা বাংলাদেশের ইতিহাস পর্যালোচনা করি, কোন দিনও শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর হয়নি। ৭৫ সাল থেকে একের পর এক রক্তপাত হয়েছে, খুন হয়েছে, প্রতিবারই কোনো না কোনো সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, একমাত্র আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় ছিল পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার পর আমরা সুষ্ঠভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছিলাম।  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আগামী দিনের পথ দেখেছিলেন তার ঐতিহাসিক ভাষণে সাহায্যে। রেসকোর্স ময়দানে ২৫শে মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আক্রমণ শুরু করে।  রাজারবাগ পুলিশ ফাঁড়ি, পিলখানাসহ একই সঙ্গে সেই ধানমন্ডির বাড়ি। জাতির পিতা পূর্বপরিকল্পিতভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করেছিলেন। এখনকার বিজিবি পিলখানা হেডকোয়ার্টার পিপিআর এই ফাঁড়ি থেকে তিনি এ ঘোষণা প্রচার করেছিলেন। সেই স্বাধীনতার ঘোষণা সারা বাংলাদেশের ছড়িয়ে দিয়েছিল এবং বিভিন্ন পুলিশ স্টেশন এর মাধ্যমে সংগ্রাম পরিষদের হাতে ওই ভোররাতের দিকে বার্তা পৌঁছে দেয়। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ব্যাপক প্রচার শুরু করে সেদিন থেকে। ২৬শে মার্চ থেকে এই ঘোষণার সাথে সাথেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে তারা আটক করে নিয়ে যায় পাকিস্তানে এবং বন্দি করে রাখে। এখানে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা দেয় এবং তাকে ফাঁসি দেওয়ার জন্য অর্ডার দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এর মধ্যেই পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১৬ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়।  

শেখ হাসিনা বলেন, আন্তর্জাতিক চাপে পাকিস্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। তিনি পাকিস্তান থেকে লন্ডন চলে যান। সেখান থেকে বাংলাদেশের ফিরে আসেন ১০ই জানুয়ারি ১৯৭২ সালে।  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে তিনি ভাষণ দিয়েছিলেন। একটি স্বাধীন রাষ্ট্র কিভাবে চলবে, সেই দিক নির্দেশনা, সবকিছু তিনি এখানে ঘোষণা করেন। বাঙালি জাতির ইতিহাসের সাথে এই জায়গাটা আমাদের জন্য অত্যান্ত ঐতিহাসিক একটি স্থান। জাতির পিতা শুধু স্বাধীনতাই দেননি, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলেছিলেন। এই ঘুণে ধরা সমাজ ব্যবস্থা ভেঙে নতুন সমাজ ব্যবস্থা করার ব্যবস্থা নিয়েছিলেন। ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করে সেই উপনিবেশিক শাসনের অচলায়তন ভেঙে নতুন পথে যাত্রা শুরু করেছিলেন। বাংলাদেশের তৃণমূলের মানুষ যেন ক্ষমতাসীন হয় তার ব্যবস্থা করে নিয়েছিলেন। আর তখনই আসলো চরম আঘাত। মাত্র সাড়ে তিন বছর তিনি সময় পেয়েছিলেন।  

আওয়ামী লীগের শুরু করা উন্নয়ন কাজ ২০০১ সালে থমকে গিয়েছিল উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, যে উন্নয়নের যাত্রা শুরু করে গিয়েছিলাম। তাও দুর্ভাগ্যবশত ২০০১ এ যারা ক্ষমতায় এসেছিল তারা থামিয়ে দিয়েছিল। আবারও আমরা একটা অন্ধকার যুগে প্রবেশ করি। সে সময়ে বাংলাদেশে ছিল ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত দুর্নীতিতে পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন। সন্ত্রাস, বাংলা ভাই! বাংলাদেশের মানুষের উপর একটা জুলুম-অত্যাচার এসেছিল। সকল উন্নয়নের, কল্যাণমূলক কাজগুলো বন্ধ হয়েছিল। যার ফলে আরেক ধরনের বিভাজন তৈরি হয়েছিল। বাংলাদেশের জনগণ থেমে থাকেনি। অন্যায়ের বিরুদ্ধে সবসময় প্রতিবাদ করেছে। যার ফলে আমরা ২০০৮ সালে আবার ক্ষমতায় আসি। নির্বাচনে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আসি।  

দেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি কৃতজ্ঞতা জানাই এদেশের জনগণের প্রতি তারা বারবার ভোট দিয়ে আমাদেরকে তাদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছে বলেই আজকে আমরা ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পালন করার সুযোগ পেয়েছি, ২০২১ সাল স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন সুযোগ পেয়েছি। যদিও করোনা ভাইরাসের কারণে আমাদের অনুষ্ঠান সীমিত আকারে করতে হয়েছে। আমরা ২০২২ সাল পর্যন্ত নিয়ে এসেছি।  

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব যখন ক্ষমতায় ছিলেন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে তিনি উন্নয়নের পথে অগ্রযাত্রা শুরু করেন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তখন এই দেশের মানুষ কিছুটা উন্নয়নের ছোঁয়া পায়। আবার ২০০৯ সালে যখন আমরা সরকার গঠন করি পুনরায়, তখন থেকে এই ১৩ বছর, ১৩ বছরে আমরা যে লক্ষ্য স্থির করেছি, ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী, ২০২১ এর মধ্যে বাংলাদেশ যাতে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়, আমরা আজকে স্বল্পোন্নত দেশ। আওয়ামী লীগ সরকার আসার পর আজকে আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি, আমাদের দেশে মানুষের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে, বাংলাদেশের মানুষের গড় আয় বৃদ্ধি পেয়েছে, সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে, সবচেয়ে বড় কথা আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। আজকে শতভাগ বিদ্যুৎ দেওয়ার সক্ষমতা অর্জন করেছি। সারা বাংলাদেশের প্রতিটি ঘর আমরা আলোকিত করেছি। বাংলাদেশ আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে।  

শেখ হাসিনা বর্তমান প্রজন্মের উদ্দেশ্যে বলেন, বাংলাদেশকে নিয়ে আর কেউ খেলতে পারবে না এদেশের মানুষকে ভাগ্য নিয়ে আর কখনো কেউ কেউ ছিনিমিনি খেলতে পারবে না। বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। ইনশাল্লাহ এগিয়ে যাবে। আজকে যে প্রজন্ম তাদের কাছে আমার এটাই থাকবে আহ্বান, আমরা কিন্তু পরিকল্পনা দিয়ে গেছি।  

যেমন ২০২১ পর্যন্ত আমরা পরিকল্পনা দিয়েছিলাম, সেটা বাস্তবায়ন করেছি। আমরা স্যাটেলাইট যুগে প্রবেশ করেছি, নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট করেছি, অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছি, মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছি, দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল করছি। বাংলাদেশে কেউ যেন অবহেলা করতে না পারে, বাংলাদেশের মানুষ যেন বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে পারে, শিক্ষায়-দীক্ষায় জ্ঞানে, প্রযুক্তি জ্ঞানে, বিজ্ঞানে সবদিক থেকে যেন আমরা এগিয়ে থাকতে পারি।

ডেল্টা প্লানের বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের আগামী প্রজন্মের জন্য ২০৪১ সালে বাংলাদেশ কেমন বাংলাদেশ হবে সেই পরিকল্পনা প্রণয়ন করে দিয়ে গিয়েছি এবং তা বাস্তবায়নের জন্য পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। ১০০ বছর অর্থাৎ ২১০০ সালে ডেল্টা প্ল্যান তৈরি করে দিয়েছি। তার কিছু কাজ আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। এই প্রজন্মের পর প্রজন্মকে কেমন বাংলাদেশ দেবে এবং এদেশের মানুষ কিভাবে বাঁচবে, কিভাবে উন্নত জীবন পাবে সে লক্ষ্য নিয়ে পরিকল্পনা দিয়ে যাচ্ছি।  

মন্ত্রিসভা কমিটির আহ্বায়ক মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব খাজা মিয়া এবং অনুষ্ঠানের আয়োজক মন্ত্রিসভা কমিটির সদস্যসচিব ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপনের ওপর একটি অডিও ভিজ্যুয়াল প্রেজেন্টেশন পরিবেশিত হয়। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে শুরু হওয়া এই আয়োজনে এরপরই থিম স্যং পরিবেশিত হয়। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সংসদ সদস্যরা, সরকারের পদস্থ বেসামরিক এবং সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন।

news24bd.tv/আলী