আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ার পর শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ
আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ার পর শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ

ছবি : নিজস্ব

আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ার পর শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহে ফলিক এ্যাসিড ট্যাবলেট খাওয়ার পর রেবা খাতুন (১৪) নামের এক ছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। আজ সোমবার দুপুরে সদর হাটগোপালপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছেন জেলার সিভিল সার্জন। নিহত শিক্ষার্থী সদর উপজেলার উত্তর সমশপুর গ্রামের সাগর হোসেনের মেয়ে এবং ওই স্কুলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী।

এ ঘটনায় ফারজানা, উর্মী খাতুন, ৭ম শ্রেনী ও আসমা খাতুন ৬ষ্ট শ্রেনীর আরও তিন শিক্ষার্থী সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম শাহীন।

জানা যায়, সকালে স্কুল থেকে আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ানো হয় শিক্ষার্থীদের। এরপর সকাল ১১ টার দিকে রেবা হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। সেই সাথে বমি করে এবং তার মুখ দিয়ে ফেনা বের হতে থাকে। এরপর তাকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তবে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মিথিলা আক্তার জানান, মেয়েটিকে আমরা মৃত অবস্থায় পেয়েছি। তবে আয়রন ট্যাবলেট খেয়ে তার মৃত্যু হয়েছে নাকি অন্য কোন কারণ আছে তা পরীক্ষা ও ময়নাতদন্ত না করে সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না।

উল্লেখ্য, ইউনিসেফের অর্থায়নে জেলায় কিশোরী মেয়েদের আয়রনের চাহিদা পুরণে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে সাত দিন পরপর এই আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়েছে। তারই অংশ হিসাবে মোট তিনশ ছাত্রীকে এ ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন হাটগোপালপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক  ইউসূফ আলী।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

;