‘মানবাধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের আরো আন্তরিক হওয়া প্রয়োজন’

‘মানবাধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের আরো আন্তরিক হওয়া প্রয়োজন’

আরেফিন শাকিল

বাংলাদেশকে মানবাধিকার বিষয়ে আরও আন্তরিক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত চালস হোয়াইটলি। বলেন, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় মিয়ানমারের ওপর চাপ অব্যাহত রাখবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। বাংলাদেশ –জার্মানীর কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর উপলক্ষ্যে এক সেমিনারে তিনি একথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশিষ্টজনরা বাংলাদেশকে বন্ধু দেশের তালিকা বড় করার পরামর্শ দেন।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে স্বাধীন বাংলাদেশকে ১৯৭২ সালে প্রথম স্বীকৃতি দেয় জার্মানী। এরপর দেশটির সাথে কূটনৈতিক সম্পর্কের সূচনা। যা চলতি বছর পাঁচ দশক পূণ হয়েছে। এই উপলক্ষ্যে রাজধানীর একটি হোটেলে সেমিনারের আয়োজন করে সেন্টার ফর গর্ভারনন্সে স্ট্যাডিজ-সিজিএস। আলোচনায় বড় অংশ জুড়ে বক্তরা রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় জার্মানীকে বাংলাদেশের পাশে চান। সাবেক দুই পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেন ্ও শমসের মুবিন চৌধুরী বলেন, ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ বিশ্বকে শিক্ষা দিয়েছে, কোন দেশই কারোর স্থায়ী বন্ধু নয়। তাই বাংলাদেশেরও উচিত বন্ধুত্বের তালিকা বড় করা।

শুধু ওষুধ বা পোশাক খাতের উপর নির্ভর না করে বহুমাত্রিক চিন্তা করতে হবে। এছাড়া নতুন বন্ধু রাষ্ট্র তৈরিতে ‍গুরুত্ব দেয়ার বিকল্প নেই। অনুষ্ঠানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত বলেন, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মিয়ানমারের ওপর চাপ অব্যাহত আছে। মানবাধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের আরও আন্তরিক ও যত্নবান হওয়া উচিৎ। মিয়ানমার এর উপর নিষেধাজ্ঞা অব্যহত আছে। দেশটিকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার কোন বিকল্প নেই। ইইউ চায়, এই সংকটের আশু সমাধান। এছাড়া বাংলাদেশকে মানবাধিকার রক্ষায় আরো গুরুত্ব দিতে হবে" বাংলাদেশে শিক্ষা সামরিকসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করতে ইউরোপের দেশগুলোকে আহ্বান জানান।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

;