ভাই হত্যার প্রতিশোধ নিতে প্রেমিকা সেজে খুন
ভাই হত্যার প্রতিশোধ নিতে প্রেমিকা সেজে খুন

সংগৃহীত ছবি

ভাই হত্যার প্রতিশোধ নিতে প্রেমিকা সেজে খুন

অনলাইন ডেস্ক

তিন মাস ধরে মেয়ে সেজে ফোনে প্রেম, এরপর সাক্ষাতের কথা বলে ডেকে খুন করা হয় ইমরান হোসেন (২১) নামের এক কিশোরকে। ভাই আরাফাত (৯) হত্যার বদলা নিতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন আজাদুর রহমান ওরফে নবীন (২৪) ও তার বন্ধু মো. আলাউদ্দিন (২০)।

ইমরান হত্যার চার দিনের মাথায় পুলিশ দুই হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার করেছে। তারা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

এর আগে ২৬ মার্চ রাতে ইমরানকে বাড়ির বাইরে ডেকে এনে খুন করা হয়।

পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান জানান, শিশু আরাফাত হোসেন (৯) হত্যার বদলা নিতে ভাই নবীন তার বন্ধু মো. আলাউদ্দিনের সহায়তায় ইমরানকে হত্যা করে। এ জন্য নবীন তিন মাস মেয়ে সেজে মুঠোফোনে ইমরানের সঙ্গে প্রেমিকার অভিনয় করে। গত ২৬ মার্চ রাতে প্রেমিকা (নবীন) ইমরানকে বাড়ির বাইরে ডেকে এনে কুপিয়ে হত্যা করে। পুলিশ এ ঘটনায় ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করেছে।  

জানা গেছে, পাবনার বেড়া উপজেলার আলোচিত শিশু অপহরণ ও হত্যা মামলার আসামি ছিলেন নিহত ইমরান হোসেন (২১)। ২৭ মার্চ সকালে বেড়া পৌর এলাকার আলহেরানগর মহল্লার একটি ক্ষেত থেকে তার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ইমরান সাঁথিয়ার করমজা গ্রামের আবদুল কুদ্দুসের ছেলে। ইমরান ২০১৫ সালে আরাফাত নামের এক শিশুকে অপহরণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কিশোর অপরাধী হিসেবে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। ওই ঘটনায় প্রায় সাড়ে পাঁচ বছর যশোর কিশোর সংশোধনাগারে কারাভোগের পর কয়েক মাস আগে মুক্তি পান।

গণমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বেড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অরবিন্দ সরকার। তিনি বলেন, ইমরান হত্যা মামলায় আসামি আজাদুর ও আলাউদ্দিন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ভাই হত্যার বদলা নিতে গিয়ে আরেকটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইমরান হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা এলাকায় গত সোমবার রাতে অভিযান চালিয়ে আরাফাতের ভাই আজাদুর ও তার বন্ধু আলাউদ্দিনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ সময় হত্যায় ব্যবহৃত দুটি ছুরি ও দড়ি জব্দ করা হয়। মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) বিকেলে তাদের আদালতে পাঠানো হলে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

news24bd.tv/আলী