পঞ্চগড়ে পাগলা কুকুরের উপদ্রব বেড়েছে 
পঞ্চগড়ে পাগলা কুকুরের উপদ্রব বেড়েছে 

পঞ্চগড়ে পাগলা কুকুরের উপদ্রব বেড়েছে 

পঞ্চগড় প্রতিনিধি 

পঞ্চগড় শহরে বেড়ে গেছে বেওয়ারিশ ও পাগলা কুকুরের উপদ্রব। শহরের বিভিন্ন স্থানে দল বেঁধে চলাচল করছে এসব কুকুর। এদের হটাৎ আক্রমনে মানুষ সহ বিভিন্ন প্রাণীও আক্রান্ত হচ্ছে। কিছু ককুর শরীরে ক্ষত, পচন সহ বিভিন্ন রোগ বালাই নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

আক্রান্ত এসব কুকুরের শরীর থেকে ছড়াচ্ছে নানা রকমের রোগ জীবাণু এবং দূর্গন্ধ। এসব অসুস্থ্য প্রাণীর বিচরন এলাকায় মানুষের চলাফেরা কঠিন হয়ে পড়েছে বেওয়ারীশ এসব কুকুর নিধনে পৌর সভার কোন উদ্যোগ নেই ।  

গত ২ বছর আগে পঞ্চগড় পৌরসভা শহরের পাগলা, অসুস্থ্য এবং বেওয়ারীশ কুকুর নিধন করা হতো। কিন্তু আন্তর্জাতিক আইনে নিরীহ প্রাণীকে হত্যার বিষয়টি মানবতা পরিপন্থি হবার কারনে বর্তমানে কুকুর নিধন বন্ধ করে অসুস্থ্য ও বেওয়ারীশ কুকুরকে ভ্যাকসিনাইজেশনের আওতায় আনা হয়েছে।

এই ভ্যাকসিন প্রদান করা হলে কুকুর তার বিষক্রিয়া হারাবে, পাশাপাশি প্রজনন ক্ষমতা হ্রাস পাবে।

প্রতি বছর পৌরসভা গুলোতে এই কার্যক্রম চালু থাকলেও গত ২ বছরে পঞ্চগড় পৌরসভায় এই কার্যক্রম চোখে পড়েনি বলছেন, পৌরবাসীরা। জানাগেছে, গত ৩ এপ্রিল শহরের তুলার ডাঙ্গা এলাকায় পাগলা কুকুরের আক্রমনে যখম হয়েছে হুমায়ুন এর পুত্র মো. রোহান, নুর আলমের পুত্র রেদওয়ান, গোলাম মোস্তফার ভাগিনা রবি। একই সাথে পাগলা কুকুরের কামড়ে আহত হয়েছে এলাকার ইউনুস আলীর ২টি ছাগল।     

ডোকোরোপাড়া এলাকার পলাশ আহমেদ জানান, বেশ কিছু দিন ধরে শহরে আশংকাজনক হারে বাড়ছে অসুস্থ্য, পাগলা ও বেওয়ারীশ কুকুরের উপদ্রব। আর্বজনার স্থুপ থেকে পঁচা বাসি খাবার খেয়ে অসুস্থ্য এসব কুকুরের খাদ্য সংকট প্রকট হবার কারনে এরা বসত বাড়ির আশপাশ থেকে মানুষের হাঁস মুরগী, কবুতর, ছাগল ধরে নিয়ে যাচ্ছে। অনেক সময় নানা প্রতিবন্ধকতায় এরা মানুষের উপর আক্রমন চালাচ্ছে। পঞ্চগড় শহরের  কায়েতপাড়া গ্রামের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, যে হারে বেওয়ারীশ কুকুরের বিচরণ বাড়ছে, তাতে খেলার মাঠে শিশুরাও নিরাপদ নয়। শহরের বিভিন্ন স্থানে ঝাঁক বেঁধে এসব পাগলা কুকুর বিচরন করলেও পৌরসভার নেই কোন নজর।  

পঞ্চগড় সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানান, প্রতি সপ্তাহেই কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত বিভিন্ন প্রাণী নিয়ে মানুষ প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে আসছে। আমরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিচ্ছি। বর্তমানে শহরে পাগলা কুকুরের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এই অবস্থায় কুকুরের ভ্যাকসিনাইজেশন খুব দরকার। এটি দেয়া থাকলে কুকরের কামড়ে আক্রান্ত প্রাণী এবং মানুষ  নিরাপদ থাকবে।

পঞ্চগড় পৌর সভার মেয়র জাকিয়া খাতুন বলেন, গত ২ বছর মহামারী করোনার কারনে পৌরসভায় কুকুর ভ্যাকসিনাইজেশনের প্রোগ্রামটি বন্ধ থাকে। পৌরসভা সহ জেলায় বেওয়ারীশ কুকুরকে ভ্যাকসিন প্রদানের বিষয়টি আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। চলতি মাসের মধ্যে এই কার্যক্রম চালু করা হবে।

news24bd.tv/arkabul