প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ কাজে বিজিবির বাঁধা
প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ কাজে বিজিবির বাঁধা

সংগৃহীত ছবি

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ কাজে বিজিবির বাঁধা

পঞ্চগড় প্রতিনিধি 

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়াবুড়ি এলাকায় মুজিব শতবর্ষে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর ঘর নির্মাণ করতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) বাঁধার মুখে পড়েছে তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রশাসন। ওই এলাকায় 'বিজিবি ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট' নামে একটি প্রতিষ্ঠানের জমি রয়েছে বলে দাবি করছে বিজিবি। অন্যদিকে তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রশাসনের দাবি, ১ নং খাস খতিয়ানের জমিতেই আশ্রয়ণের ঘর নির্মাণ হচ্ছে। মঙ্গলবার দুপুরে ঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করার পর ১৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটেলিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক সালেহ আহমেদ এসে ঘর নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বলেন।

 

তেতুঁলিয়া উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোেগ আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর অধীন সারা দেশের মতো তেঁতুলিয়া উপজেলাতেও ভূমিহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ ও পুনর্বাসন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। উপজেলার প্রায় সাড়ে চারশ গৃহহীন মানুষের জন্য সাড়ে চারশ বাড়ির বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে ৩৫ জন ভূমিহীনের আশ্রয়ণের জন্য মন্ডল পাড়া গ্রামে ২ শতক করে দশমিক ১২ একর খাস জমি বরাদ্দ দেয়া হয়। বরাদ্দকৃত খাস জমিতে মঙ্গলবার সকালে ঘর নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করা হয়। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ চন্দ্র সাহা, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাজিয়া সুলতানা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইয়াছিন আলী মন্ডল সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।  

কিন্তু উদ্বোধনের কয়েক ঘন্টা পর বিজিবির পক্ষ থেকে কাজ বন্ধ রাখতে বলা হয়। পরে ব্যাটালিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক সালেহ আহমেদ উপস্থিত হয়ে এখানে বিজিবি ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের কেনা সম্পত্তি রয়েছে বলে দাবি করেন। তিনি সমন্বয় করে কাজ শুরু করার অনুরোধ জানান। পরে প্রকল্পের বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখা হয়। তবে সাংবাদিকদের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলতে চাননি তিনি।  

তেতুঁলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, ‘বিজিবি এখানে কোন জমি অধিগ্রহণ করেনি। বিজিবি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান। আমরা ঘর নির্মাণ করছি খাস জমিতে। ঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধনও করেছি। কাজ শুরুর পর বিজিবি এসে সমন্বয় করার জন্য সময় চেয়েছে। আমরা তাই আপাতত কাজ বন্ধ রেখেছি। তবে যথাসময়ে আশ্রয়ন প্রকল্পের কাজ আবার শুরু হবে। ’ 

news24bd.tv/arkabul