বাঁধের কাজে দুর্নীতি, গাফিলতি আছে : পরিকল্পনামন্ত্রী
বাঁধের কাজে দুর্নীতি, গাফিলতি আছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

ফাইল ছবি

বাঁধের কাজে দুর্নীতি, গাফিলতি আছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

মো.বুরহান উদ্দিন, সুনামগঞ্জ

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে দুর্নীতি আছে, গাফিলতি আছে অস্বীকার করছি না। শুধু তাই নয়, যদি বন্যা চলে আসে পৃথিবীর কোন শক্তি আটকাতে পারবে না। এমনি কি সৌদি আরব আমেরিকায় একখানে হয়েও বাংলাদেশে বাঁধ দিয়ে এই বন্যা আটকাতে পারবে না।

'হাওর, আগাম বন্যা, বাঁধ এই তিনটি বিষয়ে সরাসরি আমার অভিজ্ঞতা আছে।

কারণ আমি হাওর এলাকার সন্তান, এখানে বড় হয়েছি', জানান মন্ত্রী।

আজ শুক্রবার বিকালে সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলায় নিজ বাসায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বন্যা কোন বছর আসে কোন বছর আসে না এটা প্রাকৃতিক ব্যাপার। এটা কোন মানুষের নিয়ন্ত্রণে নয়। প্রতি বছর আমরা ফসল রক্ষা বাঁধের জন্য প্রকল্প হাতে নেই। কোন বছর পানি আসে কোন বছর পানি আসে না। ২০১৭ সালের কথা আমার পরিস্কার মনে আছে তিন দিনের মধ্যে সারা সুনামগঞ্জের হাওর গুলোর ধান ডুবে মালদ্বীপ হয়ে গিয়েছিল। এই বছর পানি এসেছিল কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে পানি কমতে শুরু করেছে। তবে এই পানি  দিরাই, ধর্মপাশা,তাহিরপুর উপজেলায় ধানের কিছু ক্ষতি করছে। আগামী এক সপ্তাহ যদি প্রাকৃতিক কোন দূর্যোগ না আসে তাহলে সুনামগঞ্জের মানুষ পুরো ধমে ধান কাটতে পারবে বলে আশা করি।

তিনি বলেন, হাওর এলাকায় বোরো ধান ঝুঁকির মধ্য দিয়ে করতে হবে। একটা উপায় বৈজ্ঞানিকভাবে আছে, যদি ফসলের সময় সীমাটা কমানো যায় এবং আরো ৮ দিন আগে ধানটা পাকানোর জন্য বৈজ্ঞানিকভাবে কিছু বের করা যায় তাহলে হাওর অঞ্চলের জন্য কিছুটা ফায়দা হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, বাঁধের কাজে প্রশাসনিকভাবে, প্রকৌশলগতভাবে গাফিলতির এবং পিআইসিদের দুর্নীতি এটা খুব পরিচিত বিষয়। তবে প্রশাসনের লোকদের আরো কঠোরভাবে কাজ করতে হবে। আমি মনে করি এখন দোষারোপ না করে সকলে আমরা কৃষকদের পাশে দাঁড়াই।

তিনি বলেন, যারা প্রকৃত অর্থে জমির মালিক তাদেরকে পিআইসিতে বেশি করে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। তারা নিজেরা মাটি কাটবে আমি সেটা বলব না। তারা দরিদ্র মানুষকে কাজে লাগাতে পারেন।

news24bd.tv/রিমু