ঠাকুরগাঁওয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ভিন্নরকম দন্ডাদেশ
ঠাকুরগাঁওয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ভিন্নরকম দন্ডাদেশ

সংগৃহীত ছবি

ঠাকুরগাঁওয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ভিন্নরকম দন্ডাদেশ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁও জেলা ও দায়রা জজ আদালতের মূল ফটকের সামনে প্ল্যাকার্ড হাতে দাঁড়িয়ে আছেন আব্দুল্লাহ। প্ল্যাকার্ডে লেখা আছে ‘মাদক ব্যবসার জন্যে আমি দুঃখিত, লজ্জিত, অনুতপ্ত ও ক্ষমা প্রার্থী। ’ ‘মাদক দেশ ও দশের শত্রু, মাদক পরিহার করুন‘। এ ব্যতিক্রমী দৃশ্য দেখে থমকে দাঁড়াচ্ছেন লোকজন।

 গত রবিবার মো. আব্দুল্লাহ (৫০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর ভিন্নরকম দন্ডাদেশ প্রদান করে ঠাকুরগাঁও অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ গাজী দেলোয়ার হোসেন। আব্দুল্লাহ জেলার রানীশংকৈল উপজেলার রাউতনগর গ্রামের মৃত মনতাজ আলীর ছেলে।  

আদালত সূত্রে জানা যায়, মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহর ২০১৫ সালের একটি মাদক মামলা বিচারাধীন ছিল। প্রথমে আদালত তাকে এক বছরের কারাদন্ড ও ৩০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ প্রদান করেন। পরক্ষণেই আসামীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন যে, আব্দুল্লাহ একজন গরীব কৃষক। তার দুই মেয়ে পবিত্র কোরআনের হাফেজ। একজন ইতিমধ্যে হেফজ সম্পন্ন করেছেন, অন্যজনের কোরআন হেফজ প্রায় শেষের দিকে। এর আগে তার নামে কোনো প্রকার অভিযোগ পাওয়া যায়নি। সে পরিবারে সে পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। এই আসামী তার এই কাজে অনুতপ্ত।  

পরে সামগ্রিক বিবেচনায় বিজ্ঞ বিচারক আদালতের পূর্বের রায় পরিবর্তন করে আব্দুল্লাহকে প্রতিদিন এক ঘন্টা করে দুপুর ১২ টা থেকে ১টা পর্যন্ত ১০ দিন আদালত চত্বরে ’মাদক ব্যবসার জন্য আমি দু:খিত, লজ্জিত, অনুতপ্ত ও ক্ষমা-প্রার্থী’ এবং ‘মাদক দেশ ও দেশের শত্রু, মাদক পরিহার করুন’ এই লেখা সম্বলিত ব্যানার প্রদর্শনের ভিন্নরকম আদেশ প্রদান করেন।  রায় ঘোষণার পরই দেখা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলা ও দায়রা জজ আদালতের মূল ফটকের সামনে এসব লেখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ড হাতে দাঁড়িয়ে আছেন আব্দুল্লাহ। আর লোকজন তাকে দেখে থমকে দাড়াচ্ছে।

news24bd.tv/arkabul


 

;