আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি হামলায় ইরানের প্রতিক্রিয়া
আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি হামলায় ইরানের প্রতিক্রিয়া

সংগৃহীত ছবি

আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি হামলায় ইরানের প্রতিক্রিয়া

অনলাইন ডেস্ক

বিশ্বের মুসলিমদের কাছে তৃতীয় পবিত্রতম স্থান মসজিদুল আকসা বা বায়তুল মুকাদ্দাস। আর ইহুদিদের কাছে এটি ‘টেম্পল মাউন্ট’ নামে পরিচিত। তারাও এটিকে তাদের অন্যতম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। বছরের পর বছর চলতে থাকা ইসরায়েল-ফিলিস্তিন দ্বন্দ্বের মূলে রয়েছে পবিত্র এই মসজিদ।

পবিত্র আল-আকসা মসজিদে রোজাদার মুসল্লিদের ওপর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান।

আজ শুক্রবার ফজরের নামাজের সময় আল-আকসা মসজিদে হানা দেয় দখলদার ইসরাইলি সেনারা। এ সময় ফিলিস্তিনি মুসল্লিরা তাদেরকে বাধা দেন। এতে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে দেড় শতাধিক ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। এছাড়া অন্তত চারশ' ফিলিস্তিনিকে আটক করেছে ইসরাইলি বাহিনী।  খবর এএফপি ও রয়টার্সের।

হামলার বিষয়ে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, 'মজলুম ফিলিস্তিনিদের ওপর দখলদার ইসরাইলের বর্বর হামলা তাদের দুর্বলতার পরিচায়ক। তারা নিজেদের দুর্বলতা ঢাকতে কিছু নিরস্ত্র মুসল্লির বিরুদ্ধে শক্তি প্রদর্শন করছে। '

তিনি আরও বলেন, ইহুদিবাদীদের চলমান অপরাধযজ্ঞ স্পষ্টভাবেই আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকারের লঙ্ঘন। সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মাধ্যমে রক্তপিপাসু ও সংকট সৃষ্টিকারী ইসরাইলের আচরণকে যে স্বাভাবিক করা সম্ভব নয় তা এখন আরও বেশি স্পষ্ট।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন,  সবাই এখন এটা বুঝতে পারছে যে, ফিলিস্তিনিদের স্বাধীনতা ও মুক্তির আদর্শ থেকে কোনো কোনো মুসলিম দেশের নেতারা মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় ফিলিস্তিনিদের ওপর বর্বরতা আরও বেড়েছে।

যারা ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে তারা অপরাধ করেছে বলে মন্তব্য করেন খাতিবজাদে। ফিলিস্তিনি জনগণ এবং আল-আকসা মসজিদসহ পবিত্র স্থানগুলো রক্ষায় এগিয়ে আসতে সব আন্তর্জাতিক সংস্থা ও দেশের প্রতি আহ্বান জানান ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র।

news24bd.tv/রিমু

;