মূল্যস্ফীতিতে টালমাটাল বিশ্ব
মূল্যস্ফীতিতে টালমাটাল বিশ্ব

মূল্যস্ফীতিতে টালমাটাল বিশ্ব

মাসুদ রানা

করোনার পর ইউক্রেন যুদ্ধে মূল্যস্ফীতিতে টালমাটাল বিশ্ব। ঋণ নিয়ে মেগা প্রকল্প করে সুদ পরিশোধে ব্যর্থ দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা এখন অর্থনৈতিকভাবে প্রায় দেউলিয়া। এবার গভীর সংকট হাতছানি দিচ্ছে এ অঞ্চলের আরেক দেশ নেপালকেও।  দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশেই অর্থনীতি সংকট দিনে দিনে তীব্রতর হচ্ছে।

 ভয়াবহ অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে পাকিস্তান। মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধি পাচ্ছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, থ্যাইল্যান্ড ও ভারতেও।

করোনা আর যুদ্ধের প্রভাবে গেল এক যুগের মধ্যে পুরো বিশ্বই এখন সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতির মুখোমুখি। যুক্তরাষ্ট্র থেকে পাকিস্তান, ইটালি থেকে জার্মানি দেশে দেশে নিত্যপণ্যের দাম লাগাম ছাড়া। সংকট গভীর হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়াতেও। কমতে থাকা মূল্যস্ফীতির দেশ জাপানে ডিসেম্বরে প্রায় ১ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে। ভারতে ধারাবাহিকভাবে মূল্যস্ফীতি বাড়তে বাড়তে মার্চ মাসে খুচরা মূল্যস্ফীতি ১৭ মাসে সর্বোচ্চ ৬.৯৫ শতাংশে পৌঁছেছে।

ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতি ও খাদ্য সংকটের কারণে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থ্যাইল্যান্ডের জনজীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।  আর সংকট সামাল দিতে না পারায় এরই মধ্যে কয়েকটি দেশে দেখা দিয়েছে রাজনৈতিক অস্থিরতা।  

পাকিস্তানে জানুয়ারিতে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ১৩ শতাংশ যেখোনে খাদ্য-পণ্যের দাম ১৭ শতাংশ বেড়েছিল। এর জের ধরে রাজনৈতিক পরিস্থিতিও উত্তাল হয়ে নানা সমীকরণে শেষ পর্যন্ত পতন হয়েছে ইমরান খান সরকার। দেশটির রাজস্ব ঘাটতিও এখন ঊর্ধ্বমুখী, তলানিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশ শ্রীলঙ্কা এখন তার ৭৪ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে সঙ্কটজনক অর্থনৈতিক পরিস্থিতির মুখোমুখি। মার্চ মাসে মূল্যস্ফীতি ১৮.৭ শতাংশে পৌঁছে। ভয়াবহ অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটে বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কায় নিত্যপণ্যের জন্য হাহাকার দিনে দিনে তীব্র হচ্ছে। ঘাড়ের ওপর ৫১ বিলিয়ন ডলারের ঋণের বোঝায় এখন দিশেহারা দেশটির সরকার।

প্রতিবেশী আরেক দেশ নেপালের অর্থনীতিতেও ‘শনির দশা’র শঙ্কা। গেল ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত মাত্র সাত মাসে হিমালয় পাদদেশের দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৬ শতাংশের বেশি কমে ৯৫০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। নেপালের রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানি চলতি বছরের শুরু থেকে অন্তত চারবার জ্বালানির দাম বাড়িয়েছে। দেশটির অবস্থা শ্রীলঙ্কার চেয়েও ভয়াবহ হতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

news24bd.tv তৌহিদ