গাছের সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে সুদের টাকা আদায়, দুই ভাই গ্রেপ্তার
গাছের সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে সুদের টাকা আদায়, দুই ভাই গ্রেপ্তার

সংগৃহীত ছবি

গাছের সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে সুদের টাকা আদায়, দুই ভাই গ্রেপ্তার

বাগেরহাট প্রতিনিধি :

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে সুদের টাকা আদায়ের জন্য রুহুল আমীন শিকারী নামের এক যুবককে গাছের সঙ্গে ৫ ঘন্টা শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার ঘটনা ঘটেছে। পরে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর এ ঘটনায় জড়িত দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যায় মোড়েলগঞ্জ উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামে অভিযান চালিয়ে  তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।  

গ্রেপ্তারকৃতারা হলেন- মিলন খান (২২) ও মিরাজ খানকে (২০)।

তারা বিশারীঘাটা গ্রামের চাঁনমিয়া খানের ছেলে। শনিবার দুপুরে পুলিশ তদেরকে আদালতে পাঠালে বিচারক তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।  

স্থানীয় এলাকাবাসি জানায়, গ্রেপ্তার হওয়া ওই দুই ভাই সুদের টাকা আদায়ের জন্য উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামের তাদের প্রতিবেশি ইউনুছ শিকারীর ছেলে ব্যবসায়ী রুহুল আমীন শিকারী’র (৩৫) হাতে পায়ে শিকল দিয়ে শুক্রবার বেলা ১০টা থেকে ৩টা পর্যন্ত ৫ ঘন্টা গাছের সঙ্গে তালা মেরে আটক করে রাখে।  

স্থানীয়রা এ দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দিলে তা ভাইরাল হয়ে যায়। বিষয়টি পুলিশে নজরে আসলে শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মোরেলগঞ্জ থানা পুলিশ উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত মিলন খান ও মিরাজ খানকে গ্রেপ্তার করে।  

নির্যাতনের শিকার মোড়েলগঞ্জ উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামের রুহুল আমীন শিকারী নিউজ টোয়েন্টিফোরকে জানান, বিগত ৩ বছর আগে স্থানীয় মিলন খানের কাছ থেকে তিনি ১০০ মন ধান দেওয়ার শর্তে ১ লাখ টাকা নেন। বছরে লাভ হিসেবে শর্ত মোতাবেক টাকা দিতে না পারায় শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে তাকে তার দোকান থেকে তুলে নিয়ে শিকল দিয়ে ৫ ঘন্টা গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখেন পাওনাদার মিলন খান ও তার ভাই মিরাজ খান। বেলা ৩ টার দিকে ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করার পর শিকলমুক্ত হন রুহুল আমীন।  

পরে গাছে শিকলে বেঁধে সুদের টাকা আদাায় করার ঘটনার বিষয়টি স্থানীয়রা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেজবুকে আপলোড করলে তা মুহুর্তেই ভাইরাল হলে যায়। ফেজবুকে তা দেখে মোরেলগঞ্জ থানা পুলিশ সন্ধ্যায় আমার সাথে যোগাযোগ করে। আমাকে গাছের সাথে ৫ ঘন্টা ধরে শিকল দিয়ে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় আমি থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ দ্রুত অভিযান চালিয়ে মিলন খান ও তার ভাই মিরাজ খানকে গ্রেপ্তার করে।  
 
মোড়েলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান নিউজ টোয়েন্টিফোরকে বলেন, শিকলে বেঁধে মারপিট করে সুদের টাকা আদায়ের বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে শুক্রবার সন্থ্যায় তা আমাদের নজরে আসে। বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হকের নির্দেশে ভূক্তভোগী যুবক রুহুল আমীন শিকারীর সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ করা হয়। রুহুল আমীন শিকারীর দায়েরকৃত মামলার আসামি দুই ভাই মিলন খান ও মিরাজ খানকে ওইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতে পাঠালে বিচারক তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেয়।  

news24bd.tv/কামরুল 

সম্পর্কিত খবর