প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে ১৯ নির্দেশনা
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে ১৯ নির্দেশনা

সংগৃহীত ছবি

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে ১৯ নির্দেশনা

অনলাইন ডেস্ক

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে প্রথম ধাপের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২২ এপ্রিল। প্রথম ধাপে ২২ জেলায় হবে এ পরীক্ষা। দ্বিতীয় ধাপে ২০ মে এবং তৃতীয় ধাপে ৩ জুন পরীক্ষা হবে। বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত পরীক্ষা চলবে।

আবেদনকারীরা নিজ নিজ জেলায় পরীক্ষা দেবেন। শনিবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর থেকে পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড শুরু হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (admit.dpe.gov.bd) ওয়েবসাইটে গিয়ে ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারছেন প্রার্থীরা। এছাড়া এসএসসির রোল, বোর্ড ও পাসের সন দিয়ে লগইন করেও প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাচ্ছে।

পরীক্ষার প্রবেশপত্রে তারিখ ও সময়ের পাশাপাশি কেন্দ্রের নামও উল্লেখ রয়েছে। তাছাড়া পরীক্ষার্থীদের ১৯টি সাধারণ নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।  

নির্দেশনাগুলো হলো-

১. লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য এই প্রবেশপত্র ও জাতীয় পরিচয়পত্র সঙ্গে আনতে হবে।
২. পরীক্ষা শুরু হওয়ার ১ এক ঘণ্টা আগে প্রার্থীকে নির্ধারিত আসন গ্রহণ করতে হবে এবং পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত কক্ষ ত্যাগ করতে পারবেন না।

৩. প্রবেশপত্র ব্যতিরেকে কোনো পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হবে না। পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো বই, উত্তরপত্র, নোট বা অন্য কোনো কাগজপত্র, ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন, ভ্যানিটি ব্যাগ, পার্স, হাতঘড়ি বা খড়ি জাতীয় বস্তু, ইলেকট্রনিক্স হাত ঘড়ি বা যেকোনো ধরনের ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস, যোগাযোগ যন্ত্র বা এই জাতীয় বস্তু সঙ্গে নিয়ে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। যদি কোনো  পরীক্ষার্থী উল্লিখিত দ্রব্যাদি সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করে, তবে তাকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কারসহ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৪. পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষা কক্ষে অবস্থানের সময় অবশ্যই উভয় কান উন্মুক্ত রাখতে হবে।

৫. আবেদনপত্রে পরীক্ষার্থীর প্রদত্ত ছবি হাজিরা শিটে থাকবে এবং ইনভিজিলেটর এই ছবি দিয়ে পরীক্ষার্থীকে যাচাই করবেন। ভুয়া পরীক্ষার্থীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৬. আবেদনপত্রে প্রার্থীর দেওয়া স্বাক্ষরের সঙ্গে পরীক্ষার হাজিরা শিটে এবং ওএমআর শিটে দেওয়া স্বাক্ষরসহ সব তথ্যে মিল থাকতে হবে।

৭. পরীক্ষার্থীকে উত্তরপত্রে অবশ্যই কালো বল পয়েন্ট কলম ব্যবহার করতে হবে।

৮. একজন পরীক্ষার্থীর জন্য ওএমআর ফরমের সেট কোড পূর্বনির্ধারিত থাকবে, পরীক্ষার্থীর জন্য নির্ধারিত ওএমআর ফরমের সেট কোডটি প্রবেশপত্রে উল্লেখ করা আছে।

৯. পরীক্ষার হলে যে ওএমআর ফরমটি দেওয়া হবে, সেখানে সেট কোডের ঘরে প্রবেশপত্রে উল্লিখিত কোডটির বিপরীতে বৃত্ত ভরাট করতে হবে।

১০. পরীক্ষায় প্রশ্নপত্রের সেট কোডগুলো এবং ওএমআর ফরমের সেট কোড ভিন্ন হবে। পরীক্ষার্থীর ওএমআর সেট কোড এর বিপরীতে কোন সেট কোডের প্রশ্ন পাবেন, তা পরীক্ষা শুরু হওয়ার পাঁচ মিনিট আগে কক্ষ পরিদর্শক জানিয়ে দেবেন।

১১. প্রবেশপত্রে নির্ধারিত ওএমআর-এর সেট কোড ছাড়া অন্য সেট কোডে পরীক্ষা দিলে উত্তরটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

১২. রোল বা সেট কোড এর বৃত্ত পূরণে কোনো ভুল হলে উত্তরপত্রটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

১৩. হাজিরা শিটের সঠিক স্থানে পরীক্ষার্থীকে স্বাক্ষর করতে হবে এবং হাজিরা বৃত্তটি পূরণ করতে হবে। তা না হলে উত্তরপত্রটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

১৪. ওএমআর ফরমের উপরিভাগের নির্ধারিত সব টেক্সট বক্স নির্দেশনা অনুযায়ী পূরণ করতে হবে, অন্যথায় উত্তরপত্রটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

১৫. পরীক্ষা কেন্দ্রের ভেতরে আপনার আসন কোন কক্ষে তার তালিকা টানিয়ে দেওয়া হবে।

১৬. লিখিত পরীক্ষায় বা মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ চাকরির নিশ্চয়তা দেয় না।

১৭. চূড়ান্ত ফলাফলে প্রতিটি উপজেলা/শিক্ষা থানার জন্য নিয়োগযোগ্য মেধাতালিকা ছাড়া কোনো অপেক্ষমাণ তালিকা/প্যানেল প্রস্তুত করা হবে না।

১৮. লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার নম্বর প্রকাশ করা হবে না।

১৯. পরীক্ষার সব তথ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

গত বুধবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আবেদনকারীর নিজ নিজ জেলায় বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ২২ এপ্রিল ঢাকাসহ ১৪ জেলার সব উপজেলায় এবং ৮ জেলার নির্দিষ্ট কিছু উপজেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ২য় ও ৩য় ধাপে কোন তারিখে কোন জেলা বা উপজেলা পর্যায়ের পরীক্ষা হবে তা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

news24bd.tv/আলী