দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় রেল সেতুর নির্মাণ কাজ : রেলমন্ত্রী
দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় রেল সেতুর নির্মাণ কাজ : রেলমন্ত্রী

সংগৃহীত ছবি

পঞ্চগড় জেলা সমিতি, ঢাকার ইফতার মাহফিল 

দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় রেল সেতুর নির্মাণ কাজ : রেলমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, যমুনা নদীর ওপর দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে ডুয়েল গেজ, ডাবল ট্র্যাকের বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় রেল সেতুর নির্মাণ কাজ। বর্তমানে ২৪ ঘন্টাই কাজ চলছে। আশা করা যায়, ২০২৪ সালে এর কাজ শেষ হবে। তিনি আরো বলেন, ঢাকা থেকে চিলাহাটি-হলদীবাড়ী হয়ে জলপাইগুড়ি পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে ‘মিতালী এক্সপ্রেস’ ট্রেন যোগাযোগ চালু হবে শিগগিরই।

এছাড়াও রংপুরের সঙ্গে পঞ্চগড়ের দুটো লোকাল ট্রেনও চালু হচ্ছে শিগগিরই।  

সোমবার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে পঞ্চগড় জেলা সমিতি, ঢাকার ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের সাবেক স্পিকার ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার। বিশেষ অতিথি ছিলেন পঞ্চগড় ১ আসনের সাবেক সাংসদ নাজমুল হক প্রধান। সভায় সভাপতিত্ব করেন পঞ্চগড় জেলা সমিতির সভাপতি মাহমুদুর রহমান ফারুকী।  

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ফাইয়াজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ মনির হোসেন, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ তারিন, পঞ্চগড় জেলা সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ফরহাদ হোসেন আজাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক মানবসম্পদ উন্নয়ন সম্পাদক শাহনেওয়াজ প্রধান শুভ প্রমূখ। বক্তারা পঞ্চগড়ে চা এর তৃতীয় নিলাম মার্কেট স্থাপনে ষড়যন্ত্র বন্ধ করা, অবিলম্বে পঞ্চগড়ে একটি সরকারী মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের জোর দাবী জানান।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, পঞ্চগড় জেলা সমিতি পঞ্চগড়ের সব মানুষের মাঝে চমৎকার সেতুবন্ধন তৈরি করেছে। এখানে সকল দলের মতের মানুষকে একমঞ্চে দেখে বেশ ভালো লাগছে। আমরা ভিন্ন ভিন্ন রাজনৈতিক দল করতে পারি কিন্তু দিন শেষে আমরা পঞ্চগড়ের মানুষ-এই হোক আমাদের পরিচয়।

সাবেক স্পিকার ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, আগে ঢাকায় আসতে ২-৩ দিন সময় লাগতো। তখন আমরা ঢাকাস্থ বৃহত্তর দিনাজপুর সমিতি গঠন করেছিলাম। আমাদের উদ্দেশ্য ছিলো, এলাকার লোকজন বিভিন্ন কাজে ঢাকায় এলে তাদের সেবা প্রদান করা। তিনি সবাইকে মানবিক কাজে এগিয়ে আসার আহবান জানান।  

অনুষ্ঠানে ঢাকায় অবস্থানরত পঞ্চগড় জেলার সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। দলমত নির্বিশেষে ইফতার মাহফিল যেন পঞ্চগড় বাসীর মিলনমেলায় পরিণত হয়।

news24bd.tv/arkabul