মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ
মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

সংগৃহীত ছবি

মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

মাছ ধরা নিয়ে দুই ট্রলারের জেলেদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত সাতজন আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার সোনারচর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আজ বুধবার রাঙ্গাবালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

দুপুরে সাগর থেকে ফিরে কয়েকজন জেলে জানায়, সোনারচরের নিকটবর্তী শিবচর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে জাল পেতে মাছ ধরছিলেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের গঙ্গিপাড়া গ্রামের জসিম হাওলাদারের মালিকানাধীন ট্রলারের জেলেরা। এসময় তাদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে মাছ ধরা পড়ে। যা দেখে চরমোন্তাজের নাজমুল হোসেনের মালিকানাধীন ট্রলারের জেলেরা সেখানে গিয়ে জাল পাতেন। একই জায়গায় জাল পাতা নিয়ে জসিম ও নাজমুলের জেলেদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়।

একপর্যায় রাতে তারা সংঘর্ষে জড়ান। এদের মধ্যে নাসির উদ্দিন খান (৬০), সবুজ হাওলাদার (৪০) ও ইব্রাহিম ফকিরসহ (৩৫) সাতজন আহত হন।

এ ঘটনায় ট্রলারের মালিক জসিম হাওলদারের ছেলে তছলিম হাওলাদার রাঙ্গাবালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

সংঘর্ষে আহত জসিম হাওলাদারের ট্রলারের মাঝি নাসির উদ্দিন খান বলেন, ‘দুই তিনদিন ধরে ওই বোট (ট্রলার) গিয়ে আমাদের মাছ ধরতে দেখে। ঘটনার দিন রাতে এসে আমাদের সামনে এসে খেও দেয় (জাল পাতে)। আমরা জিজ্ঞাসা করতে গেলে আমাদের মারধর করে। পরে আমরা সেখান থেকে চলে আসি। কিছুক্ষণ পর আরও একটি বোট নিয়ে এসে আমাদের ওপর হামলা করে বোটে যা ছিল সব নিয়া গেছে। এসময় আমার হাতে দা দিয়ে কোপ দেয় এবং আমিসহ সাত জেলেকে পিটিয়ে আহত করে। ’

এ ব্যাপারে চরমোন্তাজ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজান বলেন, দুই ট্রলারে জেলে আহত হওয়ার খবর শুনেছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত