যৌন রোগের চিকিৎসার নামে টাকা হাতিয়ে নিতো দম্পতি(ভিডিও)

যৌন রোগের চিকিৎসার নামে টাকা হাতিয়ে নিতো দম্পতি(ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

যৌন সমস্যা ইস্যুতে টেলিমেডিসিন চিকিৎসা সেবার নাম করে কোভিড মহামারীর ২ বছরে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে এক দম্পতিকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মো. রাশেদ হোসেন প্রান্ত (২৭) এবং তার স্ত্রী মৌসুমী খাতুন (২৩)।

তাদের ১৩টি ফেইসবুক আইডি ও ৩টি হোয়াটসঅ্যাপ আইডি ব্যবহারের তথ্য মিলেছে। তাদের কাছ থেকে ৩টি মোবাইল ফোন, ৪টি মোবাইল সিমও জব্দ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) রাজশাহীর শাহ মখদুম থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই দম্পতিকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ।

এরপর দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে এই দম্পতির প্রতারণার বিস্তারিত তুলে ধরেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হাফিজ আক্তার।

জার্মানভিত্তিক আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান ইডব্লিউ ভিলা মেপিকার চিফ লিগ্যাল অফিসার আবু সাঈদ সম্প্রতি একটি ফেইসবুক পেইজ পর্যালোচনা করে দেখতে পান সেখানে তাদের প্রতিষ্ঠানের ডা. তাসনিম খানের পদবী ও মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে অনলাইনে চিকিৎসার নামে ভুয়া প্রেসক্রিপশনের মাধ্যমে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

নিজের প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ন হওয়ার আশঙ্কায় আবু সাঈদ শেরে বাংলা নগর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

সেই মামলার সূত্র ধরে এই দম্পতির সন্ধান মেলে বলে জানান ডিবি কর্মকর্তা হাফিজ।

তিনি বলেন, যৌন সমস্যায় আক্রান্তরা সাধারণত প্রকাশ্যে চিকিৎসকদের কাছে পরামর্শ নিতে সঙ্কোচ বোধ করেন, সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে প্রতারণার জাল ছড়ানো হয়েছিল। এ ধরনের রোগীরা বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতারক চক্রের চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে টেলিমেডিসিন সেবা গ্রহণ করে। গ্রেপ্তাররা দেশের খ্যাতিমান ও জনপ্রিয় চিকিৎসকদের নাম-পরিচয় ব্যবহার করে ফেইসবুকে ভুয়া পেজ খুলে বিজ্ঞাপন দিত। তারা কখনও চিকিৎসক, কখনও চিকিৎসকের সহকারী পরিচয় দিয়ে কণ্ঠ পরিবর্তন করে রোগীদের সঙ্গে কথা বলার পর রোগীদের কাছ থেকে টেলিমেডিসিন সেবার বিনিময়ে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে টাকা হাতিয়ে নিতো। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তাররা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।  

news24bd.tv/আলী

সম্পর্কিত খবর