মারিউপোলে ৯ হাজার লোকের গণকবরের সন্ধান
মারিউপোলে ৯ হাজার লোকের গণকবরের সন্ধান

সংগৃহীত ছবি

মারিউপোলে ৯ হাজার লোকের গণকবরের সন্ধান

উপগ্রহ থেকে পাওয়া চিত্রে মারিউপোলের একটি গণকবরের ছবি দেখা গেছে। রাশিয়ার সেনারা নিহতের সংখ্যা লুকাতে মরদেহ এখানে কবর দিচ্ছে। এ অভিযোগ করেছেন মারিউপোলের মেয়র ভাদিম বয়চেঙ্কো।  স্যাটেলাইট চিত্রগুলি মারিউপোলের বাইরে মানহুশ শহরের একটি বিদ্যমান কবরস্থান থেকে দূরে প্রসারিত কবরের দীর্ঘ সারি দেখায যায়।

স্থানীয় কর্মকর্তারা অভিযোগ করেছেন, রাশিয়া বন্দর নগরী অবরোধে সংঘটিত হত্যাকাণ্ড গোপন করতে সেখানে নয় হাজার ইউক্রেনীয় বেসামরিক নাগরিককে কবর দিয়েছে।

স্যাটেলাইট ইমেজ প্রদানকারী ম্যাক্সার টেকনোলজিস ছবিগুলি প্রকাশ করেছে, যাতে দুইশটিরও বেশি গণকবর দেখানো হয়েছে।  

মারিউপোলের মেয়র ভাদিম বয়চেঙ্কো বলেন, ‘অবরুদ্ধ শহর মারিউপোলে রাশিয়ার ধবংসযজ্ঞ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বেবিন ইয়ারে নাৎসি জার্মানির দ্বারা পরিচালিত গণহত্যার সমান। তিনি বলেন, মারিউপোল হলো ‘একবিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে বড় যুদ্ধাপরাধের দৃশ্য’। এটা নতুন বেবিন ইয়ার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হিটলার যেমন ইহুদি, রোমা এবং স্লাভদের হত্যা করছিলেন, তেমনই এখন পুতিন ইউক্রেনীয়দের নির্মূল করছেন। তিনি ইতিমধ্যে মারিউপোলে কয়েক হাজার বেসামরিক মানুষকে হত্যা করেছেন।  যুদ্ধবিধ্বস্ত মারিউপোলে আটকে থাকা এক লাখ বেসামরিক নাগরিকের ভাগ্য এখন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের হাতে। এসব মানুষের সাথে কী ঘটবে তা পুতিন একাই ঠিক করতে পারেন ‘

এর আগে মারিউপোলকে টানা প্রায় দুই মাস অবরুদ্ধ করে রাখার পর ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় এই বন্দরনগরী দখলের দাবি করেন পুতিন। দুই মাসের এই রুশ অবরোধ ও প্রচণ্ড বোমাবর্ষণে শহরে মানবিক বিপর্যয় সৃষ্টি হয়। ফলে যেসব বাসিন্দা পালিয়ে যাননি তারা বিদ্যুৎ, গরম বা পানি সংকটে ভোগান্তিতে পড়েন।

news24bd.tv/desk