এবার নৌঘাঁটির পাহারায় সামরিক ডলফিন মোতায়েন রাশিয়ার
এবার নৌঘাঁটির পাহারায় সামরিক ডলফিন মোতায়েন রাশিয়ার

সংগৃহীত ছবি

এবার নৌঘাঁটির পাহারায় সামরিক ডলফিন মোতায়েন রাশিয়ার

অনলাইন ডেস্ক

রাশিয়া শত্রুপক্ষের হামলা থেকে নৌঘাঁটি সুরক্ষায় ডলফিন মোতায়েন করেছে। ক্রিমিয়ার কৃষ্ণ সাগর উপকূলের সেভাস্তোপোল নৌ ঘাঁটির প্রবেশপথে অন্তত দুটি ডলফিন মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মার্কিন নৌবাহিনী।  

মার্কিন নৌবাহিনীর ইউএস নেভাল ইনস্টিটিউটের (ইউএসএনআই) এক পর্যালোচনা রিপোর্টে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের শুরুর দিকেই কৃষ্ণ সাগরের সেভাস্তোপল নৌঘাঁটিতে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দুটি সামরিক ডলফিন মোতায়েন করে রাশিয়া।

বন্দরের নৌ ঘাঁটির স্যাটেলাইট চিত্র পর্যালোচনা করে মার্কিন নৌবাহিনীর নেভাল ইনস্টিটিউট জানায়, ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে আক্রমণ শুরুর দিকে রুশ সমুদ্রসীমায় দুটি ডলফিন মোতায়েন করা হয়।

 

যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য ডলফিন প্রশিক্ষণ দেওয়ার ইতিহাস রয়েছে রাশিয়ার। পানির নিচে বিভিন্ন বস্তু উদ্ধার ও শত্রুপক্ষের ডুবুরিদের ঠেকাতে জলজ এই স্তন্যপায়ী প্রাণীটি ব্যবহার করা হয়। সেভাস্তোপোল নৌঘাঁটি রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ঘাঁটি। এটি ক্রিমিয়ার দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত। ২০১৪ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে এটি দখল করে নেয় মস্কো।

সেভাস্তোপোলের কাছে একটি বড় অ্যাকুরিয়ামে ডলফিন প্রশিক্ষণ দেয় রাশিয়া। সোভিয়েত শাসনের শুরু থেকেই এই প্রকল্প চালু রয়েছে। শীতল যুদ্ধের সময় যুক্তরাষ্ট্র ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন সামরিক ডলফিনের ব্যবহারের প্রচলন শুরু করে। সে সময় পানির নিচে শক্তিশালী মাইনের মতো বিস্ফোরক শনাক্তে ডলফিন প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো।
সুত্র : দ্য গার্ডিয়ান।

news24bd.tv/আলী