ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে বাংলাবাজার ঘাটে
ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে বাংলাবাজার ঘাটে

ঢাকায় ফেরা মানুষের চাপ

ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে বাংলাবাজার ঘাটে

 মাদারীপুর প্রতিনিধি

গত দুই বছরের করোনাকাল শেষে এবারের ঈদযাত্রায় ছিল স্বস্তি। ঈদুল ফিতরের ছুটিতে অনেকটা স্বস্তিতে ঢাকা ছেড়েছিল বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ। ছুটি শেষে আবারও স্বস্তিতে নৌপথে ফিরতে শুরু করেছেন তারা। তবে এখনো অনেকে বাড়িতেও ফিরছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদের ছুটি শেষ হলেও ঢাকায় ফেরা মানুষের চাপ বেশি থাকবে আজ ও আগামীকাল শনিবার।

সরেজমিনে আজ শুক্রবার বাংলাবাজার ঘাটে দেখা গেছে, গতকালকের তুলানায় শুক্রবার ঢাকা ফেরা মানুষের ভিড় বেড়েছে। মানুষের ভিড়ে সরগরম ফেরী, লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাট। ফেরীঘাটে যানবাহনের চাপ অপেক্ষাকৃত বেশি থাকায় পারাপারে এসে দুর্ভোগে পড়েন ঢাকামুখী যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা। ঘাটের সংযোগ সড়কে যানবাহনের সিরিয়াল বেশি থাকায় ফেরি পারাপারে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা আটকে থাকতে হচ্ছে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে আসা যাত্রীদের। লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাত্রী চাপ রয়েছে অনেক। তবে যাত্রীরা লঞ্চ-স্পিডবোটে ভোগান্তি ছাড়াই পারাপার হচ্ছেন।

বিআইডব্লিউটিসি বাংলাবাজার ঘাট সূত্র জানায়, ঈদের ছুটি শেষে রাজধানীমুখী যাত্রীরা ভোর থেকেই কর্মস্থলে যোগ দিতে গন্তব্যে ছুটছেন। ভোরের দিকে লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাত্রীদের চাপ হঠাৎ করেই বেড়ে যায়। থেমে থেমে যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে। তবে ফেরিঘাটে কিছুটা ভোগান্তি ছিল।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) বাংলাবাজার লঞ্চঘাট সূত্রে জানা গেছে, বুধবার (৪ মে) বিকেল থেকেই যাত্রীরা ঢাকা ফিরতে শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার (৫ মে) সকাল থেকে যাত্রীদের ভিড় ছিল। আজ শুক্রবারেও চাপ রয়েছে। নৌযানে ধারণ ক্ষমতা মেনে যাত্রী পার করা হচ্ছে। ঝড়ের মৌসুমে সতর্কতার সঙ্গে নৌযান চলাচল করছে। যাত্রীদের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে নৌরুটে ৮৭টি লঞ্চ ও দেড় শতাধিক স্পিডবোট রয়েছে। আবহাওয়া বৈরী হয়ে উঠলেই নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা হয়।

বিআইডব্লিউটিএ’র বাংলাবাজার লঞ্চঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন জানান, কর্মস্থলগামী যাত্রীদের ভিড় বাড়ছে বাংলাবাজার ঘাটে। আগামী বেশ কয়েকদিন এই চাপ থাকবে। তবে নৌযানে ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। আবহাওয়া স্বাভাবিক থাকলে রাত ১০টা পর্যন্ত লঞ্চ চলে।

বিআইডব্লিউটিসি বাংলাবাজার ফেরিঘাট ব্যবস্থাপক সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, রাতদিন ২৪ ঘণ্টা ৫টি ফেরি চলছে। ফলে ঘাটে খুব বেশি ভোগান্তি পোহাতে হবে না যাত্রীদের। বাংলাবাজার-শিমুলিয়া এবং মাঝিরকান্দি-শিমুলিয়া উভয় ঘাট দিয়েই যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। ফেরিতে সাধারণ যাত্রীদের চাপ কমই। তবে মোটরসাইকেল আরোহীদের চাপ রয়েছে।

news24bd.tv/কামরুল

;