মারিওপলের ইস্পাত কারখানা থেকে সব বেসামরিক নাগরিক উদ্ধার
মারিওপলের ইস্পাত কারখানা থেকে সব বেসামরিক নাগরিক উদ্ধার

সংগৃহীত ছবি

মারিওপলের ইস্পাত কারখানা থেকে সব বেসামরিক নাগরিক উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান চালাচ্ছে রাশিয়া। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ভোর থেকে শুরু হয় অভিযান। অভিযানে রাশিয়ার ছোঁড়া বোমা আর রকেটে কেঁপে উঠছে ইউক্রেনের বিভিন্ন শহর। এর মধ্যে ইউক্রেনের বেশ কয়েকটি নগরী দখলে নিয়েছে রুশ বাহিনী।

চলমান যুদ্ধে ইউক্রেনের মারিওপল শহরের ইস্পাত কারখানায় আটকে পড়া সব বেসামরিক নারী, শিশু ও বৃদ্ধকে উদ্ধার করা হয়েছে।

দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী ইরিনা ভেরেশুচুক জানিয়েছেন, মারিপলে মানবিক উদ্ধার অভিযান শেষ হয়েছে। এছাড়া, রাশিয়ার পক্ষ থেকেও একই কথা জানানো হয়েছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি জানিয়েছেন, মারিওপলের আযভস্টল স্টিল প্ল্যান্ট থেকে তিনশ’র বেশি বেসামরিক নাগরিককে উদ্ধার করা হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে সেখান থেকে আহত লোকজন ও সেনাদের উদ্ধার করার পরিকল্পনার কথা বলা হচ্ছে। তবে তা অনেক কঠিন হবে বলে মনে করছেন খোদ ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট।

শনিবার সেখান থেকে তিন শতাধিক বেসামরিক নাগরিককে উদ্ধার করা হয়েছে বলে এক ভিডিও বার্তায় জানান ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

এর আগে, আলাদা এক ভিডিও বার্তায় তিনি জানান, মারিওপলের ইস্পাত কারখানায় আটকে পড়া সেনাদের উদ্ধারে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত আছে। তবে তাদের হত্যা করা হলে রাশিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক আলোচনা স্থগিত করার হুঁশিয়ারিও দেন জেলেনস্কি।

যুদ্ধ শুরুর পর প্রায় দু'মাস অবরুদ্ধ মারিওপলে আটকে আছে ইউক্রেনের অনেক নাগরিক। সবশেষ আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে শহরের আযভস্টল স্টিল প্ল্যান্টে আত্মগোপন করেন নারী, শিশু, বৃদ্ধসহ কয়েকশ যোদ্ধা। পুরো শহর নিয়ন্ত্রণে নিতে পারলেও ইস্পাত কারখানাটি এখনো ইউক্রেনের সেনাদের দখলে রয়েছে। তবে শেষ পর্যায়ে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক রেডক্রসের সহযোগিতায় ওই ইস্পাত কারখানা থেকে বেসামরিক নাগরিকদের বের করে নেয়ার সুযোগ দেয় রাশিয়া।  সূত্র : আল-জাজিরা 

news24bd.tv/রিমু

;