ট্রেনের টিকিটের কালোবাজারি শনাক্ত করতে তদন্ত কমিটি
ট্রেনের টিকিটের কালোবাজারি শনাক্ত করতে তদন্ত কমিটি

প্রতীকী ছবি

ট্রেনের টিকিটের কালোবাজারি শনাক্ত করতে তদন্ত কমিটি

অনলাইন ডেস্ক

ট্রেনের টিকিটের কালোবাজারি শনাক্ত করতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পশ্চিম রেল কর্তৃপক্ষ। গত শুক্রবার পশ্চিম রেলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার রাজশাহী-ঢাকা রুটের সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেন থেকে তিনটি টিকিট সংগ্রহ করেছিলেন। এসব টিকিট কালোবাজারে বেশি দামে কেনা বলে যাত্রীরা জিএমকে জানিয়েছিলেন।

এই টিকিট কে সংগ্রহ করে বেশি দামে বিক্রি করেছেন তা জানতেই রোববার জিএম অসীম কুমার তালুকদার এক অফিস আদেশে দুই সদস্যের কমিটি গঠন করে দিয়েছেন।

তিনি এ কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কমিটির আহ্বায়ক হলেন- পশ্চিম রেলের ডেপুটি চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার গৌতম কুমার কুণ্ড। কমিটির সদস্য হলেন জেলা সংকেত প্রকৌশলী (ডিএসই সদর) আহমেদ ইসতিয়াক জহুর।

জিএম অসীম কুমার তালুকদার জানান, পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে কমিটিকে তার কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ প্রতিবেদনে তিনি জানতে পারবেন কে টিকিট কেটেছিলেন। তারপর ব্যবস্থা নেবেন। টিকিট কালোবাজারি চক্রকে শনাক্ত করতেই এ তদন্ত কমিটি বলে জানান তিনি।

জিএম জানান, ভ্রমণের আগের দিন এক ব্যক্তি ফেসবুকে টিকিটের ছবি দিয়ে জানান যে, তিনগুণ বেশি দামে টিকিট সংগ্রহ করেছেন। তিনি ভেবেছেন এই টিকিটের উৎস খুঁজলেই কালোবাজারি একটি চক্রকে শনাক্ত করা সম্ভব হবে। তাই সেদিন তিনি নিজেই ট্রেনটিতে গিয়ে ওই যাত্রীদের কাছ থেকে তিনটি টিকিট সংগ্রহ করেন। এখন টিকিট কাটতে জাতীয় পরিচয়পত্র লাগে। রেলের নতুন স্লোগান হলো- ‘টিকিট যার, ভ্রমণ তার’। অন্যের জাতীয় পরিচয়পত্রে কেনা টিকিটে ভ্রমণ করাও অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে।  

তিনি জানান, তদন্ত কমিটি দেখবে কার জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে ওই তিনটি টিকিট কাটা হয়েছিল। তাহলেই জানা যাবে কে টিকিট সংগ্রহ করে কালোবাজারে বিক্রি করেছেন। এই চক্রে রেলের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত বলে বেরিয়ে এলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আর যদি তিনি রেলের কেউ না হন তাহলে তার ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হবে।

news24bd.tv/কামরুল

;