স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার প্রভাষক
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার প্রভাষক

সংগৃহীত ছবি

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার প্রভাষক

অনলাইন ডেস্ক

বগুড়ার ধুনটে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে জালশুকা হাবিবুর রহমান কলেজের ইসলামের ইতিহাস বিষয়ের প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুলকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত প্রভাষক মুকুল উপজেলার শৈলমারী গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, প্রভাষক মুকুল ওই স্কুলছাত্রীর পরিবার একই ভবনে বসবাস করেন।

যে কারণে তাদের মধ্যে পরিচয় এবং একে-অপরের বাসায় যাওয়া-আসা ছিল। গত ৩ মার্চ বেলা ১১টার দিকে প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুল ওই ছাত্রীর বাসায় যান এবং পরিবারের কোন সদস্য না থাকায় তার বাসা থেকে ওই স্কুলছাত্রীকে জোড়পূর্বক নিজের বাসায় নিয়ে যান। নিজের বাসায় নেয়ার পর জোড়পূর্বক ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেন প্রভাষক মুকুল। এছাড়াও ধর্ষণের ঘটনার দৃশ্য নিজের মোবাইল ক্যামেরায় ভিডিও ধারন করে। পরবর্তীতে ধর্ষণের ভিডিও দেখিয়ে জোড়পূর্বক গত ২৪ মার্চ এবং ৫ এপ্রিল পুনরায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেন প্রভাষক মুকুল।

সর্বশেষ গত ১২ এপ্রিল ওই স্কুলছাত্রীর বাসায় গিয়ে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে তাকে জড়িয়ে ধরলে সে চিৎকার করে। চিৎকারের শব্দ পেয়ে ওই স্কুলছাত্রীর খালা এগিয়ে এসে প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুলকে আটক করার চেষ্টা করেন। এ সময় প্রভাষক মুকুল ওই স্কুলছাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। পরে স্কুলছাত্রীর কাছ থেকে ঘটনাগুলো জানতে পারেন তার পরিবার।

পরে এ বিষয়ে ওই স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুলকে আসামই করে ধুনট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বৃহস্পতিবার অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়। একইদিন সন্ধ্যায় মামলার আসামই প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুলকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। মামলার আসামই প্রভাষক মুরাদুজ্জামান মুকুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

;