ক্লাস বন্ধ রেখে শ্রেণিকক্ষে ধান শুকাচ্ছেন প্রধান শিক্ষিকা
ক্লাস বন্ধ রেখে শ্রেণিকক্ষে ধান শুকাচ্ছেন প্রধান শিক্ষিকা

ক্লাস বন্ধ রেখে শ্রেণিকক্ষে ধান শুকাচ্ছেন প্রধান শিক্ষিকা

ক্লাস বন্ধ রেখে শ্রেণিকক্ষে ধান শুকাচ্ছেন প্রধান শিক্ষিকা

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

নাটোরের সিংড়া উপজেলার কালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩টি শ্রেণি কক্ষে গত ৬ মে থেকে ধান শুকাচ্ছেন কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা কোহিনূর পারভীন। ৩ টি শ্রেণি কক্ষের শিক্ষার্থীদের বসার ব্রেঞ্চে একটি আরেকটির উপর রেখে ধান শুকাচ্ছেন তিনি। এলাকাবাসীর অভিযোগ, বেশ কিছুদিন ধরে বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে ধান রেখে শুকাচ্ছেন প্রধান শিক্ষিকা। এমনকি তিনি সেখানে বস্তায় ধান রেখেই একটি কক্ষে ক্লাস করাচ্ছেন।

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী মারুফ জানান, আমি গত ৭ তারিখ থেকেই ৩ টি কক্ষে ধান রাখা দেখেছি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধান রাখার কারণে আমাদের এই রুমে ক্লাস করতে সমস্যা হচ্ছে।

কালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেন বলেন, আমাদের প্রথমিক বিদ্যালয়ের নির্মিত নতুন ভবনে শিফটিং হওয়ায় করোনাকালীন সময়ে আমাদের পুরাতন ভবনে উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্লাস করানো জন্য আমার কাছ থেকে শ্রেনী কক্ষের চাবি নেয় প্রধান শিক্ষিকা।

কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কোহিনূর পারভিন বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে শ্রেণী কক্ষের তিনটি পরিত্যক্ত রুমে আমি ধান রেখেছি। আবহাওয়া অনুকূলে আসলে ধান সরিয়ে নেবো।  

কলম ইউপি চেয়ারম্যান মঈনুল হক চুনু বলেন, অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা আমার নিকট জানালে আমি সত্যতা যাচাইয়ের জন্য লোক পাঠাই। ঘটনার সত্যতা পেয়ে আমি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরকে অবগত করি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম সামিরুল ইসলাম বলেন, আমি তথ্য পেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক কর্মকর্তাদেরকে সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেই।

news24bd.tv/রিমু