১ হাজার ইউক্রেনীয় সৈন্য বন্দী করেছে রাশিয়া
১ হাজার ইউক্রেনীয় সৈন্য বন্দী করেছে রাশিয়া

সংগৃহীত ছবি

১ হাজার ইউক্রেনীয় সৈন্য বন্দী করেছে রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক

মারিউপোলে আরও ৭ শতাধিক ইউক্রেনীয় সৈন্য আত্মসমর্পণ করেছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া। দেশটির দাবি প্রায় ১ হাজার ইউক্রেনীয় সৈন্যকে বন্দী করে রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে নেওয়া হয়েছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সব মিলিয়ে অন্তত ৯৫৯ জন ইউক্রেনীয় সৈন্যকে রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে সরিয়ে নিয়েছে তাঁরা। বুধবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি ও বার্তা সংস্থা রয়টার্সের পৃথক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষ এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি ঠিক কতজন সৈন্যকে মারিউপোল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে, দেশটি রাশিয়াকে বন্দী বিনিময়ের আহ্বান জানিয়েছে। রাশিয়া এখনো সেই আহ্বানে সাড়া দেয়নি।  

এর মাধ্যমে কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ এই বন্দরনগরীতে ইউক্রেনীয় প্রতিরোধ যোদ্ধাদের শেষ প্রধান ঘাঁটি দখলে নেয় রুশ সেনারা।  

সোমবার গভীর রাতে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সাঁজোয়া যানের পাহারায় বেশ কিছু বাস আজভস্টাল ইস্পাত কারখানা ছেড়ে যায়। এর মধ্যে পাঁচটি বাস রুশ-নিয়ন্ত্রিত শহর নভোজভস্কে পৌঁছেছে। মস্কোর দাবি, সেখানে আহত যোদ্ধাদের চিকিৎসা করা হবে।

এছাড়া আজভস্টাল কারখানা থেকে ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের বহনকারী সাতটি বাস ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় ডনবাস অঞ্চলের দোনেতস্কের কাছে রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত ওলেনিভকা শহরে একটি কারাগারে পৌঁছেছে। রয়টার্সের একজন প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

রয়টার্সের প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, ওলেনিভকায় পৌঁছানো অন্তত একটি বাসে কয়েকজন নারীও ছিলেন। বেশিরভাগ পুরুষের মতো কিছু নারী জলপাই সবুজ ইউনিফর্ম পরে ছিলেন। তাদের সবাইকে বেশ ক্লান্ত দেখা যাচ্ছিল। এছাড়া একজনকে বাসের মেঝেতে স্তুপ করা ব্যাগের ওপর বিশ্রামও নিতে দেখা যায়।

রয়টার্স বলছে, আত্মসর্পণের পর এখন এসব ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের কী হবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। ক্রেমলিন বলছে, বন্দীদের সাথে আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী আচরণ করা হবে বলে ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চয়তা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এছাড়া ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা বলছেন, রাশিয়ান বন্দীদের সঙ্গে আত্মসমর্পণ করা ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের বিনিময় করা যেতে পারে।

রুশ বার্তাসংস্থা তাস জানিয়েছে, আত্মসমর্পণ করা সৈন্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করার পরিকল্পনা করেছে রাশিয়ার একটি কমিটি। মূলত ‘ইউক্রেনীয় রাষ্ট্রীয় অপরাধের’ বিরুদ্ধে তদন্তের অংশ হিসেবে এসব সেনাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এছাড়া বন্দী ইউক্রেনীয় এসব যোদ্ধাদের বেশিরভাগই আজভ ব্যাটালিয়নের সদস্য।

রাশিয়া বলছে, আজভস্টাল ইস্পাত কারখানায় যেসব সশস্ত্র ব্যক্তি আটকা পড়েছে তাদের বেশিরভাগই নব্য নাৎসীবাদী চেতনায় উজ্জীবিত আজভ রেজিমেন্টের সেনা। এসব ব্যক্তির নাৎসীবাদীদের প্রতীক সম্বলিত পোশাক রয়েছে এবং তাদের গায়ে স্বস্তিকা প্রতীকের ট্যাটু দেখা যায়।
news24bd.tv/আলী