নর্থ সাউথের জমি ক্রয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট
নর্থ সাউথের জমি ক্রয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট

সংগৃহীত ছবি

নর্থ সাউথের জমি ক্রয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট

অনলাইন ডেস্ক

বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের  ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্যদের বিভিন্ন জায়গায় শত শত বিঘা জমি কেনার উদ্দেশ্য নিয়ে বুধবার প্রশ্ন তুলেছেন হাইকোর্ট। একটি দুর্নীতি মামলায়  নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টিদের করা আবেদনের শুনানিকালে বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মোঃ ইজারুল হক আকন্দের ডিভিশন বেঞ্চ এ পর্যবেক্ষণ দেন। হাইকোর্ট আংশিকভাবে সব পক্ষের জামিনের যুক্তিতর্ক শুনে শুনানি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মুলতবি করেন।

এর আগে গত ৫ মে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জমি কেনা বাবদ অতিরিক্ত ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয় দেখিয়ে তা আত্মসাতের অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

দুদকের উপ-পরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী ঢাকায় এ মামলা করেন।

মামলার আসামরি হলেন- নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আজিম উদ্দিন আহমেদ, বোর্ডের চার সদস্য এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান, মোহাম্মদ শাহজাহান এবং আশালয় হাউজিং অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিন মো. হিলালী।

এজাহারে বলা হয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে পাশ কাটিয়ে ট্রাস্টি বোর্ডের কয়েকজন সদস্যের অনুমোদন/সম্মতির মাধ্যমে ক্যাম্পাস উন্নয়নের নামে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ৯ হাজার ৯৬ দশমিক ৮৮ ডেসিমেল জমি কেনার নামে এ টাকা আত্মসাৎ করেছে আসামিরা। তারা ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত জমির লেনদেন করেছে। ট্রাস্টিরা অতিরিক্ত মূল্যায়নের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০০ কোটি টাকা ব্যয় করেছে। তারা জমির প্রকৃত মূল্যের চেয়ে ৩০০ কোটি টাকা বেশি পরিশোধ করেছে। পরে জমির মালিক আমিন মোঃ হিলালী ট্রাস্টি সদস্যদের ব্যক্তিগতভাবে ঘুষের টাকা ফেরত দেন। আসামিদের মধ্যে কাশেম, বেনজীর, রেহানা ও শাজাহান জামিন আবেদন করেন।

বুধবার শুনানির সময়, ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, ব্যারিস্টার ফিদা এম কামাল এবং অ্যাডভোকেট এএফ হাসান আরিফ, যারা আসামিদের পক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন, দাবি করেছিলেন যে তাদের মক্কেল সমাজের উচ্চ শ্রেণীর এবং 'প্রণোদিত' মামলায় পুলিশি হয়রানি এড়াতে তাদের জামিন প্রয়োজন। তারা আরও বলেন, টাকা আত্মসাতের অনুমানের ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছে কিন্তু সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই।

কৌঁসুলিরা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির একই ইস্যুতে হাইকোর্ট কর্তৃক নিষ্পত্তি করা আগের একটি রিট পিটিশনের উল্লেখ করেছেন।

তবে দুদকের কৌঁসুলি খুরশীদ আলম খান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টিরা সংগঠিত অপরাধ করেছে এবং তারা আগাম জামিন পাওয়ার যোগ্য নয়। তিনি বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা শুধু অর্থ আত্মসাৎ করেনি, পাচারও করেছে।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি সদস্যদের সামাজিক অবস্থান প্রশমিত করার কারণ নয়। যেকোনো দেশের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, আইন প্রণেতাসহ উচ্চপদস্থ ব্যক্তিরা মামলার মুখোমুখি হন। তাই আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের  ট্রাস্টি সদস্যরা সংগঠিত অপরাধ করেছে এবং অর্থ পাচার করেছে। আসামিরা জামিন পাওয়ার যোগ্য নয়, বলেন দুদকের আইনজীবী।

আগের পিটিশন সম্পর্কে, তিনি বলেছিলেন যে হাইকোর্ট তখন পর্যবেক্ষণ করেছে যে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় একটি অলাভজনক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং এর ট্রাস্টিদের অপ্রয়োজনীয় উদ্দেশ্যে অর্থ ব্যয় করা উচিত নয়। এনএসইউ বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্যদের দুর্নীতি নিয়ে দৈনিক ইত্তেফাকের একটি প্রতিবেদনও পড়ে শোনান খুরশীদ।

দুদক মামলা করেছে এবং এতে পুলিশের কিছু করার নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, পুলিশি হয়রানির বিষয়ে আসামিদের দাবি ভিত্তিহীন।

আগাম জামিনের জন্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের কিছু নির্দেশিকা উদ্ধৃত করে, আইনজীবী বলেছেন, যে কোনও অননুমোদিত হয়রানির আশঙ্কা করছেন এমন ব্যক্তিকে আগাম জামিন দেওয়া উচিত।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি সদস্যদের জন্য প্রযোজ্য নয়। তারা ট্রায়াল কোর্টে যাবে। গতকাল (মঙ্গলবার) ১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় আরশেদ আলীকে কারাগারে পাঠান বিচারিক আদালত। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি সদস্যরা ৩০০ কোটি টাকা অপব্যবহার করেছেন। সুতরাং, এটি একটি বড় পরিমাণ এবং বড় অপরাধ। আমি তাদের রিমান্ড চেয়ে ট্রায়াল কোর্টে আবেদন করতে পারি, তিনি বলেছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত হয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন জামিন আবেদনের বিরোধিতা করেন কারণ এনএসইউর ট্রাস্টি সদস্যরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল আত্মসাৎ করেছে এবং সংগঠিত অপরাধ করেছে।

আবেদনকারীদের আইনজীবীরা আগের একটি পিটিশনের কথা উল্লেখ করলেও এনএসইউর জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুরে ২০০ বিঘা জমি কেনার বিষয়ে ওই পিটিশনটি দায়ের করা হয়েছিল। রূপগঞ্জে জমি ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগে মামলায় ট্রাস্টিদের আসামি করা হয়। তাই অভিযুক্তরা আগের রিটের সুবিধা নিতে পারবে না। এই পর্যায়ে, এনএসইউ বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের সদস্যদের দ্বারা বিভিন্ন জায়গায় কয়েকশ বিঘা জমি কেনার উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলেন হাইকোর্ট।

news24bd.tv/আলী