'সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো হাট- বাজার নয়'
'সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো হাট- বাজার নয়'

ফাইল ছবি

'সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো হাট- বাজার নয়'

শাহনাজ ইয়াসমিন

হাট-বাজার (স্থাপন ও ব্যবস্থাপনা) আইন-২০২২ এর খসড়াতে নীতিগত অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। এর ফলে সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো হাট- বাজার বসানো যাবেনা। সেক্ষেত্রে স্থায়ী হাট-বাজারের জন্য জেলা প্রশাসকের অনুমতি লাগবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।  

আজ বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে সচিবালয়ে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, কেউ যদি সরকারের অনুমতি ছাড়া হাট-বাজার বসায় তাহলে সেটা খাস জমি হিসেবে নিয়ে নিবে সরকার এবং ৫ লাখ টাকা জরিমানা ও এক বছরের কারাদণ্ড দেয়া হবে।

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম আরও বলেন, ভূমি উন্নয়ন কর আইনের খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।  এর ফলে  ২৫ বিঘা পর্যন্ত যাদের জমি আছে তাদের কর দিতে হবেনা। এর বেশি হলেই পুরো জমির কর দিতে হবে। এছাড়া কারো যদি খাজনা দেয়া ৩ বছর বাকি থাকে তাহলে প্রতি বছরের করের সাথে ৬.২ শতাংশ বেশি দিতে হবে।

ভূমি সংস্কার আইনের নীতিগত অনুমোদনের ফলে কৃষি এবং কৃষি পণ্য শিল্পের জন্য ব্যক্তি মালিকানাধীন ৬০ বিঘা জমি থাকার যে বিধান সেটা মানার প্রয়োজন হবেনা বলেও জানান তিনি।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বাংলাদেশের ভ্যাক্সিন কার্যক্রমের জন্য প্রশংসা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। আগামী বছরে স্বাস্থ্যখাতে ব্যয়ের জন্য বাংলাদেশকে ৯৪০ মিলিয়ন দিবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু জুন মাসের শেষের দিকে উদ্বোধন করা হবে। জুনের শেষ সপ্তাহের আগেই কাজ শেষ হয়ে যাবে। এ বিষয় নিয়ে আগামী ৫ থেকে ৬ দিনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী কথা বলবেন।

তিনি আরও বলেন, পদ্মাসেতুর টোল বেশি ধরা হয়নি। যদি বেশি মনে করা হয় তাহলে সরকার পরে সেটা বিবেচনা করবে। তবে, টাকাটা ১৫ থেকে ১৬ বছরের মধ্যেই উঠে যাবে।  

news24bd.tv/রিমু