ফুটবল মাঠে হুড়োহুড়িতে যত বিপর্যয়
ফুটবল মাঠে হুড়োহুড়িতে যত বিপর্যয়

সংগৃহীত ছবি

ফুটবল মাঠে হুড়োহুড়িতে যত বিপর্যয়

সাজ্জাদ সাব্বির

ইন্দোনেশিয়ার পূর্বাঞ্চলের মালাং শহরে ফুটবল খেলা নিয়ে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ১৮০ ছাড়িয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অনেকে। শনিবার রাতে শহরের কানজুরুহান ফুটবল স্টেডিয়ামে আরেমা এফসি ও পেরসেবায়া সুরাবায়া নামের দুটি ফুটবল ক্লাবের মধ্যে খেলা চলছিল। খেলায় আরেমাকে ৩-২ গোলে হারায় পেরসেবায়া।

 

দুই দশকের বেশি সময়ের মধ্যে পেরসেবায়ার কাছে প্রথম হারের বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি আরেমার ভক্ত-সমর্থকরা। ক্ষোভে মাঠে নেমে তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন। তাদের থামাতে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। এতে দর্শকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

এ সময় হুড়োহুড়িতে অনেকেই পদদলিত হয়ে নিহত হন।  

ফুটবল মাঠে হুড়োহুড়িতে কিংবা আতঙ্কিত হয়ে পদদলিতের এরকম আরও কিছু বিপর্যয়ের ঘটনা পূর্বেও ঘটেছে। নিচে সেগুলোই পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো: 

২০ অক্টোবর, ১৯৮২: মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে উয়েফা কাপ ম্যাচে স্বাগতিক স্পার্টাক মস্কো এবং নেদারল্যান্ডসের ক্লাব হারলেমের ম্যাচ দেখে হুড়োহুড়ি করে বেরোবার সময় পদদলিত হয়ে ৬৬ জনের মৃত্যু হয়।  

২৮ মে, ১৯৮৫: ব্রাসেলসের হাইসেল স্টেডিয়ামে জুভেন্টাস-লিভারপুলের মধ্যকার ইউরোপিয়ান কাপের ফাইনালে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৩৯ জনের মৃত্যু হয়।

১৩ মার্চ, ১৯৮৮: নেপালদের কাঠমান্ডুতে শিলাবৃষ্টি থেকে বাঁচতে হাজারও ছুটাছুটি শুরু করেন স্টেডিয়াম থেকে বের হতে। তবে স্টেডিয়ামের দরজা বন্ধ থাকায় এসময় পদদলিত হয়ে ৯৩ জনের মৃত্যু হয়।  

১৫ এপ্রিল, ১৯৮৯: ইংল্যান্ডে শেফিল্ডের মাঠ হিলসব্রোতে দর্শকদের উপচে পড়া ভিড়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে। সেসময় ৯৬ জনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনায় আহত একজনের মৃত্যু হয় আবার গেল বছরের জুলাইতে। জানা যায়, ১৯৮৯ সালের ওই দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার পর আর কখনও সুস্থ হননি তিনি এবং হিলসব্রোতে পাওয়া চোটের কারণেই মৃত্যু হয়েছে তার।  

১৩ জানুয়ারি, ১৯৯১: দক্ষিণ আফ্রিকার ওপেনহেইমার স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া সংঘাত থেকে বাঁচতে গিয়ে ৪২ জনের মৃত্যু হয়।  

১৬ অক্টোবর, ১৯৯৬: গুয়েতমালা সিটিতে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে স্বাগতিক গুয়েতেমালা এবং কোস্টারিকার লড়াই শুরুর আগে আতঙ্কিত দর্শকরা হুড়োহুড়ি লাগায়। সে সময় দুর্ঘটনায় ৮৪ জন জন নিহত হন, আহত হন প্রায় ১৪৭ জন।

১১ এপ্রিল, ২০০১: দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের এলিস পার্ক স্টেডিয়ামে একটি ফুটবল ম্যাচ চলাকালীন সংঘর্ষে প্রায় ৪৩ জনের প্রাণহানি ঘটে।  

৯ মে ২০০১: ঘানার রাজধানী আকরায় একটি ম্যাচ চলাকালীন সমর্থকদের সংঘর্ষ থামাতে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। সেসময় আতঙ্কিত হয়ে মারা যান ১২০ জন।

news24bd.tv/মামুন

এই রকম আরও টপিক