ওয়েলসের পরবর্তী প্রজন্মকে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বেল
ওয়েলসের পরবর্তী প্রজন্মকে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বেল

সংগৃহীত ছবি

ওয়েলসের পরবর্তী প্রজন্মকে স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বেল

অনলাইন ডেস্ক

১৯৫৮ সালে ব্রাজিলের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে হারের পর আর কখনোই বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি ওয়েলস। এ প্রজন্মের তারকা ফুটবলার গ্যারেথ বেলের আজন্ম আক্ষেপের নাম হয়ে থাকতো বিশ্বকাপে খেলা। ফুটবল বিধাতা বোধয় এতটাও নিষ্ঠুর নয়। ক্যারিয়ারের পড়ন্ত বেলায় বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে গ্যারেথ বেলের ওয়েলস।

সোমবার দিবাগত রাত ১টায় গ্রুপ বি-এ যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে লড়বে ওয়েলস। যা ৩০ লাখ জনসংখ্যার ছোট্ট দেশটির পরবর্তী প্রজন্মকে স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের স্বাদ পেয়েছেন। সেই সাথে তিনবার জিতেছেন স্প্যানিশ লিগ চ্যাম্পিয়নশিপ।

এসব বোধয় ততোটাও মধুর নয় যতটা মধুর নিজ দেশের জার্সি গায়ে জড়িয়ে বিশ্বকাপে খেলা। সেই মধুর স্বাদ পেতে চলেছেন ৩৩ বছর বয়সী গ্যারেথ বেল। প্রথমবারের মতো দলকে নিয়ে গেছেন বিশ্বকাপের মঞ্চে। বাহবা যেমন পাচ্ছেন তেমনি তাকে ঘিরে স্বপ্নবাজ হতে শুরু করেছে দেশটির তরুণ প্রজন্ম। এরইমধ্যে ওয়েলসের ম্যাচের দিন বন্ধ করা হয়েছে স্কুলগুলি। দলকে প্রতিনিধিত্ব করার বিশেষ সেই অনুভূতির কথা জানিয়েছেন বেল।

বেল বলেন, ‘স্কুলগুলি আমাদের খেলা দেখতে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বাচ্চারা স্কুল মিস করতে চলেছে। সুতরাং এটি সেই মুহূর্তগুলির মধ্যে একটি যা আমাদের দেশের ইতিহাসের একটি বিশাল অংশ। এটি এমন কিছু যা আমরা সবাই দীর্ঘকাল ধরে চেয়েছিলাম। ’

২০১৬ সালে ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে পৌঁছেছিল ওয়েলস। সেবার চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালের কাছে হেরে গিয়েছিল বেলের দল। তবে কখনোই খেলা হয়নি বিশ্বকাপের মঞ্চে। বিশ্বকাপের ম্যাচ ঘিরে বেশ রোমাঞ্চিত বেল। ফিরে গেছেন নিজের অতিতে ১৯৯৮ সালে। যখন তার বয়স ছিল মাত্র ৮ বছর।

বেল বলেন, ‘আমার মনে আছে এই পেন্সিলের কেসটিতে লোগো আছে। বিশ্বকাপ দেখার পরিপ্রেক্ষিতে, এটি সবসময় কিছুটা হতাশাজনক ছিল কারণ ওয়েলস সেখানে ছিল না। একটি শিশু হিসাবে, বিশ্বকাপে আপনার দেশ না থাকা, এটি তার থেকে সেই সামান্য বিশেষত্বকে দূরে সরিয়ে নেয়। ’

পরবর্তীতে সেই দুঃখকে শক্তিতে পরিণত করে ফুটবলার হয়েছেন বেল। ছাপিয়ে গেছেন পেছনের সব। মাত্র ১৬ বছর বয়সে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ২০০৬ সালে জাতীয় দলের অভিষেক হয় বেলের। এরপর জাতীয় দলের হয়ে ১০৮ ম্যাচে মাঠে নেমে ৪০টি গোল করেছেন তিনি। যা দেশটির ইতিহাসে সর্বোচ্চ।  

সতীর্থের এমন পারফরমেন্সে ওয়েলস মিডফিল্ডার জনি উইলিয়ামস বলেন, ‘আমি মনে করি তিনি একজন সত্যিকারের নেতা হয়ে উঠেছেন। পুরুষদের একজন নেতা যিনি উদাহরণ স্থাপন করেছেন। ’

ম্যাচের আগে বেলের প্রশংসা করেছেন প্রতিপক্ষ যুক্তরাষ্ট্রের উইঙ্গার জর্ডান মরিস। তিনি বলেন, ‘বেল একজন অসাধারণ খেলোয়াড়, একজন কিংবদন্তি। সে খুব বেশি সময়ের জন্য আসে না। এটি একটি বিশাল প্রভাব ফেলে। ’

এবারের বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জনকারী সবচেয়ে ছোট্ট দেশ ওয়েলস। মাত্র ৩ মিলিয়ন জনসংখ্যার এ দেশটির তরুণ প্রজন্ম আগামীতে ফুটবলে আরো উদ্বোধ হবেন বলেই মনে করেন বেল।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের জন্য এটি করা সবচেয়ে ভালো ছিল। আমাদের দেশে ফুটবলের বিকাশ ঘটানো, অন্য প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করা, যাতে আরও বেশি বাচ্চারা ফুটবল খেলতে পারে। এটি করার মাধ্যমে, আমরা আশা করি ভবিষ্যতে একটি শক্তিশালী জাতীয় দল পাব। ’

news24bd.tv/আমিরুল

এই রকম আরও টপিক