স্ত্রীকে অচেতন করে নাতনিকে ২ বছর ধরে ধর্ষণ

স্ত্রীকে অচেতন করে নাতনিকে ২ বছর ধরে ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

১৫ বছরের নাতনিকে ধর্ষণের অভিযোগে ৫৫ বছরের নানাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নানা আবুল হোসেন হাওলাদার ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রায় দুই বছর ধরে ধর্ষণ করে আসছিলেন নিজের মেয়ের ঘরের ওই কিশোরী নাতনিকে।

সর্বশেষ গত শনিবার (২২ জুলাই) রাতে নানা আবুল হোসেন উপর্যুপরি ধর্ষণ করায় অসুস্থ হয়ে পড়ে মেয়েটি। পরদিন রোববার সকালে অসুস্থ অবস্থায় এক খালাতো বোন তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

এ সময় নানার হাতে ধর্ষণের কারণে সে অসুস্থ হয়েছে বলে চিকিৎসকের কাছে স্বীকার করে। এ ঘটনায় মেয়েটির নানির ছোট বোন রেনু বেগম বাদী হয়ে শরণখোলা থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মেয়েটির দরিদ্র মা-বাবা কয়েক বছর আগে কাজের সন্ধানে ভারতে পাড়ি জমান। তাদের মেয়েকে রেখে যান উপজেলা সদরের রায়েন্দা ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকায় বসবাসরত নানা আবুল হোসেন হাওলাদার ও নানি রেবু বেগমের কাছে।

একই ঘরে বসবাসের কারণে নানা আবুল হোসেনের কুদৃষ্টি পড়ে নাতনির ওপর। এরপর নিজের স্ত্রীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে নাতনিকে ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রায় দুই বছর ধরে ধর্ষণ করতে থাকেন নানা আবুল হোসেন।

শরণখোলা থানার ওসি মো. ইকরাম হোসেন জানান, নাতনিকে ধর্ষণের অভিযোগে চা দোকানি নানা আবুল হোসেন হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করে বাগেরহাট আদালতে পাঠানো হয়েছে। তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে প্রায় দুই বছর ধরে নাতনিকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এই রকম আরও টপিক