দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত স্থগিত চেয়ে উপাচার্য কলিমউল্লাহর রিট
দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত স্থগিত চেয়ে উপাচার্য কলিমউল্লাহর রিট

দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত স্থগিত চেয়ে উপাচার্য কলিমউল্লাহর রিট

অনলাইন ডেস্ক

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) গঠিত তদন্ত কমিটির কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে রিট করেছেন রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ।  

অধ্যাপক কলিমুল্লাহ তার আইনজীবী মো. শহিদুল ইসলামের মাধ্যমে গত ২৩ মে এই রিট আবেদন করেন।

রিটে তদন্ত কমিটির আহ্বায়কের কক্ষে ২০ মে হাজির হতে, পাঁচ দিনের মধ্যে জবাব দিতে ও হাজির না হলে আগে দেওয়া জবাব অনুযায়ী পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে বলে ইউজিসির দেওয়া চিঠির বৈধতা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়েছে। সেই সঙ্গে এই চিঠির কার্যক্রমও স্থগিত চাওয়া হয়েছে।


এ সব তথ্য নিশ্চিত করে আইনজীবী শহিদুল ইসলাম বৃহস্পতিবার বলেন, ইউজিসি গত ১৩ এপ্রিল অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর ওপর বেরোবিতে দুজন কর্মচারি নিয়োগের ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ এনে ওই নিয়োগের প্রাসঙ্গিক নথি ইউজিসিতে উপস্থিত হতে একটি নোটিশ জারি করে। পরে, গত ১২ মে ড. কলিমুল্লাহ ইউজিসির কাছে চলমান লকডাউন শেষে হাজির হওয়ার জন্য সময় চেয়ে একটি আবেদন পাঠিয়েছিলেন।

আইনজীবী শহিদুল বলেন, কিন্তু ওই আবেদনের নিষ্পত্তি না করেই ইউজিসির সিনিয়র সহকারী সচিব (আইন) কলিমুল্লাহকে প্রাসঙ্গিক কাগজপত্রসহ ২০ মে ইউজিসিতে হাজির হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আরেকটি নোটিশ জারি করেন।

এটি অবৈধ এবং এর কোনো আইনি ভিত্তি নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবং ইউজিসির আইনজীবী অরবিন্দ কুমার রায় এই রিট আবেদনের অনুলিপি পেয়েছেন বলে  নিশ্চিত করেছেন।

প্রসঙ্গত, উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে ওঠা উল্লেখযোগ্য অভিযোগগুলো হচ্ছে, রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা অমান্য করে ক্যাম্পাসে ধারাবাহিক অনুপস্থিতি, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া, ইউজিসির নির্দেশনা অমান্য করে জনবল নিয়োগ, শিক্ষক ও জনবল নিয়োগে দুর্নীতি ও অনিয়ম, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ভিসি হয়েও অনুপস্থিতি থাকা, নিরাপত্তাহীন ক্যাম্পাস, ইচ্ছেমতো পদোন্নতি, আইন লঙ্ঘন করে একাডেমিক ও প্রশাসনিক পদ দখল এবং ক্রয়প্রক্রিয়ায় নীতিমালা লঙ্ঘন।

news24bd.tv/আলী 

;