আমরা বাংলাদেশের ছেলে এহসানকে চিনিনা, পরিমনি-পিয়াসাদের চিনি
আমরা বাংলাদেশের ছেলে এহসানকে চিনিনা, পরিমনি-পিয়াসাদের চিনি

শান্তা আনোয়ার

আমরা বাংলাদেশের ছেলে এহসানকে চিনিনা, পরিমনি-পিয়াসাদের চিনি

Other

কে সত্য বলছে আর কে মিথ্যা বলছে এইটা কীভাবে শনাক্ত করা যায়? জার্মানেরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ব্যবহার করতো স্কোপোলামিন বলে একটা ওষুধ।  

স্কোপোলামিন ইঞ্জেকশন দিয়ে বন্দিকে ইন্টারোগেট করলে বন্দি সত্য উত্তর দিতো। অবশ্য এটা এখনো ব্যবহার করা হয় এনেস্টহেসিয়া দেবার জন্য। কুখ্যাত কেজিবি ব্যবহার করতো SP-17 নামে একটা ওষুধ।

স্কোপোলামিন ছাড়াও জার্মান বিজ্ঞানীরা এটাও আবিষ্কার করেছিলেন যে এল এস ডি নিলে মানুষ সত্য বলে। অবশ্য আমাদের দেশে ফ্রুটিকা খেলে সত্য কথা বের হয়ে আসে বলে ফ্রুটিকা কোম্পানিও দাবি করে।

তবে, ডেটা সাইন্স ব্যবহার করে কথা বলার সময়ে মুখের অভিব্যক্তি বিশ্লেষণ করে সত্য আর মিথ্যা ধরার একটা পদ্ধতি বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন।  

news24bd.tv

আমেরিকার সেই গবেষণার আলাপে যাওয়ার আগে এই ছবিটা দেখুন। এই ছবির ছয় জনের মধ্যে একজন মিথ্যে কথা বলছে। কে মিথ্যা কথা বলছে সেটা কী ধরতে পারবেন? অনুমান করুন, আমরা শেষে দেখবো কে মিথ্যা কথা বলছিলো।  

দশ লক্ষ মানুষের মুখের অভিব্যক্তি বিশ্লষণ করে গবেষকেরা মিথ্যা এবং সত্য বলার সময়ে দুইটা গুরুত্বপূর্ণ মুখের অভিব্যক্তি শনাক্ত করেছেন। ছবির উপরের সারির বামদিকে সবুজ সোয়েটার পরা যুবক, সত্যি কথা বলছে।  

যারা সত্যি কথা বলে তারা সাধারণত নিবিষ্ট হয়ে চোখ সরু করে কখনো অন্যদিকে তাকিয়ে কথা বলে কারণ তারা ঘটনার সময়ের মাইনর ডিটেইল মনে করতে চায় তাই তার মনোযোগ সে ঘটনার স্মরণ করার জন্য পরিপূর্ণভাবে নিবিষ্ট করে।  

নিচের সারির মাঝের বিশাল হাসি দেয়া লোকটা মিথ্যে কথা বলছে। হাসি যখন চোখ পর্যন্ত বিস্তৃত হয় সেটাকে বলে Duchenne smile (ডুচেন্নে স্মাইল)। এই হাসি যারা দেয় কথা বলার সময়ে তারা মিথ্যে বলে। মিথ্যে বলে একজনকে বোকা বানিয়ে দেয়ার আনন্দে সে হাসে।   

এই হাসিটা চাইলেও সে থামাতে পারবেনা। গালের যেই মাংসপেশী এই হাসির জন্য দায়ী সেটা কেউই নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা। তাই সচেতন চেষ্টাতেও এই শয়তানি হাসি আপনি থামাতে পারবেন না।  

আরও পড়ুন:


ইউটার্ন করেছে দেশের অর্থনীতি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের একাংশ চালু হবে আগামী বছর: ওবায়দুল কাদের

অবশেষে খুঁজে পাওয়া গেল ‘নিখোঁজ’ পপিকে


এই গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার কে করেছে জানেন? একজন বাংলাদেশের ছেলে নাম এহসান হক।

এম আইটির পিএইচ ডি ২০১৩ সালে। এখন রচেষ্টার ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার বিজ্ঞানে শিক্ষকতা করেন। আমরা এহসান হককে চিনিনা, আমরা চিনি পরিমনি, পিয়াসা আর হেলেনা জাহাঙ্গিরদের। আমাদের ফেইসবুকের নিউজফিড ছয়লাব হয়ে থাকে তাদের গল্পে। এইবার আসেন আমরা এহসান হকদের চিনি। তাদের কথাও বলি।

লেখাটি শান্তা আনোয়ার- এর ফেসবুক থেকে নেওয়া (সোশ্যাল মিডিয়া বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়। )

news24bd.tv নাজিম