নোয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন
নোয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সংগৃহীত ছবি

নোয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী তাসনিয়া হোসেন অদিতাকে (১৪) ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে নোয়াখালীতে মানববন্ধন ও শোক র‌্যালি করেছে শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষ। এ সময় ঘাতকদের সর্ব্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে করেন তারা।  

শনিবার দুপুর দেড়টা থেকে বিকাল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত জেলা শহর মাইজদী প্রধান সড়ক, জেলা প্রশাসক কার্যালয়, নোয়াখালী প্রেসক্লাব ও স্ব স্ব স্কুলের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়। এ সময় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

এদিকে পুলিশ সুপার অপরাধী শনাক্তে মাইজদী ও চৌমুহনীতে দুইশত সিসি ক্যামেরা বসানোর ঘোষণা দিয়েছেন।  

নোয়াখালী সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মেহেরুন নেছা ও হরিনারায়ণ পুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল আলিম বলেন, আমরা প্রত্যেকেই যার যার জায়গায় দায়িত্ব পালন করতে হবে। কোথাও কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা দেখলে দাঁড়াতে হবে এবং সমাধান করতে হবে। কিশোর গ্যাং গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রাখার জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

সেইসাথে দ্রুত অদিতার হত্যাকারীদের শাস্তির দাবি জানান।  

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো.শহীদুল ইসলাম জানান, অপরাধী শনাক্তে চৌমুহনী ও মাইজদীর বিভিন্ন পয়েন্টে দুইশতটি সিসি ক্যামেরা বসানো হবে।

উলেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা শহর মাইজদীতে নোয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী তাসমিয়া হোসেন অদিতাকে (১৪) ধর্ষণের পর গলাকেটে হত্যা করা হয়। পরে নিহতের মা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনের বিরুদ্ধে সুধারাম থানায় মামলা করেন।  পরে পুলিশের একাধিক দল পৃথক অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামি সাবেক গৃহ শিক্ষক আবদুর রহিম রনি (২৫), ইসরাফিল (১৪), তার ভাই সাঈদসহ (২০) চারজনকে গ্রেপ্তার করে।  মূল আসামী আবদুর রহিম রনির ৩দিনের রিমান্ড চলছে। বাকিদেরকে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

news24bd.tv/আজিজ