‘ইন্টার’ পরীক্ষায় ফেল বার্সেলোনা
‘ইন্টার’ পরীক্ষায় ফেল বার্সেলোনা

সংগৃহীত ছবি

‘ইন্টার’ পরীক্ষায় ফেল বার্সেলোনা

অনলাইন ডেস্ক

চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট পর্বে ওঠার রাস্তা কঠিন করে ফেলল বার্সেলোনা। বুধবার গ্রুপ পর্বের ইন্টার মিলানের কাছে ১-০ গোলে হেরে গেলবারের মতো এবারও ইউরোপায় নেমে যাওয়ার শঙ্কায় পড়েছে কাতালান ক্লাবটি।

গ্রুপ ‘সি’ এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগের মৃত্যুকূপ। ভিক্টোরিয়া প্লাজেনের বিপক্ষে বড় জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করলেও বার্সা পরপর দুই ম্যাচ হারল বায়ার্ন মিউনিখ এবং ইন্টার মিলানের বিপক্ষে।

আসরের শেষ ষোলতে উঠতে চাইলে গ্রুপ পর্বের শেষ তিন ম্যাচে তাই দারুণ কিছু করে দেখাতে হবে বার্সাকে।

ঘরের মাঠ সান সিরোয় ইন্টার যে বার্সার কঠিন পরীক্ষা নেবে তা জানাই ছিল। তবে এত কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার কথা বার্সা হয়তো ভাবেনি। পুরো ম্যাচে ইন্টার ডিফেন্ডাররা বোতলবন্দি করে রেখেছিলেন বার্সার তারকা স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডস্কিকে।

বাকিরাও খুলতে পারেননি গোলের খাতা।

ম্যাচের শুরু থেকে বার্সা বল নিয়ন্ত্রণ নিলেও পাল্টা আক্রমণে ভয় ধরাচ্ছিল ইন্টার। বার্সা যে সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না, তা নয়। তবে ইন্টারের রক্ষণভেদ করতে পারছিলেন না দেম্বেলে-পেদ্রিরা। উল্টো প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে বার্সাকে চমকে দেন ইন্টার মিডফিল্ডার হাকান চানহানোলু।

রেফারির যখন বিরতির বাঁশি বাজানোর অপেক্ষায়, তখনই ডি বক্সের বাইরে থেকে তার নিখুঁত শট খুঁজে নেয় জাল। পিছিয়ে পড়ে বার্সেলোনা। শেষ পর্যন্ত চানহানোলুর এই গোলই গড়ে দেয় ম্যাচের ভাগ্য। চানহানোলু গোলখাতায় নাম তোলার আগে হোয়াকিন কোরেয়াও প্রতি আক্রমণ থেকে করেছিলেন দারুণ এক গোল। তবে সেটা অফসাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায়।

দ্বিতীয়ার্ধে বার্সা আক্রমণে বাড়ায় ধাঁর। ইন্টার মন দেয় রক্ষণে। প্রথমার্ধে ডান প্রান্তে খেলা উসমান দেম্বেলে বিরতির পর জায়গা পরিবর্তন করে আসেন বাঁ-প্রান্তে। পজিশন বদল করে সফলতা প্রায় পেয়েই গিয়েছিলেন তিনি। তবে ৬০ মিনিটে তার নেওয়া শট পোস্টে লেগে ফিরে আসলে হতাশা বাড়ে অতিথিদের।

তবে ৭ মিনিট পর বার্সাকে আনন্দের উপলক্ষ ঠিকই এনে দিয়েছিলেন পেদ্রি। আনসু ফাতি বদলি হয়ে নামলে দেম্বেলে ফিরে যান ডান-প্রান্তে। সেখান থেকেই ইন্টার ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে দেম্বেলে ক্রস করেন। ইন্টার গোলরক্ষক ওনানা বল ঠিকঠাক ক্লিয়ার করতে না পারলে ফাঁকায় দাঁড়ানো পেদ্রি বল জালে পাঠান।

গোলের পর পেদ্রি তখন উৎসব করছিলেন। কিন্তু রেফারি ইন্টার খেলোয়াড়দের অভিযোগ শুনে নিলেন ভিএআর (ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারি) এর সহযোগিতা নেন। পরে দেখা গেল বল পেদ্রির পায়ে পৌঁছানোর আগে স্পর্শ করে হেড করতে যাওয়া ফাতির হাত। ফলাফল, রেফারি দেন গোল বাতিল করে।

সেই গোল শেষ পর্যন্ত আর শোধ দেওয়া হয়নি বার্সার। যদিও হ্যান্ডবল থেকে বার্সা শেষদিকে পেতে পারত একটি পেনাল্টি। তবে রেফারি ভিএআর নিয়েও বার্সা সমর্থকদের খুশি করতে পারেননি।

এই হারে ৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের তিনে নেমে গেল বার্সা। ৬ পয়েন্ট নিয়ে তাদের ঠেলে দুইয়ে এখন ইন্টার। শীর্ষে ৯ পয়েন্ট ঝুলিতে পোরা বায়ার্ন। শেষ ষোলতে উঠতে গেলে বার্সাকে এখন তাই বেশ বেগই পোহাতে হবে।

news24bd.tv/সাব্বির