বোনকে ধর্ষণচেষ্টা, মা-বাবার হাতে ছেলে খুন

অনলাইন ডেস্ক

প্রিন্ট করুন printer
বোনকে ধর্ষণচেষ্টা, মা-বাবার হাতে ছেলে খুন

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় হত্যার শিকার ছেলের ছবিসহ আটক বাবা শামীম মিয়া।

আপন ছোট বোনকে ধর্ষণচেষ্টা করায় ছেলের পুরুষাঙ্গ কেটে হত্যা করেছে বাবা ও মা।নিহত তরুণের নাম হাসান (১৮)। এ ঘটনায় আটকের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বাবা, মা ও ছোটবোন হাসানকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রইছ উদ্দিন।

সাঈদ খোকনের বক্তব্যে ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ : মেয়র তাপস

মাঠে টাইগাররা

মাঠে নয় বড় পর্দায় আসছেন ইরফান পাঠান

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন নিহত হাসানের বাবা শামীম মিয়া (৪০), মা হাসিনা বেগম (৩৮) ও হাসানের ছোটবোন শিলা (১৫)।

আটককৃতদের  রোববার আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

এ বিষয়ে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানায়, গত ২১ ডিসেম্বর রাতে ছোটবোন শিলা (১৫) প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাথরুমে যাওয়ার পথে তাকে জড়িয়ে ধরেন হাসান। এ সময় বোনকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে তার চিৎকারে বাবা-মা ছুটে আসেন। এ সময়ে হাসানের মা হাসিনা বেগম ছেলেকে ঘরে নিয়ে মুখে বালিশ চেপে ধরেন আর বাবা শামীম মিয়া ছেলের হাত-পা ধরে রাখেন। এ সময় ছোটবোন শিলা ধারালো ছুরি দিয়ে হাসানের পুরুষাঙ্গ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

পুলিশ যায়, বাড়ির পাশের ডোবা থেকে অতিমাত্রায় দুর্গন্ধ বের হলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। একপর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাসানের মরদেহ উদ্ধার করে। ১৭ দিন ধরে মরদেহটি ডোবায় পড়ে ছিল। তবে বাড়ির এতো কাছে লাশ পাওয়া যাওয়া এবং হত্যাকাণ্ড নিয়ে স্বজনদের অসংলগ্ন বক্তব্যে প্রথম থেকে সন্দেহ হয়। ছেলেটি মাদকাসক্ত থাকায় এবং স্থানীয় প্রভাবশালী ছেলের সঙ্গে বিরোধ থাকায় সবগুলো বিষয় মাথায় নিয়ে এগুতে থাকেন পুলিশ।

আসামিদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি এবং গামছা উদ্ধার করেছে।

 

মুন্সীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশফাকুজ্জামান জানান, নিহতের স্বজনরা প্রতিপক্ষ একজনের ওপর দায় চাপাতে চেয়েছিলেন। তাঁরা মিথ্যা তথ্য দিয়ে বার বার পুলিশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে। তবে তাদের কথায় বিভ্রান্ত হয়নি পুলিশ। সঠিক তদন্ত শেষে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচিত করেছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য