বোনকে ধর্ষণচেষ্টা, মা-বাবার হাতে ছেলে খুন

অনলাইন ডেস্ক

বোনকে ধর্ষণচেষ্টা, মা-বাবার হাতে ছেলে খুন

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় হত্যার শিকার ছেলের ছবিসহ আটক বাবা শামীম মিয়া।

আপন ছোট বোনকে ধর্ষণচেষ্টা করায় ছেলের পুরুষাঙ্গ কেটে হত্যা করেছে বাবা ও মা।নিহত তরুণের নাম হাসান (১৮)। এ ঘটনায় আটকের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বাবা, মা ও ছোটবোন হাসানকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রইছ উদ্দিন।

সাঈদ খোকনের বক্তব্যে ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ : মেয়র তাপস

মাঠে টাইগাররা

মাঠে নয় বড় পর্দায় আসছেন ইরফান পাঠান

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন নিহত হাসানের বাবা শামীম মিয়া (৪০), মা হাসিনা বেগম (৩৮) ও হাসানের ছোটবোন শিলা (১৫)।

আটককৃতদের  রোববার আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

এ বিষয়ে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানায়, গত ২১ ডিসেম্বর রাতে ছোটবোন শিলা (১৫) প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাথরুমে যাওয়ার পথে তাকে জড়িয়ে ধরেন হাসান। এ সময় বোনকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে তার চিৎকারে বাবা-মা ছুটে আসেন। এ সময়ে হাসানের মা হাসিনা বেগম ছেলেকে ঘরে নিয়ে মুখে বালিশ চেপে ধরেন আর বাবা শামীম মিয়া ছেলের হাত-পা ধরে রাখেন। এ সময় ছোটবোন শিলা ধারালো ছুরি দিয়ে হাসানের পুরুষাঙ্গ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

পুলিশ যায়, বাড়ির পাশের ডোবা থেকে অতিমাত্রায় দুর্গন্ধ বের হলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। একপর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাসানের মরদেহ উদ্ধার করে। ১৭ দিন ধরে মরদেহটি ডোবায় পড়ে ছিল। তবে বাড়ির এতো কাছে লাশ পাওয়া যাওয়া এবং হত্যাকাণ্ড নিয়ে স্বজনদের অসংলগ্ন বক্তব্যে প্রথম থেকে সন্দেহ হয়। ছেলেটি মাদকাসক্ত থাকায় এবং স্থানীয় প্রভাবশালী ছেলের সঙ্গে বিরোধ থাকায় সবগুলো বিষয় মাথায় নিয়ে এগুতে থাকেন পুলিশ।

আসামিদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি এবং গামছা উদ্ধার করেছে।

 

মুন্সীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশফাকুজ্জামান জানান, নিহতের স্বজনরা প্রতিপক্ষ একজনের ওপর দায় চাপাতে চেয়েছিলেন। তাঁরা মিথ্যা তথ্য দিয়ে বার বার পুলিশকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে। তবে তাদের কথায় বিভ্রান্ত হয়নি পুলিশ। সঠিক তদন্ত শেষে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচিত করেছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ছাত্রীকে অপহরণের পর বিয়ে, কারাগারে শিক্ষক

অনলাইন ডেস্ক

ছাত্রীকে অপহরণের পর বিয়ে, কারাগারে শিক্ষক

হিন্দু সম্প্রদায়ের এক কলেজছাত্রীকে ‘অপহরণের পর ধর্মান্তরিত করে বিয়ে’ করার অভিযোগে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার এক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিকে একটি সূত্র জানায়, এটি প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদের চতুর্থ বিয়ে। এ ঘটনায় তাকে স্কুল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) খুলনা জেলার ডুমুরিয়া এলাকা থেকে শামীম আহমেদকে গ্রেফতার করা হয়।  শামীম আহমেদ শ্যামনগর উপজেলার নুরনগরের আলী আহসান গাজীর ছেলে।

গত ৩ এপ্রিল প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদ কাটুনিয়া রাজবাড়ি ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে।৭ই এপ্রিল ফেসবুকে প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদ ও ওই কলেজ ছাত্রীকে খুলনার এক নোটারি পাবলিকের কার্যালয়ে বসে ধর্মান্তরিত হওয়া ও বিয়ে সংক্রান্ত নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করছেন এমন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

ওই রাতেই মেয়েটির বাবা শামীম আহমেদ এর বিরুদ্ধে শ্যামনগর থানায় মেয়েকে অপহরণ ও ধর্মান্তরিত করার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে খুলনার ডুমুরিয়া থেকে শামীম আহমেদকে গ্রেপ্তার ও অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার দুপুরে শ্যামনগর থানায় সাংবাদিকদের বিফ্রিংকালে কালিগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ এমএম মোহাইমেনুর রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কাগজে মৃত আওয়াল ৯ বছর ঘুরেও জীবিত হতে পারেননি!

অনলাইন ডেস্ক

কাগজে মৃত আওয়াল ৯ বছর ঘুরেও জীবিত হতে পারেননি!

সাংবাদিক আব্দুল আওয়ালের বয়স এখন ৩১। কিন্ত গত ৯ বছর ধরে আব্দুল আওয়াল যে এখনও জীবিত সেটিই প্রমাণ করতে ঘুরতে হচ্ছে সরকারের এই দপ্তর থেকে ওই দপ্তরে। আব্দুল আওয়ালের জীবনের দুর্বিষহ দিনের শুরু ২০১২ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদ থেকে। সেই সময়ের ভোটার তালিকা হালনাগাদে আব্দুল আওয়ালকে মৃত উল্লেখ করা হয়। সেই থেকে  চাকরির আবেদনের পাশাপাশি সরকারি সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন আব্দুল আওয়াল। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য করোনার টিকা পর্যন্ত দিতে পারেননি তিনি। এ নিয়ে খুবই দুর্বিষহ দিন অতিবাহিত করছেন তিনি।

আব্দুল আওয়াল নেত্রকোণার মদন পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে। তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকার প্রতিনিধি ও মদন উপজেলার করোনা বিষয়ক কমিটির সমন্বয়ক।

আওয়াল আক্ষেপ করে বলেন, নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে গত ৯ বছর ধরে আবেদন করে উপজেলার নির্বাচন অফিসে ঘুরছি। নির্বাচন অফিসাররা আশ্বাস দিলেও এখনও জীবিত হতে পারলাম না। আমি জানি না কবে জীবিত হতে পারব। 

২০১৪ সালে পৌরসভার মেয়রের কাছ থেকে আমি যে জীবিত আছি এ বিষয়ে একটি প্রত্যয়ন নিয়ে কোনোভাবে সাধারণ কাজ কর্ম করছি।

তিনি বলেন, আমি সরকারি আবেদনসহ কোনো ধরনের আবেদন করতে পারছি না। আমার সরকারি চাকরির বয়স শেষ হয়ে গেছে। আমার বাড়িটি খারিজ করা একান্ত প্রয়োজন। কিন্তু কিছুই করতে পারছি না। আমি আজ সমাজে জীবিত থাকলেও কাগজে মৃত আছি।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. হামিদ ইকবাল বলেন, ২০১২ সালে ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় তথ্য সংগ্রহকারী সাংবাদিক আওয়ালকে হয়তো মৃত উল্লেখ করেছেন। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাওলানা জুবায়ের আহমেদ গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

মাওলানা জুবায়ের আহমেদ গ্রেফতার

২০১৩ সালের শাপলা চত্বরে হেফাজতের অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনার মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে হেফাজত ইসলামের ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা জুবায়ের আহমেদকে। শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) বিকেলে লালবাগের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মাহবুব আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 ২০১৩ সালে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে হেফাজতের অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় হওয়া মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি আরও একটি মামলার আসামি। 

উল্লেখ্য, মাওলানা জুবায়েরসহ এখন পর্যন্ত হেফাজতের কেন্দ্রীয় সাতজন নেতাকে গ্রেফতার করা হলো। এর বাইরে বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকেও শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মসজিদের টাকা নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

অনলাইন ডেস্ক

মসজিদের টাকা নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

রংপুরের হারাগাছে মসজিদের উন্নয়ন তহবিলের টাকার ভাগাভাগি নিয়ে  দু'পক্ষের সংঘর্ষে কাছুম আলী (৬০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হয়েছে দুইজন। সংঘর্ষের এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল হারাগাছ পৌরসভার মসজিদের পাশে এই ঘটনা ঘটে।

হারাগাছ থানার ওসি রেজাউল করিম জানান, হারাগাছ পৌরসভার জুম্মার পার জামে মসজিদের উন্নয়ন তহবিলেরর যে টাকা তোলা হয় বা কালেকশন করা হয় সেটা নিয়েই মুলত ঘটনার সুত্রপাত্র। কালেকশনের টাকা থেকে আদায়কারীদের ২৫ ভাগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় মসজিদ কমিটি। এনিয়ে স্থানীয় আব্দুল বারী ভেলুমিয়া এবং দয়াল মিয়া নেতৃত্বে পক্ষে-বিপক্ষে দুটি গ্রুপ তৈরি হয়।

এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দয়াল মিয়ার পক্ষে লেখালেখিও হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। মাগরিবের নামাজের পর দয়াল মিয়া তার লোকজনসহ মসজিদ থেকে বের হলে আব্দুল বারী ভেলু মিয়ার লোকজন তাদের ওপর হামলা চালায়।

এসময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে দয়াল মিয়ার ভগ্নীপতি নাজমুল আলম (৪৫) গুরুতর আহত হয়। তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রাত ১০ তিনি মারা যান। আহত হয় দয়াল মিয়া ও নুর আলম।

পুলিশ এ ঘটনায় আব্দুল বারী ভেল্লো মিয়া, তার তার পুত্র লিওন ও রিপন মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে।  ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নিহতের স্বজনরা এ ঘটনায় অভিযুক্তদের ফাঁসির দাবি করেছেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নেত্রকোনায় সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনায় সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে নেত্রকোণার বারহাট্টায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এক সাবেক ইউপি সদস্যকে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। নিহত রুবেল মিয়া আসমা ইউনিয়নের সাবেক সদস্য ছিলেন। তিনি কৈলাটি গ্রামের সামছুদ্দিনের ছেলে।

বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৮টার দিকে উপজেলার আসমা ইউনিয়নের ছোট কৈলাটি গ্রামে এ খুনের ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে বারহাট্টা থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন নিহতের চাচাতো ভাইদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিল। রুবেল মিয়া ওই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য এবং সামছুদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রুবেলের সাথে চাচাতো ভাই কাইয়ুম, কাদির ও শাহজাহানদের জমি নিয়ে পূর্ব বিরোধ চলে আসছিল।

বৃহস্পতিবার ২য় রোজা রেখে ইফতারের পর রাতে বাজার থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে রাজনের ঘরের পেছনে চাচাতো ভাইয়েরা পথরোধ করে কুপিয়ে জখম করে। পরে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। আশঙ্কা অবস্থায় রুবেলকে উদ্ধার করে স্থানীয় বারহাট্টা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি মো. মিজানুর রহমান ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর