চল্লিশোর্ধ্ব ও স্বামী বিদেশে থাকা নারীরাই ছিল বেলালের টার্গেট

অনলাইন ডেস্ক

চল্লিশোর্ধ্ব ও স্বামী বিদেশে থাকা নারীরাই ছিল বেলালের টার্গেট

চল্লিশোর্ধ্ব নারীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব লুটে নেওয়ায় ছিল ওর টার্গেট। তবে যাদের স্বামী বিদেশে থাকেন এবং বিত্তশালী, তাদের প্রতি ছিল তার বিশেষ আগ্রহ। নানা কৌশলে ওই সব নারীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলত মো. বেলাল হোসেন নামের এই ব্যক্তি।

দেখা করার কথা বলে গোপনে তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি তুলে রাখত সে। পরবর্তী সময়ে এসব ছবি পাঠাত ওই ভুক্তভোগীদের ‘ফেসবুক’ মেসেঞ্জারে। দফায় দফায় তাদের কাছ থেকে আদায় করত মোটা অঙ্কের অর্থ। অবশেষে এক ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে বেলালকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদেই বেরিয়ে আসতে থাকে থলের বিড়াল। গ্রেপ্তারের আগ পর্যন্ত শতাধিক নারীর সঙ্গে সে এমন প্রতারণা করেছে বলে স্বীকার করেছে তদন্ত-সংশ্লিষ্টদের কাছে। পরে যাত্রাবাড়ী থানায় দায়ের করা মামলার ভিত্তিতে বেলালকে এক দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

ডিবি সূত্র বলছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমেই তাদের সন্ধান করত সে। দফায় দফায় মেসেঞ্জারে নক করে একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপন করত। বেলালের থাবা থেকে বাদ যায়নি তার শ্বশুরবাড়ির দিকের অনেক আত্মীয়। এসব নারীর অনেককে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে সে। তবে এসব দৃশ্য ভিডিওতে ধারণ করে রাখার কারণে এ ব্যাপারে তারা মুখ খুলতে সাহস পাননি। উল্টো তার ডাকে সাড়া দিতে বাধ্য হয়েছেন তারা। বিভিন্ন সময় দিয়েছেন বেলালের চাহিদা মতো অর্থ।

আরও পড়ুন:


জান্নাতে বেশি মেহমানদারি পেতে চাইলে যে আমল করবেন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে পাঁচ প্রভাবশালী কূটনীতিক বৈঠক

রোহিঙ্গা স্রোত ঠেকাতে সীমান্ত নিরাপত্তা নিশ্চিত : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রেলে ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার গতির ৪০ ইঞ্জিন যুক্ত হবে : রেলমন্ত্রী


সূত্র আরও বলছে, বেলাল পেশায় গাড়িচালক হলেও নিজেকে এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যবসায়ী, বিত্তশালী বাবার একমাত্র সন্তান হিসেবে পরিচয় দিত। দেড় বছর ধরে এনা পরিবহনের গাড়ি চালাচ্ছে সে। করোনা মহামারীতে লকডাউনের সময় বেপরোয়া হয়ে পড়ে বেলাল। কৌশল হিসেবে কখনো কখনো সে নিজেকে স্ত্রীর দ্বারা প্রতারিত স্বামী বলে ওই সব ভুক্তভোগীর কাছ থেকে সহানুভূতি আদায় করত। তাদের সঙ্গে দেখা করতে যেত রাজধানীর বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে। তার বাবার নাম আবদুল আজিজ। গ্রামের বাড়ি বরিশালের হিজলা থানার গোয়াবাড়িয়ায়। গ্রেপ্তারের সময় বেলালের সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোনে তার অপরাধের অনেক প্রমাণ পাওয়া গেছে। 

ডিবির অতিরিক্ত উপকমিশনার (মতিঝিল) আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। তবে বেলাল যে একজন বিকৃত রুচির মানুষ তা ইতিমধ্যে আমরা বুঝতে পেরেছি। কোন কোন হোটেলে নিয়ে ভুক্তভোগীদের ব্ল্যাকমেইল করত সে ব্যাপারেও খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবাইকে আরও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। সৌজন্য: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে হত্যা

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কারমাইকেল কলেজের ছাত্রী রুবাইয়া ইয়াসমিন রিমুকে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে হত্যা করেছে দুই যুবক।

সোমবার বিকালে নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার কচুকাটা গ্রামে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়। স্থানীয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় এক যুবক জানান, কারমাইকেল কলেজের বাংলা অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রিমু বিকালে যখন টিউশনি করে বাড়ি কচুকাটা সড়কে ফিরছিল তখন ওঁৎ পেতে ছিল প্রতিবেশী দুই যুবক। এরা হলেন কচুকাটা ইউনিয়নের আব্দুল্লা হোসেনের ছেলে ফয়সাল হোসেন ও তার বন্ধু জাহিদুল হোসেনের ছেলে রেজভি হোসেন।

আরও পড়ুন:


এখনো ইরান ও আমেরিকাকে নিয়ে বসতে চান বোরেল

সৌদি যুবরাজের শাস্তি চাইলেন খাশোগির বাগদত্তা চেঙ্গিস

৫ খাল থেকে দুই মাসে পৌনে ২ লাখ টন বর্জ্য অপসারণ

মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে


তারা দু'জনে রুবাইয়া ইয়াসমিন রিমুকে জোড় করে মোটরসাইকেলে তুলে জলঢাকা সড়কে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে রিমু যেতে না চাইলে তাকে মোটরসাইকেল থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পথচারীরা দেখে ফেললে পড়ে তাকে তুলে নিয়ে যায়। পড়ে জানতে পারি রিমুর লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কে বা কারা রেখে চলে গেছেন।

হাসপাতালের কর্মচারী মোসলেম উদ্দিন জানান, বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়েছে লাশ মর্গে পড়ে আছে। ময়না তদন্ত শেষে তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আত্মীয়ের বাড়ি না নিয়ে নিল নিজ বাড়িতে, ধর্ষণ করল তিনজন মিলে

অনলাইন ডেস্ক

আত্মীয়ের বাড়ি না নিয়ে নিল নিজ বাড়িতে, ধর্ষণ করল তিনজন মিলে

শরীয়তপুরে দুই কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে ছয় যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং প্রত্যেককে পঞ্চাশ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। টাকা অনাাদায়ে ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ সোমবার বিকেলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আ. ছালাম খান এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- নড়িয়া উপজেলার আনাখন্ড গ্রামের মৃত খালেক ছৈয়ালের ছেলে টিটু ছৈয়াল (৩১), পাঁচক গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদ ছৈয়ালের ছেলে মো. রাজ্জাক ফকির (৩৩), রশিদ সরদারের ছেলে আবু সরদার (৩৮)। সদর উপজেলার মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত লোকমান ফকিরের ছেলে ইসলাম ফকির (২৪), মৃত ছামাদ মন্ডলের ছেলে রাকিব মন্ডল (২৪) ও শাহআলম তালুকদারের ছেলে  সবুজ তালুকদার (২২)।


ভাতিজিকে ধর্ষণ, জেল থেকে বেড়িয়েই চাচার মোটর শোভাযাত্রা!

শ্যালিকাকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, দুলাভাই গ্রেপ্তার

যতদিন পুরুষতন্ত্র থাকবে, ধর্ষণ চলবে

ধর্ষণ করতে গিয়ে পুরুষাঙ্গ ‌‘হারালেন’ যুবক!

৩০-৩২ গার্লফ্রেন্ড থাকার পরও আমাকে ভালোবাসত নাসির: তামিমা


মামলার বিবরণে প্রকাশ, ২০১৯ সালের ২৬ অক্টোবর মজিদ জরিনা ফাউন্ডেশন স্কুল এন্ড কলেজে চলছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠান থেকে ১৩ বছরের বয়সী ওই কিশোরী সহপাঠী মইন ও রনিকে নিয়ে ঘুরতে বের হন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নের আনাখন্ড বেইলি ব্রিজের পাকা সড়কে পৌঁছালে আসামি টিটু, রাজ্জাক ও আবু সরদারা মিলে মইন ও রনিকে এলোপাতাড়িভাবে মারধর করে আহত করে ওই কিশোরীকে অপহরণ করে।

ওইদিন রাতে আসামি টিটুর বাড়িতে ওই কিশোরীকে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। চিৎকার করলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ওই কিশোরী বাদী হয়ে নড়িয়া থানায় মামলা করে। 

অন্যদিকে, ২০১৯ সালের ৩০ জুন ১৪ বছরের ওই কিশোরীর বাড়ি ছিল নড়িয়া উপজেলায়। নদী ভাঙনে গৃহহীন হয়ে জাজিরার একটি গ্রামে আশ্রয় নেয় পরিবারটি। ওই কিশোরী বিকেলে তার এক আত্মীয়র বাড়ি যাওয়ার জন্য শরীয়তপুর জেলা শহরের বাস টার্মিনালে আসেন। তখন সেখানে দেখা হয় পূর্ব পরিচিত পরিবহন শ্রমিক ইসলামের সঙ্গে। ইসলাম ওই কিশোরীকে তার আত্মীয়র বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে তার বন্ধু রাকিব মন্ডল ও সবুজের সাথে অটোরিকশায় তুলে দেয়। রাকিব ও সবুজ মেয়েটিকে নিয়ে মনোহর বাজারে যান।

পরে রাকিবের বাড়িতে নেয়া হয়। সেখানে মেয়েটির মুখ বেঁধে রাকিব ও সবুজ প্রথম দফায় ধর্ষণ করেন। এরপর সন্ধ্যায় ওই বাড়িতে যায় ইসলাম। রাতে ইসলামও মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। পুনরায় ধর্ষণ করা নিয়ে ইসলামের সঙ্গে রাকিব ও সবুজের কথা কাটাকাটি হয়। তখন ইসলাম মেয়েটিকে তাদের বাড়ির পাশের শরীয়তপুর বনবিভাগের পুকুর ঘাটে নিয়ে যায়। পুকুর ঘাটে নিয়েও মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়। পরে কিশোরীকে পুলিশ উদ্ধার করে। রাতে ওই কিশোরীর বাবা বাদি হয়ে পালং মডেল থানায় মামলা করেন।

নড়িয়া থানা ও পালং মডেল থানা পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে ২০২০ সালে আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পরবর্তী সময়ে মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য গেলে আদালত সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

শরীয়তপুরের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মির্জা হজরত আলী জানান, রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী এই দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানান।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাথায় গাছের ডাল পরে কাঠ ব্যবসায়ীর মৃত্যু

মো. বুরহান উদ্দিন, সুনামগঞ্জ

মাথায় গাছের ডাল পরে কাঠ ব্যবসায়ীর মৃত্যু

সুনামগঞ্জের কুরবান নগর ইউনিয়নের বদিপুর গ্রামে মাথায় গাছের ডাল পরে শওকত আলী (৪৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

আজ সোমবার (১ মার্চ) বিকেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শওকত আলী বদিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল বারিকের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত শওকত আলী বিভিন্ন জায়গায় গাছ কিনে সেই গাছ কেটে কাঠ তৈরি করে বিক্রি করতেন।  নিজের গ্রামে একটি কদম গাছ কিনে সোমবার বিকেলে শ্রমিক দিয়ে সেই গাছ কাটছিলেন।


প্রতিদিন নতুন নারী লাগত তার, পরতেন ত্রিশ দিনে ৩০ সানগ্লাস

১৭ বছরের কিশোরীর পেটে ৪৮ সেন্টিমিটার লম্বা চুলের দলা

ছোট ভাই মাকে বলল,‘আপুকে পেছনের রুমে নিয়ে গেছে এক ভাইয়া

স্ত্রীকে সৌদি পাঠিয়ে ৮ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ করে বাবা


অসাবধানতা বশত গাছের বড় একটি ডাল শওকত আলীর মাথায় পরে। গাছের ডালের আঘাতে তিনি জ্ঞান হারান। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তবরত চিকিৎসক জাহিদ হাসান বলেন, মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত শওকত আলী নামের একজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। তবে হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ময়মনসিংহে ছিনতাকারী চক্রের ছয় নারী সদস্যসহ আটক ৭

সৈয়দ নোমান, ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহে ছিনতাকারী চক্রের ছয় নারী সদস্যসহ আটক ৭

ময়মনসিংহ নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ছিনতাইকারী চক্রের ছয় নারী সদস্য ও এক পুরুষ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে দশটি স্বর্ণের চেইন ও ছিনতাইকাজে ব্যবহৃত বিশেষ কাটার উদ্ধার করা হয়েছে। অন্তত তিন মাস ধরে নগরীতে ছিনতাই করছিলো তারা।

আটকরা হলেন- নাসিমা বেগম (২২), নিহার বেগম (২৫), শিল্পি বেগম (২৫), মনোয়ারা বেগম (৪৫), সুরাইয়া বেগম (৪১) ও মো. রাশেদ মিয়া (২৫)। তাদের সবার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর এলাকায়। শম্ভুগঞ্জ এলাকায় বাসা ভাড়া
নিয়ে তারা থাকতো।


এক নারী দিয়ে হতো না, প্রতিদিন নতুন নারী লাগত তার

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ

মেয়েকে তুলে নিয়ে মাকে রাত কাটানোর প্রস্তাব অপহরণকারীর

নাসির বিয়ে করেছেন আপনার খারাপ লাগে কেন?


সোমবার সকাল সাতটার দিকে তাদের আটক করা হয় বলে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দ জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, এক শিক্ষিকার পাাঁচ বছর বয়সী মেয়ের স্বর্ণের চেইন ছিনতাই করতে গিয়ে হাতেনাতে আটক হয় পাপিয়া আক্তার (২৭) ও শিল্পি আক্তার (২৪) নামে আরো দুই নারী ছিনতাইকারী। তাদের বাড়ি ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চরশ্রীরামপুর গ্রামে। তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হবে।

পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামান বলেন, জনসমাগম বেশি এমন স্থানকে টার্গেট করে অপতৎপরতা চালাচ্ছিল চক্রটি। এই চক্রটি সুকৌশলে মানুষের মোবাইল ও চেইন ছিনতাইসহ নানা অপরাধমূলক কাজে জড়িত ছিল। চক্রটির মূলহোতাদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাদ্রাসা শিক্ষকের হাত-পা বাঁধা ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক মাদ্রাসা শিক্ষকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

আজ সকালে সদর উপজেলার বাজারগোপালপুর কলুপাড়ার একটি ভাড়াবাসা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ইসমাইল হোসেন সদর উপজেলার হলিধানী গ্রামের আবুল খায়েরের ছেলে। 

পুলিশ জানায়, বাজারগোপালপুর বড়বাড়ি দাখিল মাদ্রাসার সুপার ইসমাইল হোসেনের ভাড়া বাসার নিজ কক্ষে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয় পরিবারের লোকজন। 


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


পরে পুলিশ এসে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। স্থানীয় ও পুলিশের ধারণা ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে রাতের কোনো এক সময় দুর্বৃত্তরা হাত-পা বেঁধে ঘরের কাঠামোর সাথে ঝুলিয়ে হত্যা করেছে। গত ৪ বছর ধরে গ্রামের শরিফুল ইসলামের বাড়িতে স্ত্রী সন্তান নিয়ে তিনি বসবাস করে আসছিল।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর